মঙ্গলবার, ১৪ মে, ২০১৯

কংগ্রেস-সিপিএম মীরজাফরের মতো মমতার পা টেনে ধরছে: ফিরহাদ


ইনামুল হক, বসিরহাটঃ

বিজেপিকে সুবিধা করে দিতে এ রাজ্যে সিপিএম আর কংগ্রেস মমতার পা টেনে ধরছে। কিন্তু সুবিধা হবে না।সিপিএম সাঁই বাড়ি হত্যাকাণ্ড  করেছিল। আপনারা সবাই জানেন ছেলেকে খুন করে রক্ত মাখা ভাত মাকে খাইয়ে ছিল। সেই সিপিএম আর কংগ্রেস সুবিধা করে দিচ্ছে। এতে লাভ হবে না। এরাজ্যে মোদীজি বারবার আসছেন । মমতা বাধা ওনার স্বপ্ন পূরণে। তাহলে কি এতে কি দেশের মসনদ দখল করতে পারবেন?  কিন্তু, উনি জানেন না সবাইকে তিনি ভয়-ভীতি দেখিয়ে নিজের করতে পারেন, মমতাকে পারবেন না।
 বসিরহাট লোকসভা কেন্দ্রের তৃণমুল কংগ্রেস প্রার্থী নুসরত জাহানের সমর্থনে মঙ্গলবার বসিরহাট দক্ষিণ বিধান সভার গাছা আখারপুর ও বাদুড়িয়ায় দু জায়গায় সভা করতে এসে এ কথা বলেন রাজ্যের পুর ও নগরোন্নয়ন মন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম। বাদুড়িয়ায়  তিনি কংগ্রেস প্রার্থীকে নিয়ে কটাক্ষ করেন। কাটা হাত নিয়ে ময়দানে নেমেছে বিজেপিকে ক্ষমতা পাইয়ে দিতে। তিনি বলেন, এক সময় জওহরলাল নেহেরু, ইন্দিরা গান্ধী, রাজীব গান্ধীরা বিভিন্ন শিল্প এনে দেশকে দিশা দেখিয়েছেন। কিন্তু ,  প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী বিদেশের কাছে দেশকে বিক্রি করে তাদের কাছে   আমাদের গোলাম করে রাখতে চান। সেই প্রধানমন্ত্রীর নাম মুখে নিতে চাই না। কেন না স্বামী বিবেকানন্দের নাম নরেন্দ্র নাথ। তাই ওনাম মুখে না এনে  মোদিকে বলি  ঢপবাজ  মোদি।  ফিরহাদের কথায় কর্মী সমর্থকদের হাততালিতে মুখরিত হয়ে ওঠে বাদুড়িয়ার তরুণ সংঘের মাঠ। 
মোদি  বলছেন  এক সময় ডিজিটাল ইন্ডিয়া, কখনো সবকা সাথ সবকা বিকাশ , কখনো আবার শহীদের নামে ভোট চাইছেন। উত্তর প্রদেশ, গুজরাটে গরুর মাংস কেউ বিক্রি করলে বা খেলে তাকে খুন করা হচ্ছে। উত্তরপ্রদেশের  গরুর মাংস ব্যবসায়ী আমদানি রপ্তানি করছেন তারা দুইশো কোটি টাকা দিয়ে বিজেপি ভোটের কাজে লাগাচ্ছে। গরুর মাংস খেও না কিন্তু গরুর মাংস  বিক্রি করার ব্যবসায়ীর কাছ থেকে দু' শো কোটি টাকা নাও, এই হল  মোদি। কেন পাকিস্তানের বড় শত্রু মোদি। এখন আর আচ্ছে দিনের কথা বলছেন না।‌ নতুন মত দিচ্ছেন, শহীদদের নামে ভোট চাইছেন।আর মোদি দেশ ভাগ করতে চাইছেন ধর্মের ভিত্তিতে।  ধর্মকে প্রাণ দিয়ে মানব। ভোটের বাজারে ধর্মকে বেচা যায় না। বিজেপি ধর্মের ব্যবসা করে জিততে চায়।    এখানে বিভাজনের রাজনীতি চাইনা। রবীন্দ্রনাথ নজরুলের রাজ্য এখানে শান্তির বাতাবরণ তৈরি হয়েছে । তাই নষ্ট করতে দিল্লি থেকে উড়ে আসছে কিছুই হিন্দি ভাষী মানুষ।
এদিন  ফিরহাদ হাকিমের সঙ্গে তিনটি সভাতেই ছিলেন জেলা পরিষদ কর্মাধ্যক্ষ একেএম ফারহাদ, । বসিরহাটের গাছা ফুটবল মাঠে ছিলেন প্রার্থী নুসরত জাহান,   বিধায়ক দিপেন্দু বিশ্বাস, জেলা পরিষদের সদস্য ও সফিজা বেগম বিবি ও শফিকুল ইসলাম,  শাহানুর মন্ডল। তৃণমূল নেতা শারিফুল মন্ডল ও গোলাম বিশ্বাস । বাদুড়িয়ার ঈশ্বরীগাছা জি  টি স্কুল মাঠে ফিরহাদ হাকিমের সঙ্গে ছিলেন জেলা পরিষদ কর্মাধ্যক্ষ,  নারায়ণ গোস্বামী, বাদুড়িয়া নর্থ ব্লক তৃণমুল কংগ্রেস সভাপতি বুরহানুল মুকাদ্দিম লিটন ও বাদুড়িয়ার আনারপুর তরুণ সংঘের মাঠে সভায় ছিলেন  বাদুড়িয়া পুর প্রধান তুষার সিংহ, জেলা পরিষদ সদস্য মমতাজ  বেগম, পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতি কুহেলিকা  পারভীন, সুভাষ সাহা প্রমুখ।


একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only