শুক্রবার, ১৪ জুন, ২০১৯

‘হালাল নাইটক্লাব’ চালু হচ্ছে সৌদিতে!

সিনেমা হলের পর এবার ‘হালাল নাইটক্লাব’ চালু করতে চলেছে সৌদি সরকার।  চলতি সপ্তাহেই পশ্চিমা ধাঁচের এই ক্লাবের উদ্বোধন হবে আরবের জেদ্দাহ শহরে। তবে শুরুতেই বিষয়টি নিয়ে তীব্র বিতর্ক দেখা দিয়েছে। নাইটক্লাবের নামকরণে কেন ‘হালাল’ শব্দটি ব্যবহার করা হচ্ছে– তা নিয়ে সবথেকে বেশি আপত্তি আসছে। নাইটক্লাব মানে তো নারী-পুরুষের অবাধ মেলামেশা– যথেচ্ছভাবে মদ্য পান করা– উত্তাল ও উদ্দাম নাচাগানা এবং আমোদ-স্ফূর্তির জায়গা। আর এ সব তো ইসলামে হারাম। অথচ শরীয়াহ আইনে কাঁচি চালিয়ে কীভাবে এসব হারামকে হালাল করে দিচ্ছে সৌদি সরকার। সোশ্যাল মিডিয়ায় বিস্ময়সূচক কমেন্টস এসেছে– তাহলে এবার হয়ত মদ’কেও হালাল করে দেওয়া হবে। কিংবা ‘হালাল মদ’ তৈরির কারখানা খুলবে সৌদি সরকার। ইতিমধ্যেই কনসার্ট বা নাচা-গানার আসর চালু হয়েছে দেশটিতে। স্টেডিয়ামে নারী-পুরুষ একসঙ্গে পাশাপাশি বসে ফুটবল– ক্রিকেট ম্যাচ দেখার সুবব্যস্থাও করে দিয়েছে সৌদি সরকার।
উল্লেখ্য– ২১জুন ২০১৭ সৌদি বাদশাহ সালমান বিন আবদুল আজিজ তাঁর ছেলে প্রিন্স মুহাম্মদ বিন সালমান’কে প্রতিরক্ষামন্ত্রী করেন। কোনও অভিজ্ঞতা না থাকলেও কয়েক ডজন প্রিন্সকে টপকে রাতারাতি নিজের ছেলেকে ক্ষমতার অলিন্দে তুলে আনেন বাদশাহ সালমান। সেই থেকেই একের পর এক বিতর্কিত মন্তব্য ও পদক্ষেপ করে চলেছেন যুবরাজ তথা আরবের হবু বাদশাহ বিন সালমান। ইসলাম ধর্মের অন্যতম ভিত্তিভূমি হিসেবে পরিচিত সৌদি আরবে দীর্ঘ সাড়ে তিন দশক নিষিদ্ধ থাকার পর গতবছর তাঁরই উদ্যোগে চালু হয়েছে সিনেমা হল। সর্বোপরি আরবে ‘মধ্যপন্থী ইসলাম’ চালু করার কথা ঘোষণা করেছেন এই প্রিন্স।
তিনি বলেছেন– রক্ষণশীলতা থেকে মুক্ত হয়ে সব দেশ– ধর্ম ও সংস্টৃñতির মানুষের জন্য উন্মুক্ত হবে সৌদি আরব। তাঁর সেই স্বপ্নের দেশে আরও বেশি পশ্চিমা পর্যটক টানতে এবং তাদের মনোরঞ্জনের জন্য সব রকমের বন্দোবস্ত করা হচ্ছে। গড়ে উঠছে ঝাঁ চকচকে শপিং মল– বিলাসবহুল হোটেল ও রেস্টুরেন্ট– সুইমিং পুল– কনসার্ট হল– মাল্টিপ্লেক্স– অ্যামিউজমেন্ট পার্ক ইত্যাদি। এরই ধারাবাহিকতায় সৌদি প্রিন্সের সর্বশেষ সংযোজন হল ‘হালাল নাইটক্লাব’।
এর ইন্টেরিয়র ডিজাইনের কাজ ইতিমধ্যেই শেষ হয়েছে। প্রতিবেশি েদশ আরব আমিরশাহীর দুবাই শহরে থাকা নাইটক্লাব ‘হোয়াইট’ কোম্পানিই সৌদিতে প্রথম এ ধরনের ক্লাব চালু করছে। অর্থাৎ জেদ্দাহয় যেটা চালু হচ্ছে সেটা তাদেরই শাখা। খাওয়া-দাওয়ার আয়োজনের পাশাপাশি বিশ্বের নামজাদা মিউজিক গ্র&প বা ব্যান্ডের নাচগান পরিবেশন করা হবে। থাকবে ওয়াটারফ্রন্ট ও ডান্সফ্লোর। নারী-পুরুষ নির্বিশেষে যে কেউ তাদের সঙ্গী বা পছন্দের মানুষকে নিয়ে সেখানে গিয়ে অবাধে নাচগান– হইহুল্লোড় বা আনন্দস্ফূর্তি করতে পারবেন। বিবাহ ও জন্মদিন পালনে পার্টিও দেওয়া যাবে। তবে এই ক্লাবে মদ পাওয়া যাবে না বলেই জানিয়েছেন হোয়াইট গ্র&পের কর্মকর্তারা। 

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only