বৃহস্পতিবার, ২৫ জুলাই, ২০১৯

মুসলিম বিদ্বেষী বরিস জনসনের পূর্বপুরুষ ছিলেন মুসলিম !


টেরেসা মে-র উত্তরসূরী হিসাবে এবার ব্রিটেনের প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব সামলাবেন কট্টর মুসলিম বিদ্বেষী বরিস জনসন। কেউ কেউ তাঁকে ইতিমধ্যে 'ব্রিটেনের ট্রাম্প' হিসাবে ব্যাখ্যাও করেছেন। খামখেয়ালি, রগচটা, মুসলিমবিদ্বেষী হিসাবে পরিচিত বরিসের গায়েও বইছে একজন মুসলিমের রক্ত।

মজার বিষয় হল বরিসের প্রপিতামহ অর্থাৎ বাবার দাদা ছিলেন একজন তুর্কি মুসলিম। তাঁর নাম আলী কামাল। তিনিও তুরস্কে স্বনামধন্য সাংবাদিক, লেখক ও রাজনীতিবিদ্ ছিলেন। অর্থাৎ বরিস নিজেকে পুরোপুরি ব্রিটিশ বললেও তিনি কিন্তু আধা তুর্কি।

তুরস্কের ওসমানি খেলাফতের সঙ্গে তাঁর এই বংশধর অঙ্গাঅঙ্গীক ভাবে জড়িত ছিলেন। জানা গিয়েছে, বরিসের প্রপিতামহ আলী কামাল ওসমানি খিলাফতের দামাত ফেরিত পাশা সরকারের একজন মন্ত্রী ছিলেন। এই যুগে তিনি তিন মাস স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করেন। এছাড়া একাধারে তিনি কবি ও লেখক হিসাবে বিখ্যাত হয়ে ছিলেন। ১৯২২ সালে তুরস্কের রাজনৈতিক সংকটের সময় আলী কামাল গণপিটুনিতে নিহত হন। এরপর বছরই ক্ষমতায় আসেন মোস্তফা কামাল পাশা। যিনি তুরস্কের জাতির জনক হিসাবে পরিচিত।

আলী কামাল
রাজনীতিক, লেখক, কবি হলেও আলী কামাল সাংবাদিকতাও করে ছিলেন। এই সূত্রে, তিনি একাধিক দেশে ঘুরে বেড়িয়ে ছিলেন। সুইৎজারল্যান্ডে ঘুরতে গিয়ে তাঁর সঙ্গে অ্যাঙ্গেলা-সুইস মহিলা উইনিফ্রেড ব্রানের সঙ্গে তাঁর দেখা হয়। পরবর্তীতে ১৯০৩সালে তাঁরা বিয়ে করেন।তাদের দুই সন্তান হয়। দ্বিতীয় সন্তানকে জন্ম দিতে গিয়ে উইনিফ্রেডের মৃত্যু হয়ে ছিল। দুই সন্তান সালমা ও ওসমান তাঁদের নানি মার্গারেট জনসনের কাছে ইংল্যান্ডেই মানুষ হতে থাকে। এদিকে তুরস্কের এক প্রভাবশালী রাজনীতিবিদের মেয়ে সাবিয়া হানিমকে বিয়ে করে ছিলেন আলী কামাল । সাবিয়া ও কামালের সন্তান জেকি কুনেরালপ ছিলেন সুইৎজারল্যান্ড, ব্রিটেন এবং স্পেনে নিযুক্ত তুরস্কের রাষ্ট্রদূত।

আলী কামাল এবং তাঁর প্রথম স্ত্রী উইনিফ্রেড ব্রান
পরবর্তীতে আলী কামালের প্রথম পক্ষের দুই সন্তান সালমা ও ওসমান তাদের পদবি বদলে নানি মার্গারেটের 'জনসন' পদবিটি গ্রহণ করেন। ওসমানই নাম বদলে হন উইফ্রেন জনসন। তিনিই বরিসের দাদা। কেন্টের বাসিন্দা আইরিন উইলিয়ামসকে বিয়ে করেছিলেন উইফ্রেন।তাঁদের সন্তান হলেন বরিসের বাবা স্ট্যানলি জনসন। অর্থাৎ এর থেকে বোঝা যাচ্ছে বরিস হলেন আধা তুর্কি মুসলিম।

এদিকে বরিসের মা শার্লট ফসেট ছিলেন একজন চিত্রশিল্পী। ১৯৬৩ সালে তাঁর সঙ্গে স্ট্যানলি জনসনের বিয়ে হয়। এরপর দুজন আমেরিকায় পাড়ি দেন।১৯৬৪ সালে আমেরিকায় জন্মগ্রহণ করেন বরিস। লন্ডনে ফিরে আসার পর মাত্র ১৬ বছর বয়সে তিনি ব্রিটেনে স্থায়ী নাগরিকত্ব পান। তিনি ইটন কলেজে পড়াশোনা করেন। অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ে থেকে জনসন উচ্চশিক্ষা গ্রহণ করেন। তাঁর বাবা স্ট্যানলি জনসনও ছিলেন রাজনীতিবিদ্।ইউরোপীয় পার্লামেন্টে কনজারভেটিভ মেম্বার হিসাবে ৫ বছর দায়্ত্বি পালন করেন।  

রাজনীতি আসার শুরু থেকেই বোরকা নিয়ে বিতর্কিত মন্তব্য করে গিয়েছেন বরিস। বোরকা ও নেকাব পরিহিতা মুসলিম মহিলাদের তিনি পোস্ট বক্স ও ব্যাংকের ডাকাতদের সঙ্গে তুলনা করেন। বেশ কয়েকদিন আগে নিজের পূর্বপুরুশদের সূত্র জানতে তিনি তুরস্কে গিয়ে ছিলেন।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only