শনিবার, ১১ মে, ২০১৯

হাওড়া কান্ডে আইনজীবীদের কর্মবিরতি চলবে ১৪ মে অবধি

পারিজাত মোল্লা:- গত ২৪ এপ্রিল হাওড়া জেলা আদালতে গাড়ী রাখা নিয়ে আইনজীবীদের উপর পুলিশি সন্ত্রাস নিয়ে দুদফায় টানা ১৬ দিন আইনজীবীদের  কর্মবিরতি চলেছে রাজ্যের সব আদালত গুলিতে। আজ অর্থাৎ শুক্রবার সিটি সিভিল কোর্টের ষষ্ঠতলায় 'বার কাউন্সিল অফ ওয়েস্ট বেঙ্গল' এর অফিসে কর্মবিরতি বিষয়ে গুরত্বপূর্ণ বৈঠক হল। সেখানে সারা রাজ্যের আদালত গুলিতে  আইনজীবীদের কর্মবিরতি আগামী ১৪ মে অবধি চালু থাকার ঘোষণা করা হয়। সেইসাথে কলকাতা হাইকোর্টের প্রধান বিচারপতির ডিভিশন বেঞ্চে হাওড়া কান্ডের স্বতঃস্ফূর্ত মামলায়  'বার কাউন্সিল অফ ওয়েস্ট বেঙ্গল' এর পক্ষে আনসার মন্ডল, উত্তম মজুমদার, মিহির বন্দ্যোপাধ্যায় ও পিনাকী গাঙুলি মামলায় সওয়াল করার কথা জানানো হয়।আইনজীবীদের একপক্ষ চাইছেন যেখানে কলকাতা হাইকোর্টের প্রধান বিচারপতি থোট্টাথিল বি  রাধাকৃষ্ণণ সিরিয়াসলি স্বতঃস্ফূর্ত মামলায় বিষয়টি খতিয়ে দেখছেন, সেখানে কর্মবিরতির সময়সীমা বাড়ানোর কোন দরকার ছিলনা, পক্ষান্তরে বিচারপতিদের প্রতি একপ্রকার অনাস্থা নেওয়ার সামিল হয়ে যায় বিষয়টি। উল্টোদিকে আইনজীবীদের অন্যপক্ষ বিশেষত হাওড়া জেলা আদালতে বার এসোসিয়েশন মনে করছে অভিযুক্ত পুলিশ অফিসারদের প্রতি কড়া ব্যবস্থাগ্রহণ না করা অবধি কর্মবিরতি বহাল থাকুক। যেভাবে সেদিন(২৪ এপ্রিল) সকাল দশটা থেকে রাত সাতটা পর্যন্ত টানা নয় ঘন্টা হাওড়া পুলিশ কমিশনারেট আইনজীবীদের উপর তান্ডবলীলা চালিয়েছে, সেখানে জীবনের নিরাপত্তা কোথায়?  ইতিমধ্যেই গত ৮ মে অর্থাৎ বুধবার কলকাতা হাইকোর্টের প্রধান বিচারপতির  ডিভিশন বেঞ্চে সেদিনের নিগৃহীত আইনজীবী তনুশ্রী দাসের তরফে কর্মস্থলে মহিলাদের সার্বিক নিরাপত্তা সুনিশ্চিত করা রাস্ট্রের কর্তব্য বিষয়টি তুলে ধরা হয়েছে। এটিকে 'বিশেষ মামলা' হিসাবে হাইকোর্টে গ্রহণ করা হয়েছে, তবে অন্য কোন  মামলায়  মামলাকারীরা এটি কে 'রেফারেন্স' হিসাবে নথিভুক্ত করতে পারবেনা বলে উল্লেখ করা  হয়েছে হাইকোর্টের নির্দেশিকায়। ঠিক এইরকম পরিস্থিতিতে কর্মবিরতি বিষয়ে দুভাগ আইনজীবীমহল। তার রেশ পড়েছে  বার কাউন্সিল অফ ওয়েস্ট বেঙ্গল এর আজকের বৈঠকে। প্রথম পর্যায়ে ২৪ এপ্রিল থেকে ২ মে কর্মবিরতি ঘোষণা শান্তিপূর্ণ ভাবে হলেও, গত ২ মে কর্মবিরতি বাড়ানোর ঘোষণা নিয়ে আইনজীবীদের মধ্যে হাতাহাতি পর্যায়ে পৌঁছে যায়। আইনজীবীদের একাংশের  দাবি, রাত সাতটা পর্যন্ত সেদিন বার কাউন্সিল এর প্রতিনিধিদের অফিস ঘরে অবরুদ্ধ করে রাখে কয়েকশো ক্ষুব্ধ  আইনজীবী। পরে অবশ্য ১০ ই মে অবধি রাজ্যজুড়ে আদালতে আইনজীবীদের কর্মবিরতি চলার ঘোষণা করা হয়। এরেই মধ্যে বার কাউন্সিল অফ ওয়েস্ট বেঙ্গল এর সদস্য তথা কলকাতা হাইকোর্টের বর্ষীয়ান আইনজীবী বৈশ্বানর চট্টপাধ্যায় কলকাতা হাইকোর্টের বিচারপতি দেবাংশু বসাক এর এজলাসে বীরভূম জেলা তৃমূল সভাপতি অনুব্রত মন্ডলের কেন্দ্রীয় নির্বাচন কমিশনের 'নজরবন্দী' নির্দেশিকার বিরুদ্ধে মামলা দাখিল করেন। যা নিয়ে প্রবল চাপের মধ্যে পড়ে যায়  বার কাউন্সিল।  