মঙ্গলবার, ২৫ জুন, ২০১৯

কেন গণতন্ত্র নিয়ে অসন্তোষ বাড়ছে বিশ্বব্যাপী ?



বিশ্বব্যাপী গণতন্ত্র নিয়ে মানুষের মধ্যে অসন্তোষ বাড়ছে, চাঞ্চল্যকর তথ্য উঠে এসছে সম্প্রতি একটি সমীক্ষার মাধ্যমে। রিপোর্ট বলছে, বিশ্বের মোট জনসংখ্যার অর্ধেক নিজেদের দেশকে গণতান্ত্রিক বলে মনে করে। আরও এই গণতন্ত্রের বিরুদ্ধে বাড়ছে তাদের অসন্তোষ।
সম্প্রতি জার্মান পরিসংখ্যান প্রতিষ্ঠান ডালিয়া রিসার্ট অ্যান্ড অ্যালায়েন্স অব ডেমোক্রেসিস ফাউন্ডেশন ৫৭ টি দেশের নাগরিকদের নিয়ে বিষয়টি ওপর সমীক্ষা চালিয়ে ছিল। সেখান থেকে উঠে এসছে, যে, গণতান্ত্রিক দেশ হিসাবে পরিচিত দেশগুলিতে ৩৮ শতাংশ নাগরিক তাদের শাসনব্যবস্থার প্রতি তীব্র অসন্তোষ প্রকাশ করেছে।
পশ্চিম ইউরোপের নাগরিকরা ব্যাঙ্ক এবং সোশ্যাল মিডিয়াকে গণতন্ত্রের জন্য হুমকি বলে মনে করেন। ব্যাঙ্ক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলির প্রতি সবচেয়ে বেশি তারা সন্দেহ প্রকাশ করে। গ্রিসের নাগরিকরা এবিষয়ে সবচেয়ে বেশি আতঙ্কে ভোগেন। কারণ দশ বছর আগে দেশটি প্রবল অর্থনৈতিক সংকটে পড়ে ছিল।ভুক্তভোগী হয়ে ছিলেন অসংখ্য দরিদ্র্য নাগরিক।
এছাড়া নিজেদের দেশে গণতন্ত্র আছে কি না, তা নিয়ে দ্বিধাবিভক্ত হয়ে পড়েছেন মার্কিন নাগরিকরা।২০২০ সালের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের প্রস্তুতি শুরু হলে দেশটির প্রায় ৪৬ শতাংশ নাগরিক আমেরিকাকে গনতান্ত্রিক দেশ হিসাবে মনে করলেও, ৪০ শতাংশ মনে করে তাদের দেশে গণতন্ত্র নেই।কানাডা সহ ইউরোপের অন্যান্য দেশের সংখ্যাগরিষ্ঠ মানুষ মনে করেন গণতন্ত্র বিকাশের ক্ষেত্রে আমেরিকা নেতিবাচক ভূমিকা নিয়েছে।
২৮ দেশের জোট ইউরোপীয় ইউনিয়ন সংখ্যাগরিষ্ঠ ইউরোপীদের জন্য কাজ করছে না, মহাদেশটি ৫২ শতাংশ মানুষই এমন মত পোষন করেন।ইতালি ফ্রান্স ও গ্রিস-এর নাগরিকরা সবচেয়ে বেশি ইইউ- সমালোচনা করেছেন। সম্প্রতি জোটের শীর্ষ কর্মকর্তা বাছাই প্রক্রিয়া শুরু হবে। এই প্রক্রিয়াকেও অনেকে যথেষ্ট গণতান্ত্রিক নয় বলে মনে করেন। ইতালির ৬৯ শতাংশ নাগরিক মতে, ইইউয়ের সিদ্ধান্ত মহাদেশের জনগণের স্বার্থকে প্রতিনিধিত্ব করে না।
এছাড়া ফেসবুক, টুইটারসহ অন্যান্য সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমগুলিকে গণতন্ত্রের জন্য নেতিবাচক বলে মনে করেছে অনেকেই। আমেরিকা, কানাডা ও অস্ট্রিয়া ৪০ শতাংশ বেশি মানুষ এমন ধারণা করে।


একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only