বুধবার, ২৬ জুন, ২০১৯

সব সম্প্রদায়ের মানুষকে যোগা শেখান এই মুসলিম শিক্ষক

তাঁর নাম আচার্য রফিক খান। তিনি একজন যোগা শিক্ষক। মুসলিম হয়েও তিনি সব সম্প্রদায়ের মানুষকে যোগা শেখান। মানুষকে স্বাস্থ্য সচেতন করে তোলার পাশাপাশি তাঁর উদ্দেশ্য সমাজে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির বার্তা দেওয়া।আর এই কাজের জন্য এখন ওড়িশাতে তাঁর  বেশ পরিচিতি।
তাঁর থেকে যোগা শেখেন স্কুল ছাত্র থেকে কলেজ ছাত্র, চাকরিরত কিংবা প্রবীণ নাগরিক, হিন্দু হোক কিংবা মুসলিমরা। বছর ৩৯-এর আচার্য রফিক খান, জাতি-ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে সকলের জন্য যোগার মাহাত্ম্য হাতেহাতে প্রচার করতে চান। হেমগিরি ব্লকের সুন্দরগড়ে যোগগুরু হিসাবে তাঁর বেশ পরিচিতি আছে। এমনকী আদিবাসী অধ্যুষিত এলাকাতেও যোগা শেখান আচার্য রফিক খান।
প্রতিদিন বিভিন্ন গ্রামে অন্ততপক্ষে ২ঘণ্টা যোগা শেখান তিনি। একজন যোগা উপদেষ্টা হিসাবে যেতে হয় বিভিন্ন স্কুল ও কলেজেও।  তাঁর থেকে অনুপ্রানিত হয়ে এখন বহু মুসলিম যোগাভ্যাস শুরু করেছে। আচার্য রফিক খান বলেন, ‘একজন মুসলিম অথচ যোগা শিক্ষক! মানুষ এটা ভাবতেই পারেনি। বিভিন্ন অসুবিধায় পড়তে হয়েছিল। কিন্তু সেগুলো জীবনে প্রভাব ফেলতে দিইনি। কারণ আমি জানি শরীর স্বাস্থ্যের জন্য যোগা কতটা জরুরি।’
সমস্যাটা ততটা জটিল মনে হয়নি কারণ তাঁর এই কাজে তিনি পেয়েছেন পরিবারের সমর্থন । এ প্রসঙ্গে আচার্য রফিক খান বলেন, যোগার উপকারিতা দেখে আমার আত্মীয়রা  সকলেই যোগাভ্যাস করতে শুরু করে। তাঁর এই বহুল প্রচারের পেছনে হাত রয়েছে সোশ্যাল মিডিয়ারও। কারণ বিভিন্ন সোশ্যাল মিডিয়াতে প্রচার করা হয়, যোগা শরীরের জন্য কতটা উপকারী।
আচার্য রফিক খানের বর্তমানে উদ্দেশ্য কী?  তাঁর উদ্দেশ্য, জাতি ধর্ম নির্বিশেষে যোগা প্রত্যেক ঘরে প্রচার করার। মানুষকে বোঝানো, যোগা কোনও ধর্ম নয়। শারীরিক ও বৌদ্ধিক বিকাশের জন্য যোগার জুড়ি মেলা ভার। 

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only