মঙ্গলবার, ২৮ মে, ২০১৯

সিট-কে ২৫ লক্ষ টাকা পুরস্কার কর্নাটক সরকারের, গৌরী লঙ্কেশ হত্যা ও সন্ত্রাসি সংগঠনের পর্দা ফাঁস

কর্নাটক পুলিশের বিশেষ তদন্ত দল সিট-এর প্রশংসা হয়েছে রাজ্যস্তরে সুপ্রিম কোর্টও প্রশংসা করেছে সিট-এর তদন্ত নিয়ে। বোম্বে হাইকোর্ট কর্নাটক সিট-এর প্রসঙ্গ উল্লেখ করেছে মহারাষ্ট্রের তদন্ত প্রক্রিয়ার ঢিলেমি দেখে। গৌরী লঙ্কেশ খুনের তদন্ত করতে গিয়ে দেশব্যাপী ‘হিন্দু সন্ত্রাসি সংগঠন’ সনাতন সংস্থার নেটওয়ার্ক প্রকাশ্যে এনেছে সিট। কর্নাটক সরকার সিটের তদন্তকার্যে আস্থা দেখিয়ে পুরস্কার ঘোষণা করল। ২৫ লক্ষ টাকা পুরস্কার দেওয়া হবে সিটের সদস্যদের। গৌরী লঙ্কেশ হত্যার পরদিনই কর্নাটকের সিদ্দারামাইয়া সরকার আইজিপি বিকে সিং-এর নেতৃত্বে ২১ সদস্যের সিট গঠন করে। পরে তদন্তের গতি-প্রকৃতি কর্নাটক ছাড়িয়ে ছড়িয়ে পড়ে মহারাষ্ট্র– অন্ধ্র– তেলেঙ্গানা– অসম সহ বেশ কয়েকটি রাজ্যে। সিটের সদস্য বেড়ে দাঁড়ায় ৯১। পুরস্কারের অর্থ নন-আইপিএসদের মধ্যে বণ্টন করে দেওয়া হবে। এক একজন ৫ হাজার থেকে ৫০ হাজার টাকা পুরস্কার স্বর*প পাবেন।
কর্নাটকে ২০১৭ সালে লঙ্কেশ হত্যার তদন্ত করতে গিয়ে কেঁচো খুড়তে কেউটে বের হয়ে আসে। একই হিন্দু সন্ত্রাসি গোষ্ঠী আগের চারটি হত্যায় জড়িত এই সত্য প্রথম প্রকাশ করে সিট। বিদ্বজন হত্যায় মহারাষ্ট্রে গঠিত সিট কর্নাটকের সিটের তথ্য হাতে পেয়ে পুরাতন মামলায় নড়েচড়ে বসে। গ্রেফতার করে সনাতন সংস্থার কর্মকর্তাদের। পরিস্কার হয়ে যায় ধাবালকার– কালবুর্গি– পানসারে হত্যাকাণ্ডেও জড়িত সনাতন সংস্থার কর্মকর্তারা। এরা সন্ন্যাসীর বেশে ও আশ্রমের আড়ালে গুপ্তহত্যার ট্রেনিং দিতে থাকে। নিজেরা অস্ত্র কারখানা তৈরি করে। অস্ত্র চালনার ট্রেনিংও দেয়। গুপ্ত ঘাতকদের জন্য অর্থের ব্যবস্থা করে। সর্বোপরি গুপ্ত ঘাতকদের মনোবল বাড়াতে ‘আধ্যাত্মিক’ ট্রেনিং কর্মসূচি নেওয়া হয়। নাম দেওয়া হয় ক্ষাত্র ধর্ম সাধনা। কট্টরবাদী হিন্দুত্বের বিরোধিতা করলে তাদের খতম করে দেওয়ার কর্মসূচি গ্রহণ করে এই গোষ্ঠী। এই হত্যাকে তারা আবার পুণ্যের কাজ বলে মনে করে। ৩২ জনের তালিকা উদ্ধার করে সিট। যাদের হত্যা করতে চায় গুপ্ত ঘাতকরা। সমাজের উপরতলার বহু মানুষ জড়িত রয়েছে এই সংস্থায়। সে কারণে কর্নাটকে বিজেপি সরকার ক্ষমতা হারানোর পর বেশি দুশ্চিন্তায় পড়ে কট্টরবাদী গেরুয়া সংগঠন। তাদের মতে– কংগ্রেস সরকার তথা সিটকে নিবৃত্ত করতে না পারলে দেশব্যাপী বিরাট অঘটন ঘটে যাবে। কিন্তু কর্নাটক সিট তদন্ত জাল গুটিয়ে এনে তথ্য-প্রমাণ আদালতে জমা দিয়েছে। সেই তথ্যের ভিত্তিতে মামলা অগ্রসর হলে বিপদে পড়বে সাদা পোশাকের বহু গেরুয়া নেতা। কর্নাটকে কংগ্রেস সরকার ফেলার চেষ্টার পিছনে বিজেপির উপর এই চাপটাও রয়েছে কট্টরবাদীদের। কর্নাটক সরকার পুরস্কার ঘোষণা করে সিটের সদস্যদের অসাধারণ সাফল্যের স্বীকৃতি যেমন দিল তেমনই এদের মনোবল বাড়ানোর চেষ্টা করা হল। বিচার প্রক্রিয়ার মধ্যে সিট যাতে যথাযথভাবে অংশ গ্রহণ করে বা কোনও চাপের কাছে নতিস্বীকার না করে তারও ছোট একটা ব্যবস্থা করেছে কর্নাটকের কংগ্রেস সরকার। উল্লেখ্য– কর্নাটকে কুামারাস্বামীর জোট সরকার ফেলে দেওয়ার মরিয়া চেষ্টা চলছে এখন। লোকসভার ফল ঘোষণার পর সেই উদ্যম আরও বেড়েছে।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only