মঙ্গলবার, ২৫ জুন, ২০১৯

‘ইভিএম নয়, ব্যালট চাই’, সংসদের বাইরে প্রতিবাদ তৃণমূল সাংসদদের

ইভিএমের বদলে েফরানো হোক ব্যালট। এই দাবিতে সোমবার সকালে গান্ধিমূর্তির পাদদেশে জমায়েত হন তৃণমূল সাংসদরা। এই সাংসদদের বুকে ঝোলানো পোস্টারে লেখা ছিল ইভিএম নয় আমরা ব্যালট চাই। নেতৃত্বে ছিলেন তৃণমূল সাংসদ ডেরেক ও’ব্রায়েন। হাজির ছিলেন লোকসভা ও রাজ্যসভার সাংসদরা। লোকসভায় তৃণমূলের চিপ হুইপ কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন– ইভিএম হ্যাকিং বন্ধ করতে ব্যালট আনা হোক। তাঁর সঙ্গে সুর মেলান সব সাংসদ। বিক্ষোভ প্রদর্শনে হাজির ছিলেন– েলাকসভার সাংসদ সৌগত রায়– মালা রায়– প্রসুন বন্দ্যোপাধ্যায়– সুদীপ বন্দ্যোপাধ্যায়– কাকলি ঘোষ দস্তিদার– রাজ্যসভার সাংসদ আহমদ হাসান ইমরান– নাদিমুল হক– দোলা সেন সহ অন্য সাংসদরা।
ভোটের ফল প্রকাশ আগেই তৃণমূল সহ বিরোধী ২৩ টি দল ইভিএমের বদলে ব্যালট ফেরানোর কথা বলেছিল। সুপ্রিম কোর্টের দ্বারস্থও হয়েছিল দলগুলি। সুপ্রিম েকার্ট তাদের বলেছিল কমিশনে যেতে। তারা কমিশনেও দ্বারস্থ হয়েছিল। কিন্তু বিষয়টিকে তেমন আমল দেয়নি কমিশন।  ভোটের ফল প্রকাশের পর তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় স্পষ্ট বলেন ইভিএমে কারচুপি হয়েছে। তিনি বলেন– নির্বাচন চলাকালীন বহু েমশিন খারাপ হয়ে যায়। সেই মেশিনগুলি বদলে দেওয়া হয়। মমতার অভিযোগ বদলানো মেশিনেই ছিল কারচুপি। তাঁর অভিযোগ ছিল ৩০ শতাংশ মেশিন ভোট চলাকালিন খারাপ হয়েছে। সেখানেই গ্যাঁরাকল ছিল বলে অভিযোগ করেন বাংলার মুখ্যমন্ত্রী।
কেবল গান্ধিমূর্তীর পাদদেশে বিক্ষোভ প্রদর্শন করেই ক্ষান্ত হবে না তৃণমূল। স্পষ্ট করে কল্যাণ। তিনি বলেন– রাজ্যজুড়ে এ বিষয়ে প্রচার চালানো হবে। জুন মাসের গোড়াতেই ইভিএম বিরোধী প্রচারের কথা ঘোষণা করেছিলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তিনি বলেছেলিনে লোকসভা নির্বাচনে ব্যাবহার হওয়া মেশিনগুলির মধ্যে মাত্র ২ শতাংশ মেশিন পরীক্ষা করেছিল নির্বাচন কমিশন। বাকি ৯৮ শতাংশ মেশিন না  বিনা পরীক্ষাতেই ব্যবহ*ত হয়েছিল। সমস্যাটা সেখানেই হয়েছে। অভিযোগ যে অমুলক নয়– ইতিমধ্যেি তার কিছু প্রমাণও মিলেছে। কতজন ভোট দিয়েছেন সে তথ্য স্পষ্ট জানিয়েছিল নির্বাচন কমিশন। শতাংশের বিচারে তাদের দেওয়া হিসাবের সঙ্গে বহু জায়গায় মেশিনের হিসাব েমলেনি। দেখা গিয়েছে ২৮ থেকে ৩০ হাজার ভোট বাড়তি। সঙ্গত কারণেই প্রশ্ন উঠছে এই ভুতুরে ভোটার কারা। তাদের ভোটি কোথায় পড়েছে। যদিও এই নিয়ে যতটা আলোড়ন তোলা উচিত মিডিয়া তেমনটা করেনি। কোনও অজ্ঞাত কারণেই মিডিয়ায় এত বড় বিষয় এসেই উবে গেল তা নিয়েও প্রশ্ন রয়ে গিয়েছে। কেবল তৃণমূল কংগ্রেস নয় বিরোধী বহুদলই ইভিএমের বদল করে ব্যালট আনতে চাইছে। সকলের দাবি– উন্নত দেশগুলিতে ব্যালটে ভোট হয়। তারা চাইলে ইভিএমে ভোট করতে পারত। যারা ইভিএমে ভোট চালু করেছিল সেসব বহু দেশ পরে ব্যালটে ফিরে আসে। যদি কেন্দ্রীয় বাহিনিথে ভোট হয় তাহলে ব্যাল ভোট নিতে অসুবিধায় বা কোথায়। সঙ্গতভাবে সে প্রশ্ন উঠছে।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only