উক্ত সংগঠনের এর তরফে শোকজ করা হয় ওই আইনজীবীকে। কেন তিনি ঘোষিত কর্মবিরতির মাঝেই মামলা লড়তে গেলেন, সেই বিষয়ে। এই বিষয়টি নিয়েও আইনজীবীদের বড় অংশ অবশ্য ক্ষুব্ধ। টানা ১৬ দিন আইনজীবীদের কর্মবিরতি চলেছে। সেখানে পেশাগত দিকদিয়ে আর্থিকভাবে বিপর্যস্ত আইনজীবীদের বড় অংশ। বিশেষত মহকুমা ও জেলাস্তরের আইনজীবীদের উপর আর্থিক মন্দার প্রভাব সবচেয়ে বেশি ঘটেছে বলে আইনজীবীরা জানাচ্ছেন। সেইসাথে আইনজীবিদের ল'ক্লাক (মুহুরি), স্ট্যাম্প পেপার বিক্রেতা, টাইপিস্ট, আদালত চত্বরে জেরক্স / ডিটিপি দোকানদাররাও এই টানা কর্মবিরতির ফলে কমবেশি ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন। আবার ২৪ মে থেকে ৯ জুন অবধি কলকাতা হাইকোর্ট সহ রাজ্যের সমস্ত সিভিল(দেওয়ানি) আদালতে গরমের ছুটি পড়বে। তাই সেসময় পেশাগত আয়ের কোন সুযোগ পাবেন না বেশিরভাগ আদালতের সাথে যুক্ত ব্যক্তিরা।  আগামী ১৩ মে কলকাতা হাইকোর্টের প্রধান বিচারপতির ডিভিশন বেঞ্চ কোন নির্দেশ দিতে পারে হাওড়া কান্ডের পরিপেক্ষিতে। সেক্ষেত্রে বার কাউন্সিল অফ ওয়েস্ট বেঙ্গল ১৪ মে অবধি কর্মবিরতি বহাল রাখার ঘোষণা করলো আজকের বৈঠকে । উল্লেখ্য গত ৮ মে কলকাতা হাইকোর্টের প্রধান বিচারপতির ডিভিশন বেঞ্চ হাওড়ার ঘটনা  নিয়ে বার কাউন্সিল অফ ওয়েস্ট বেঙ্গল কে মামলায় যুক্ত করে এবং ১৩ মে এর মধ্যে হলফনামা মারফত বক্তব্য পেশের নির্দেশিকা জারী হয়েছে। এছাড়াও  ১০ মে এর মধ্যে হাওড়া বার এসোসিয়েশন কেও হলফনামা জমা দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানবিচারপতি। হাওড়া বার এসোসিয়েশন এর পক্ষে পুলিশের বিরুদ্ধে অভিযোগ তোলা হলেও রাজ্যের পক্ষে এডভোকেট জেনারেল কিশোর দত্ত কোন নিদিষ্ট আবেদন পেশ হয়নি বলে সওয়াল করেন হাইকোর্টের প্রধান বিচারপতির ডিভিশন বেঞ্চে। ঠিক এইরকম পেক্ষাপটে জমজমাট হয়ে উঠেছে হাওড়া জেলা আদালতে আইনজীবী দের উপর পুলিশি সন্ত্রাসের ঘটনা টি । কেউ কেউ বলছেন, ২০০২ সালে কোর্টে স্ট্যাম্প ফি নিয়ে রাজ্যজুড়ে টানা ২২ দিনের আইনজীবীদের কর্মবিরতি চলেছিল। সেই কর্মবিরতির রেকর্ড ভাঙতে দরকার আরও ৬ দিন। ২২ দিনের রেকর্ড ভাঙতে হাওড়া কান্ড আর কতদূর পথ এগিয়ে যায়, তার দিকে নজর রাখছেন অনেকেই।  গত ২৪ শে এপ্রিল থেকে ১৪ মে অর্থাৎ টানা কুড়িদিন সারা রাজ্য জুড়ে আইনজীবীদের কর্মবিরতি চলছে। কেউ কেউ বলছেন এটা ২৩ শে মে অর্থাৎ লোকসভার ফলাফল ঘোষণার দিন অবধিও  চলতে  পারে।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only