শনিবার, ১ জুন, ২০১৯

৫ বছর ধরে আধুনিক বোরকা তৈরি করে নজর কাড়ছে কলকাতার 'মডেস্টি'

আবদুল ওদুদ 

হাল ফ্যাশানের বাইরে একটু ভিন্ন ধরনের কাজের ঝোঁক ছিল বরাবর। আর সেই কাজে সফল হাওড়ার ধূলাগড়ের যুবক সেখ মশিউর রহমান। মধ্যবিত্ত পরিবারে বড় হওয়া। পড়াশুনার পাশাপাশি নেশা ছিল ফ্যাশন ডিজাইনিং। আর অনেকটা নেশার বশেই এনআইএইটি থেকে ফ্যাশন ডিজাইনিং-এর উপর কোর্স সম্পন্ন করেন। কোর্স শেষ হওয়ার পর ২ বছর নামী ব্যান্ডের ডিজাইনারের সহযোগী হিসাবে কাজ করেন তিনি। কিন্তু মনের প্রবল ইচ্ছাশক্তিকে হাতিয়ার করে নিজেই তৈরি করেন ‘মডেস্টি’ নামে এক কোম্পানী। পশ্চিমবাংলার বাইরেও যার চাহিদা তুঙ্গে। কলকাতায় তৈরি করেছেন দুটি আউটলেট আর মুম্বইতে একটি। কলকাতার পার্ক সার্কাসের নাসিরুদ্দিন রোড এবং ইলিয়ট রোডে রয়েছে। অন্য ধরনের পোশাক বাদ দিয়ে কেন বোরকা এবং হিজাবকে েবছে নিলেন?
এ প্রসঙ্গে মডেস্টির কর্ণধার সেখ মশিউর রহমান বলেন, ফ্যাশন ডিজাইনিং-র সঙ্গে যুক্ত থাকার ফলে মার্কেট রিসার্চ করে একটি বিষয় সামনে আসে– ছেলে মেয়েদের পোশাকের নানা ধরনের ডিজাইনিং প্রচুর সুযোগ। সকল ফ্যাশন ডিজাইনার একই ধরনের পোশাক তৈরিতে ব্যস্ত। যে জায়গা থেকে একটু ভিন্ন ধরনের পোশাক তৈরির উপর জোর দিতে শুরু করি। সিদ্ধান্ত নিই আধুনিক বোরকা এবং হিজাব তৈরির উপর কাজ করব। আর সেই ভাবনা থেকে আধুনিক বোরকা তৈরি শুরু করি।
এই ধরনের বোরকায় যেমন মেয়েরা যেমন পর্দানশীন থাকবেন– তেমনি আধুনিক জগতের সঙ্গে তাল মিলিয়ে নিজেদের পছন্দও বজায় থাকবে। আর এই আধুনিক বোরকা ও হিজাব তৈরিতে গোটা কলকাতা জুড়ে ব্যাপক সাফল্যও মিলেছে বলে মশিউর রহমান জানান। গত ৫ বছর করে কলকাতায় মেয়েদের পছন্দ মডেস্টির বোরকা। ৫ থেকে ৬ ধরনের বোরকা তৈরি করছে তাদের সংস্থা। অফিস– বিভিন্ন ধরনের অনুষ্ঠানে যোগদানের জন্যও আধুনিক বোরকা তৈরি করেছে এই কোম্পানীটি। একদম সাধারণ গৃহস্থ পরিবার থেকে শুরু করে সভ্রান্ত পরিবারের জন্য তৈরি করা উন্নতমানের কাপড় দিয়ে তৈরি বোরকা। মেয়েরা বোরকা পরিধান করে যাতে স্বছন্দ্য বোধ করেন– সে দিকে লক্ষ রেখে– চীন– কোরিয়া– ইন্দোনেশিয়া থেকে কাপড় আমদানী করা হয়েছে। গত ৫ বছর যাবৎ কলকাতায় তারা ব্যবসা করছেন– মহিলাদের মধ্যেও আগ্রহও বেড়েছে এই বোরকার উপর। কোম্পানীর নাম মডেস্টি কেন রাখলেন– এ প্রসঙ্গে মসিউর রহমান বলেন– মডেস্টির বাংলা অর্থ- সভ্য বা বিনয়। বোরকা এমনই এক পোশাক যা সভ্য এবং বিনয়ী।
আগামী দিনে মডেস্টির উদ্যোগ প্রসঙ্গে তিনি বলেন– বর্তমানে ৩০-৪০ জন পোশাক শিল্পী তাদের কারখানায় কাজ করে চলেছেন। মুসলিম মহিলারা যারা বোরকা পরতে অভ্যস্ত নয়– তারাও যাতে এই বোরকার প্রতি আগ্রহী হোন সেই উদ্দেশ্য সফল করা।  

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only