রবিবার, ৯ জুন, ২০১৯

সন্দেশখালিতে তৃণমুল কংগ্রেস পরিষদীয় দলের নেতারা নিহত কর্মীর বাড়িতে

ইনামুল হক, বসিরহাটঃ - উত্তর চব্বিশ পরগনা জেলার সন্দেশখালির ন্যাজাট থানার হাটগাছি গ্রামে তৃণমূল কংগ্রেসের পরিষদীয় দল নিহত তৃণমূল কংগ্রেস কর্মী কায়েম মোল্লার বাড়ীতে যান রবিবার। তার পরিবারকে সমবেদনা জানান। কথা বলেন তার বাবার সঙ্গে। পাশে থাকার আশ্বাস দেন তিনি। খোঁজ খবর নেন গোটা ঘটনার।  রাজনৈতিক সংঘর্ষ বিদ্ধস্ত সন্দেশখালীর ন্যাজাট থানার হাটগাছি গ্রাম পরিদর্শন করেন। পরিষদীয় দলের নেতৃত্ব দেন জেলার তৃণমূল কংগ্রেসের সভাপতি তথা খাদ্যমন্ত্রী জোতিপ্রিয় মল্লিক, দমকল মন্ত্রী সুজিত বসু, রাজ্য বিধানসভার মুখ্য সচেতক নির্মল ঘোষ, তাপস রায়,মদন মিত্র  প্রমুখ। তারা জানান নিহত তৃণমুল কর্মী কায়েম মোল্লার পরিবারের পাশে থাকবে দল। তাপস রায় বলেন, বিজেপি অভিনন্দন যাত্রার নামে তৃণমুল কর্মীদের উপর হামলা চালাচ্ছে। তৃণমুল কংগ্রেস এর যোগ্য জবাব দেবে।  উল্লেখ্য,  শনিবার সন্ধ্যায়   সন্দেশখালিতে তৃণমূলের প্রতিবাদ মিছিলে গুলি চলায়  মৃত্যু হয় ওই তৃণমূল কর্মীর । বয়স তার ২৬ বছর।  নাম কাইয়ুম মোল্লা।  বেশ কয়েকদিন ধরে ন্যাজাট থানার হাটগাছি গ্রামে জোর করে বিজেপি পতাকা লাগাচ্ছিল । তৃণমূল কর্মীরা প্রতিবাদ জানাচ্ছিল।  তারই ফলশ্রুতি শনিবার সন্ধ্যে ছটা নাগাদ প্রতিবাদ মিছিল করছিল ফ্লাক্স ফেস্টুন নিয়ে তৃণমূল কর্মী সমর্থকরা ।সেই সময় বিজেপি আশ্রিত দুষ্কৃতিরা বেশ কয়েক রাউন্ড গুলি চালায় মিছিলের শেষ ভাগে। কাইয়ুম এর মাথায় গুলি লাগে। মৃত্যু নিশ্চিত করতে তাকে রাস্তার ধারে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে খুন করা হয়। এই ঘটনার জেরে ছত্রভঙ্গ হয়ে যায় এলাকার গ্রামবাসী।  এরপর  বেশ কয়েক রাউন্ড গুলি চলছে বলে অভিযোগ তৃণমূলের। তৃণমুলের কয়েকজন কর্মী জখম হয়। অভিযোগ অস্বীকার করেছে বিজেপি।  উল্টে দাবি তাদের ছোড়া গুলিতে তিন বিজেপি কর্মীর মৃত্যু হয়। জখম কয়েকজনকে ভর্তি করা হয়েছে। নিখোঁজ আরও কয়েকজন। ঘটনার পরপর ভাঙচুর চালানো হয় ঘরবাড়ি।  ঘটনাস্থলে নেজাট থানার পুলিশ ও র‍্যাপ নেমেছে।সন্দেশখালি ১  ব্লক সভাপতি শেখ শাহজাহান বলেন,  বিজেপি ক'দিন ধরে হাটগাছি এলাকায় গন্ডগোল পাকানোর চেষ্টা করছে। একটি দোকানে দোকানদারের আপত্তি সত্বেও জোর করে বিজেপি পতাকা লাগাতে যায়।  এটা পূর্বপরিকল্পিত। আমাদের কর্মীকে তৃণমূলের প্রতিবাদ মিছিলে গুলি করেছে। মৃত্যু নিশ্চিত করতে রাস্তায় নিয়ে কুপিয়েছে।  এর তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি। দোষীদের গ্রেফতারের দাবি জানাচ্ছি ও চরমতম শাস্তি চাই। বিজেপি বসিরহাট জেলা সভাপতি গণেশ ঘোষ দাবি করেছেন তৃণমুল কংগ্রেসকে ভোট না দেওয়ায় বিজেপির উপর এই হামলা। রবিবারও এলাকায় চাপা উত্তেজনা ছিল। এদিন বিজেপির তরফে সোমবার বারো ঘন্টা বসিরহাট বন্ধের ডাক দেওয়া হয়েছে। একই সঙ্গে কালা দিবস পালন করবে তারা।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only