বৃহস্পতিবার, ৩০ মে, ২০১৯

মোদির শপথে যাচ্ছেন না কেসিআর, অমরিন্দর, নবীন পট্টনায়েক, জগনমোহনও

বুধবারই বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় জানিয়ে দিয়েছিলেন তিনি দিল্লিতে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির শপথগ্রহণ অনুষ্ঠানে থাকছেন না। সেই একই পথে হাঁটলেন আরও একঝাঁক রাজনৈতিক তারকা। পঞ্জাবের মুখ্যমন্ত্রী ক্যাপ্টেন অমরিন্দর থেকে শুরু করে অন্ধ্রপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী জগনমোহন রেড্ডি, তেলেঙ্গানার মুখ্যমন্ত্রী কে চন্দ্রশেখর রাও (কেসিআর)– ওড়িশার মুখ্যমন্ত্রী নবীন পট্টনায়ক, ছত্তিশগড়ের মুখ্যমন্ত্রী ভূপেশ বাঘেল প্রমুখরা এদিন প্রধানমন্ত্রীর শপথ অনুষ্ঠানে যাচ্ছেন না। এঁদের প্রত্যেকের কাছে আমন্ত্রণপত্র পাঠানো হয়েছিল। উল্লেখ্য– রাজ্যে বিপুল আসন পাওয়ার পর  জগনমোহন রেড্ডি দিল্লিতে গিয়ে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করে এসেছিলেন। তারপরও এদিন যেভাবে তিনি মোদির শপথ অনুষ্ঠানে গরহাজির থাকলেন তা নিয়ে নতুন করে জল্পনা তৈরি হয়েছে। একইভাবে তেলেঙ্গানার মুখ্যমন্ত্রী চন্দ্রশেখরও প্রধানমন্ত্রীর শপথে যাচ্ছেন না। উল্লেখ্য– জগন ও চন্দ্রশেখর প্রধানমন্ত্রীর শপথে থাকার আমন্ত্রণ গ্রহণ করেছিলেন। ঠিক ছিল– বৃহস্পতিবার বিকেলের বিমানে তাঁরা দিল্লির উদ্দেশ্যে রওনা দেবেন। যদিও শেষপর্যন্ত তাঁরা আর প্রধানমন্ত্রীর শপথ অনুষ্ঠানের জন্য রওনা হননি। উল্লেখ্য– এদিনই আবার অন্ধ্রের মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে শপথ নিয়েছেন জগনমোহন রেড্ডি। তাঁর অনুষ্ঠানে যোগ দিতে বুধবারই বিজয়ওয়াড়া এসে পৌঁছেছিলেন চন্দ্রশেখর। এদিন– নৈশভোজেও হাজির থাকবেন তেলেঙ্গানার মুখ্যমন্ত্রী। ঠিক ছিল বিকেল ২টার বিমানে তিনি দিল্লি যাবেন। যদিও তা তিনি করেননি। উল্টে– জগনের নৈশভোজে উপস্থিত থাকাই শ্রেয় মনে করেন। ছত্তিশগড়ের মুখ্যমন্ত্রী ভূপেশ বাগেল ও ওড়িশার মুখ্যমন্ত্রী নবীন পট্টনায়ক জানিয়েছিলেন পূর্বনির্ধারিত কাজ থাকার জন্য তাঁরাও উপস্থিত থাকতে পারবেন না প্রধানমন্ত্রীর শপথ অনুষ্ঠানে। পঞ্জাবের মুখ্যমন্ত্রী তথা কংগ্রেস নেতা ক্যাপ্টেন অমরিন্দর সিংও প্রধানমন্ত্রীর শপথগ্রহণ অনুষ্ঠান বয়কট করেছেন। অমরিন্দরের না যাওয়ার বিষয়টির কথা জানিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রীর মিডিয়া উপদেষ্টা রবীন ঠুকরাল। 

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only