মঙ্গলবার, ২৫ জুন, ২০১৯

জাপানে জি-২০ সম্মেলন, কোন বিষয় প্রাধান্য পাবে সম্মেলনে?

২৮ জুন পশ্চিম জাপানের ওসাকা শহরে শুরু হচ্ছে বিশ্বের নেতৃস্থানীয় ২০টি অর্থনীতির রাষ্ট্রনেতাদের শীর্ষ সম্মেলন। ১৯টি দেশ ও ইউরোপীয় ইউনিয়নকে নিয়ে এই অনানুষ্ঠানিক জোট গঠিত হলেও প্রচলিত নিয়ম অনুসরণ করে এবারের সম্মেলনেও এর বাইরে আরও কিছু প্রভাবশালী দেশকে আমন্ত্রণ জানানো হচ্ছে। এর ফলে আগামী শুক্রবার থেকে শুরু হতে যাওয়া দুদিনের শীর্ষ সম্মেলনে যোগ দিতে বিশ্বের ২৭টি দেশ ও সেই সঙ্গে রাষ্ট্রসংঘসহ ১০টি আন্তর্জাতিক সংগঠনের নেতারা ওসাকায় সমবেত হবেন।

শীর্ষ সম্মেলনের আলোচ্যসূচিতে বৈশ্বিক অর্থনীতি থেকে শুরু করে পরিবেশ সমস্যা ও স্বাস্থ্যসেবা পর্যন্ত বিস্তৃত বিষয়াবলি অন্তর্ভুক্ত আছে। তবে এবারের সম্মেলনে সবকিছু ছাপিয়ে বাণিজ্য নিয়ে দেখা দেওয়া মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র-চীন বিতর্ক এবং বিশ্ব অর্থনীতিতে এর নেতিবাচক প্রভাব অংশগ্রহণকারী নেতাদের মনোযোগ আকৃষ্ট করছে সবচেয়ে বেশি। এর কারণ, মূল সম্মেলনের বাইরে যুক্তরাষ্ট্র ও চীনের নেতাদের একান্ত বৈঠকে মিলিত হতে সম্মত হওয়া। ওসাকায় নির্ধারিত সেই বৈঠকে তাঁরা বাণিজ্য সংঘাতের নেতিবাচক প্রভাব কাটিয়ে উঠতে সহায়তা করার মধ্যে দিয়ে উত্তেজনা প্রশমনে পদক্ষেপ গ্রহণে সম্মত হন কি না, সেদিকে এখন নজর দিচ্ছেন সংবাদমাধ্যমসহ আন্তর্জাতিক অর্থনীতির বিশেষজ্ঞরা।

এদিকে বিশ্বের ২৭টি দেশ ও সরকারপ্রধানের আসন্ন সফরের প্রস্তুতি এখন শেষ পর্যায়ে আছে। জি ২০ উপলক্ষে কঠোর নিরাপত্তা পশ্চিম জাপানের কানসাই অঞ্চলে নেওয়া হচ্ছে। ওসাকার মূল সড়কগুলোতে যানবাহন চলাচল চলতি সপ্তাহের শেষ দিক থেকে নিয়ন্ত্রণ করা হবে এবং নাগরিকদের পাতাল রেল কিংবা ট্রেনে চলাচলের উপদেশ দেওয়া হচ্ছে। ওসাকার বিভিন্ন স্কুলও আগামী বৃহস্পতিবার থেকে দু দিনের জন্য বন্ধ রাখা হবে। নিরাপত্তা জোরদার করতে পুলিশের ৩২ হাজার সদস্যকে সার্বক্ষণিকভাবে মোতায়েন রাখা হবে। সেই দায়িত্ব পালনের জন্য দরকার হওয়া পুলিশের অতিরিক্ত চাহিদা পূরণ করে নিতে সমগ্র জাপান থেকে পুলিশ বাহিনীর সদস্যদের ইতিমধ্যে ওসাকায় পাঠানো হয়েছে।

  

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only