রবিবার, ৩০ জুন, ২০১৯

বোমা ফেটে ক্লাবের দেওয়ালে ধ্বস, ঘটনার তদন্তে ফরেনসিক দল

দেবশ্রী মজুমদার, বীরভূম, ৩০ জুনঃ বোমা ফেটে ক্লাবের এক দিকের দেওয়াল ধ্বসে যাওয়ার ঘটনায় চাঞ্চল্য এলাকায়। ঘটনার তদন্তে ফরেনসিক দল। যেহেতু ক্লাবে প্রতিদিন জিম, যোগাসন, ফ্রী কোচিংয়ের মত কার্যক্রম থাকত। তাই ক্লাবে বোমা মজুতের মত ঘটনা ঘটা সম্ভব ছিল না। কিন্তু এরকম জনপ্রিয় ক্লাবের মধ্যে  বীভৎসআকারের বোমা ফাটার ঘটনার জেরে আতঙ্ক এলাকাজুড়ে।  ঘটনাটি ঘটেছে বীরভূমের মল্লারপুর থানার মসজিদ পাড়ার মেঘদুত ক্লাবে। ফাটল দেখা গেছে অন্য একটি দেওয়ালে। ফলে তিন তলা এই ক্লাবটি যেকোনো সময় ধসে পড়ার আশঙ্কা। সেই আশংকা থেকেই ক্লাব সংলগ্ন মনোজ মণ্ডল নামে এক ব্যক্তির পরিবারকে অন্যত্র সরিয়ে রাখল ক্লাব সদস্যরা। শনিবার রাত দেড়টা নাগাদ ক্লাবের অফিস ঘরে বিকট বোমা ফাটার আওয়াজ শোনা যায়।  তার তীব্রতা এত বেশী ছিল যে তিনতলা এই ক্লাবের একটা দেওয়াল প্রায় সম্পূর্ণ ধ্বসে পড়ে। ফাটল দেখা যায় অন্য দেওয়ালেও। ক্লাব সংলগ্ন এলাকার প্রতিবেশী মনোজ মণ্ডল বলেন, এক বিকট শব্দে আমাদের ঘুম ভেঙ্গে যায়। বেরিয়ে দেখি, ক্লাবের ভেতরে দাও দাও করে আগুন জ্বলছে। তিন তলা ক্লাবটিররর চারদিকে ফাটল। যদি ক্লাবটি ভেঙ্গে পড়ত তাহলে আমরা আট সদস্য চাপা পড়ে মারা যেতাম। এলাকার এই জনপ্রিয় ক্লাবে এই ঘটনার জেরে  তদন্তে নেমেছে পুলিশ। জেলা পুলিশ সুপার শ্যাম সিং  জানান,  ফরেনসিক দল ক্লাবে গিয়ে নমুনা সংগ্রহ করেছে।  এখন তদন্ত চলছে। ক্লাবের সম্পাদক গৌতম রায় জানান,  এ বছরই ক্লাবের ৫০ বছর পূর্তি। তার আগে পরিকল্পিতভাবে অফিস ঘরটিতে বোমা ফাটানো হয়েছে।  মল্লারপুর এলাকায় অনেক  আছে। তার মধ্যে মসজিদ পাড়ায়  এই ক্লাবটি ৫০ বছরের পুরানো। জানা গেছে, ক্লাবের সরকারি হিসাবে তিনশ জন সদস্য ।কিন্তু তাদের সমর্থক সংখ্যা আড়াই হাজারের বেশি। স্টেশন লাগোয়া এই ক্লাবের প্রভাব যথেষ্ট। সেখানে চলত মেয়েদের যোগাসন। ছেলেদের জিম থাকায় ভোর পাঁচটায় ক্লাবে দরজা খুলত। নবোদয় স্কুলে ভর্তির জন্য প্রায় শতাধিক ছাত্রছাত্রী  বিনা পয়সায় ক্লাবে প্রশিক্ষণ নিত। ক্লাবের সম্পাদক গৌতম রায় বলেন আমরা সারা বছর বিভিন্ন সামাজিক কাজের সঙ্গে যুক্ত থাকি। কিন্তু এই ঘটনায় আমরা অবাক। মনে হচ্ছে পরিকল্পিতভাবেই এই ঘটানো হয়েছে। পুলিশ তদন্ত করলেই ধরা পড়বে। পুলিশের প্রাথমিক অনুমান,  ক্লাবের পিছন দিকের একজস্ট ফ্যান আছে।  তার ফাঁক গলিয়ে  এসব ঘটানো হতে পারে। ক্লাব সম্পাদক জানান, ১৯৭০ সাল থেকে ক্লাবের অফিস ঘরে থাকা বিভিন্ন  খেলার পুরস্কার ট্রফি কিছু জরুরী কাগজপত্র পুড়ে ছাই হয়ে গিয়েছে।  যা আর কোন দিন পাওয়া যাবে না। এই ক্লাব নিয়ে কোন রাজনৈতিক দলাদলি নেই। সব রাজনৈতিক দলের প্রতিনিধি নেতা কর্মী সমর্থক এই ক্লাবের সদস্য। ক্লাবে কোন রাজনীতি হত না। ক্লাবের সমর্থক জয়ন্ত প্রামাণিক বলেন, শনিবার রাত  ১১টা ১০ পর্যন্ত ক্লাবটি খোলা ছিল। কারণ ক্লাবের এক সদস্যের বিয়ের বৌভাত উপলক্ষে ক্লাবে অনেকে হাজির হয়েছিলেন। বাড়ি ফিরে রাতে এই ঘটনা জানতে পারেন তিনি।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only