বৃহস্পতিবার, ৬ জুন, ২০১৯

হামাগুড়িতে শৈশব মনে করাল গ্রামের যুবকরা

শুভায়ুর রহমান, পলাশিপাড়াঃ পঞ্চাশ মিটার কোটে তখন যে যার মতো ট্র‍্যাকে হামাগুড়ি দিয়ে বসে। ঈদগাহের চারিদিকে শতশত নারীপুরুষ। খেলা শুরু হতেই বছর শৈশবের স্মৃতি মনে করার চেষ্টা করল। গ্রামের ঈদের আনন্দে মজাও পেল খুব। হাসি আনন্দে হামাগুড়ি প্রতিযোগিতায় অতিবাহিত হল নদিয়ার পলাশিপাড়ার বারুইপাড়া গ্রামের উত্তর পাড়ার মানুষের। সাধারণ ভাবে খেলা প্রতিযোগিতা কিংবা সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের প্রতিযোগিতা থেকে বের হতে চাইছিলেন বারুইপাড়া গ্রামের সমাজসেবা সংঘের যুবকরা। ইদানীং আধুনিকতার ছোঁয়ায় মানুষের আনন্দে কাটানোর বহর কমেছে। তাই অভিনব প্রতিযোগিতার আয়োজনের মাধ্যমে ঈদের দিন আনন্দ দিতে চাইছিলেন সামিউল সেখ, আল মামুন হক, খালিদ সেখ, মৃদুলদের মতো যুবকরা। গত কয়েক বছর ধরে বারুইপাড়া উত্তর পাড়া ঈদগাহে ক্যুইজ, বসে আঁকো, চামচ দৌড়, ক্কেরাত প্রতিযোগিতার আয়োজন হয়ে আসছিল। কিন্তু সেই বাধা ধরা নিয়ম থেকে বেরিয়ে এসে হামাগুড়ি, বেলুন দৌড় (বেলুন ফাটিয়ে স্ট্যান্ডিং পয়েন্টে ফিরে আসা) মতো অভিনব প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হয়। এই খেলে দেখতে হাজির হন বহু মানুষ। অনুষ্ঠান কমিটির সেক্রেটারি সামিউল সেখ বলেন, ঈদের দিন একটু অন্যভাবে কাটাতে চেয়েছি আনন্দের মাধ্যমে। তাই সাধারণ ইভেন্ট এর পাশাপাশি হামাগুড়ি প্রতিযোগিতা, বেলুন দৌড় রেখেছি। হামাগুড়ি প্রতিযোগিতার উদ্দেশ্য হল শৈশবকে একটি দিনের জন্য অন্তত ফিরিয়ে আনা।'
ঈদের দিন অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা থাকলেও বৃষ্টির জন্য বৃহস্পতিবার দুপুরে আয়োজন করা হয়। প্রতিযোগী রবিউল সেখ, রিন্টু সেখদের কথায়, 'খুবই মজার খেলা। এর আগে এমন খেলা আগে দেখিনি।' সব মিলিয়ে গ্রামের ঈদ আনন্দে বাড়তি আকর্ষণ হয়ে দাঁড়ায় হামাগুড়ি প্রতিযোগিতা। যা বহু মানুষের শৈশবকে মনে করানোর চেষ্টা হয়।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only