বুধবার, ২৯ মে, ২০১৯

বিনা অনুমতিতে কার্যালয় বিজেপির: জোর বিতর্কে বিজেপি

দেবশ্রী মজুমদার, বীরভূম, ২৯মে: একই ব্লকে বিজেপির দুটি দলীয় কার্যালয়। তার মধ্যে একটি সদ‍্য। তাও বিনা অনুমতিতে। আর তার জেরে জোর বিতর্কে বীরভূম জেলার বিজেপি।
জানা গেছে, মুরারই ১ ব্লকে বিজেপির একটি দলীয় কার্যালয় আছে। সেখানে সাংগঠনিক দিক থেকে যে কোন রাজনৈতিক দলের থেকে বিজেপি পিছিয়ে। সম্প্রতি লোকসভা নির্বাচনে তৃণমূলের সাংসদ শতাব্দী রায়  এই মুরারই থেকে  সর্বাধিক লিড পায়। কিন্তু দলের উপর ক্ষোভ বশতঃ গোলাম মোস্তফা নামে  তৃণমূল থেকে আগত বিজেপি কর্মী বিজেপির কার্যালয় খুলে বসে বুধবার। যার বিন্দু বিসর্গ জানে না দলের জেলা নেতৃত্ব। বিজেপির জেলা সহ সভাপতি সুধীর রঞ্জন দাস গোস্বামী জানান, দলের একটি পার্টি অফিস আছে। দলকে না জানিয়ে এই দলীয় কার্যালয় খোলায় দল গোলামের উপর ব‍্যবস্থা নেবে। অবশ্য এব‍্যাপারে গোলাম মোস্তফা জামান, আমি মুকুল রায়ের নেতৃত্বে বিজেপিতে এসেছি। দলের সাথে তার কথা হয়েছে। মুরারই ১ ব্লকের তৃণমূল সভাপতি বিনয় ঘোষ জানান, এখানে বিজেপির কোন সংগঠন নেই। নির্বাচনে বুথে এজেন্ট দিতে পারে না। এসব নিয়ে আমাদের মাথা ব্যথা নেই।
উল্লেখ্য, ২০০৬ সালে মুরারইয়ে বিধান সভা নির্বাচনে তৃণমূলের প্রার্থী হিসেবে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে পরাজিত হন তিনি। ২০০৯ সালের লোকসভা নির্বাচনে শতাব্দী রায়ের হয়ে প্রচার করেন তিনি। এমনকি ২০১১ সালে নুরে আলম চৌধুরীর হয়ে প্রচার করেন তিনি। বিগত পঞ্চায়েত নির্বাচনের আগে মুকুল রায়ের হাত ধরে বিজেপিতে যোগ দান করেন তিনি। ভোটের পর কংগ্রেসে যোগ দেন তিনি। এবার লোকসভায় বিজেপির আসন বৃদ্ধির পর এদিন নিজেই বিজেপির হয়ে দলীয় কার্যালয় খুলে মোদী ও মুকুল রায়ের ফ্লেক্স লাগান। জানা গেছে, রেলওয়ের জায়গায় আগ তৃণমূলের দলীয় কার্যালয় খোলেন তিনি। তা দীর্ঘ দিন বন্ধ ছিল। এদিন ফের খোলা হয়। যা নিয়ে বিতর্কের শেষ নেই।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only