বৃহস্পতিবার, ১৬ মে, ২০১৯

মৃত ব্যক্তির ওসিয়ত অনুযায়ী অতিথি আপ্যায়ন বাদ রেখে মসজিদ ও মাদ্রাসায় দান

দেবশ্রী মজুমদার, রামপুরহাট, ১৬মেঃ  স্বামী ইন্তেকাল করেছেন। নিজে বিশ্বাস করেন, রূহ বের হয়ে গেলে মানুষ মৃত। তারপর আত্মীয়ের তরফ হতে মৃত ব্যক্তির উদ্দেশ্যে শুরু হয় ইসালে সওয়াব। যেটুকু জায়েয সেটা করেই থেমেছেন এক ধর্মপ্রাণা মহিলা। বাকি অর্থ দিয়ে মসজিদ ও মাদ্রাসায় আল্লাহর উদ্দ্যেশে দান করার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন ওই ধর্মপ্রাণ মহিলা। মহিলার নাম রেহেনা হক। এলাকাসূত্রে জানা গেছে, গত ৭ মে বার্ধক্যজনিত রোগে ভুগে ইন্তেকাল হয় ধর্মপ্রাণ মোজাম্মেল হকের (৮০)। আদি বাড়ি মাড়াগ্রাম থানার দুনিগ্রামের কাছে মধুপুরে। কর্মজীবনে বিহারের গোমোতে স্টেশন মাস্টার ছিলেন তিনি। অবসর নিয়েই কিছুদিনের জন্য রামপুরহাট সভার ১৭ নম্বর ওয়ার্ডে ভাড়া বাড়িতে বসবাস শুরু করেন। পরে রামপুরহাট জাতীয় সড়ক সংলগ্ন এলাকায় থাকতে শুরু করেন। জানা গেছে, নিয়ম মেনেই দাফন থেকে সমস্ত ইসালে সওয়াব সম্পন্ন হয়েছে। ইতিমধ্যে হয়েছে চাহারুম। আসন্ন  চল্লিশা। কিন্তু বাদ থাকছে অতিথি আপ্যায়ন। সেই টাকা থেকেই হবে নেক কাজ। ইতিমধ্যেই ভাঁড়াশালাপাড়ায় এক মসজিদে পাঁচটি ফ্যান দেওয়া হয়েছে। মধুপুরে এক মসজিদে নামাজীদের জন্য বসিয়ে দেওয়া হয়েছে জলের পাম্প। জীবিত অবস্থায় দুই মেয়ের বিয়ে দিয়েছেন। মরহুম মোজাম্মেল হকের স্ত্রী রেহেনা হক জানান, স্বামী ধর্মপ্রাণ ছিলেন। তাঁর ওসিয়তেই মাদ্রাসা ও মসজিদে এই নেক কাজ করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only