রবিবার, ১৪ জুলাই, ২০১৯

ফলের গাছ লাগানোর নামে টাকা আত্মসাতের অভিযোগ পঞ্চায়েতের বিরুদ্ধে

দেবশ্রী মজুমদার, রামপুরহাট, ১৪ জুলাই ঃ বিকল্প রুজির ব্যবস্থা প্রকল্পে গাছ লাগানো হয়েছে। তবে তা কাগজ কলমে। এমন অভিযোগ তুলেছেন এলাকার সাধারণ মানুষ।  তাঁদের দাবি, বাস্তবের জমিতে গছিয়ে উঠেছে ঘাস এবং আগাছা। অভিযোগ ফলের গাছ লাগানোর নামে বেশ কয়েক লক্ষ টাকা আত্মসাৎ করেছে খরুন গ্রাম পঞ্চায়েত। যদিও প্রধানের দাবি গাছ লাগানো হবে। বিডিও দ্বীপান্বিতা বর্মন জানান,  তিন পর্যায়ে গাছ লাগানো হবে।
বীরভূমের রামপুরহাট ১ নম্বর ব্লকের খরুন গ্রাম পঞ্চায়েতে গাছে জল দেওয়ার জন্য দাঁড়িয়ে রয়েছে দুটি জলের ট্যাঙ্ক ও সোলার। সৌর বিদ্যুতের মাধ্যমে জল তুলে গাছে দেওয়া কথা। কিন্তু পুরো জায়গা আগাছায় ভরে গিয়েছে। কাজ করে না সৌর বিদ্যুতের সোলার আলো। জায়গার একটি অংশের মালিক অষ্টম মণ্ডলের অভিযোগ তাকে না জানিয়েই পঞ্চায়েত তার জায়গাতে গাছ লাগাতে শুরু করেছিল। তিনি বলেন, “যে জায়গায় ফলের গাছ লাগানো হয়েছে বলে পঞ্চায়েত দাবি করছে সেই জায়গার অর্ধেক অংশের মালিক আমরা। আমাদের না জানিয়েই পঞ্চায়েত কাজ শুরু করেছিল। পরে বিডিও অফিসে অভিযোগ করার পর আমাকে জানায় পঞ্চায়েত। কিন্তু কাজের কাজ কিছু হয়নি। আগাছায় ঢেকে গিয়েছে জায়গা”। একই দাবি বিরোধীদের।  পঞ্চায়েত প্রধান নমিতা দাস জানান, গাছ লাগানোর কাজ শেষ হয় হয়নি। পরিবেশ বাঁচানোর আন্দোলন সর্বত্র। সেখানে গাছ লাগানো নিয়ে এমন দুর্নীতির বিরুদ্ধে সরব সব স্তর।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only