মঙ্গলবার, ১৪ মে, ২০১৯

''কমল হাসানের জিভ ছিড়ে নেওয়া উচিত'', নিরাপত্তা জোরদার কমল হাসানের। কেন জানেন কি?

ভারতের প্রথম সন্ত্রাসবাদী একজন হিন্দু আর তাঁর  নাম নাথুরাম গডসে । এমন মন্তব্য করেছেন কমল হাসান। এবার এই মন্তব্যের প্রতিক্রিয়া দিতে গিয়ে বিতর্ক উস্কে দিলেন তামিলনাড়ুর মন্ত্রী কে টি আর  বালাজি। তিনি বললেন, ‘ কমল হাসানের জিভ ছিড়ে নেওয়া উচিত।' তাঁর কথায়, ‘ওঁর জিভ ছিড়ে নেওয়া উচিত। উনি বলেছেন ভারতের প্রথম সন্ত্রাসবাদী হিন্দু। সন্ত্রাসের কোনও ধর্ম হয় না। হিন্দু,মুসলমান বা খ্রিস্টান কোনও ধর্মই সন্ত্রাসের ধর্ম নয়। স্বভাবতই এই প্রতিক্রিয়ায় সমালোচনার ঝড় বয়ে গিয়েছে রাজনৈতিক মহলে। শুধু বিতর্কিত মন্তব্য করাই নয় তামিলনাড়ুর এই মন্ত্রী মনে করেন কমল হাসানের দলকে নির্বাচনী প্রক্রিয়ার থেকে সরিয়ে দেওয়া উচিত। তিনি বলেন, আপনি (অভিনেতা) কেন বিষ ছড়াচ্ছেন? আপনার প্রত্যেকটা কথাই বিষাক্ত। আপনার দল রাজ্যে সন্ত্রাস করছে। তাই নির্বাচন কমিশনের কাছে আমার অনুরোধ এসবের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিন। জঙ্গি সংগঠন আইসিসের কাছ থেকে কমল হাসান টাকা পাচ্ছেন কি না তাও তদন্ত করে দেখা উচিত বলে তিনি মন্তব্য করেছেন।

তামিলনাড়ুর এই মন্ত্রী ছাড়া বিজেপিও হাসানের মন্তব্যের তীব্র বিরোধিতা করেছে। তামিলনাড়ুর বিজেপি সভাপতি টি সুন্দররাজান বলেছেন, ‘আমরা হাসানের মন্তব্যের তীব্র বিরোধিতা করছি। হিন্দুদের নিয়ে নির্বাচনী জনসভা থেকে তিনি যা বলেছেন তা সমর্থন করার কোনও প্রশ্নই ওঠে না। তিনি এমন এলাকায় গিয়ে এ ধরনের কথা বলছেন যেখানে সংখ্যালঘু মানুষের সংখ্যা বেশি। তাই এ ধরনের মন্তব্য থেকে সাম্প্রদায়িক উত্তেজনা তৈরি হতে পারে। নির্বাচন কমিশনের উচিত হাসানের বিরুদ্ধে অত্যন্ত কড়া ব্যবস্থা নেওয়া"।
রাজনৈতিক নেতা-নেত্রীদের পাশাপাশি অভিনেতা বিবেক ওবেরয়ও সমালোচনা করেছেন। বিবেক এবারের নির্বাচনে বিজেপির প্রচার করছেন। শুধু তাই নয় ভোট পর্ব মিটলে প্রধানমন্ত্রী জীবন নিয়ে যে ছবি মুক্তি পেতে চলেছে তাতেও নাম ভূমিকায় রয়েছেন বিবেক। তিনি বলেন, ‘শ্রদ্ধেয় কমল হাসান স্যার আপনি একজন বিরাট মাপের শিল্পী। যেভাবে শিল্পের কোনও ধর্ম হয় না ঠিক সেভাবেই সন্ত্রাসের কোনও ধর্ম হয় না। আপনি বলতেই পারেন নাথুরাম গডসে একজন সন্ত্রাসবাদী। কিন্তু তিনি হিন্দু এমনটা উল্লেখ করার কোনও প্রয়োজন ছিল না। আপনি মুসলমান অধ্যুষিত এলাকায় গিয়ে কথা বলছিলেন বলেই কি ধর্মের উল্লেখ করতে হল?

অন্যদিকে, তামিলনারু সরকার ঘটনার পরে কমল হাসানের প্রাণনাশের শংকায় তার বারিতে নিরাপত্তা জোরদার করেছে। ৫০ জন পুলিস মোতায়েন করা হয়েছে। বেশ কিছু নির্বাচনী সভা কমলকে বাতিল করতে হয়েছে।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only