শনিবার, ২০ জুলাই, ২০১৯

ডেঙ্গু মোকাবিলায় মেয়র ফিরহাদ হাকিমের উচ্চপদস্থ বৈঠক


শাহজাহান পুরোকাইত, কলকাতাঃ বর্ষায় শহরে ডেঙ্গু পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে পুরসভার চিহ্নিত ডেঙ্গুপ্রবন ২২ টি ওয়ার্ডের দীর্ঘদিন সাফাই না হওয়া জমি,পুকুর, পরিত্যক্ত জমি বা বাড়ির জঞ্জাল কলকাতা পুরসভা যুদ্ধকালীন ভিত্তিতে সাফাই করবে। পুরভবনে ডেঙ্গু নিয়ে মেয়র ফিরহাদ হাকিমের পৌরহিত্যে এক উচ্চপর্যায়ের বৈঠক হয়। বৈঠকে রাজ্যের স্বাস্থ্য সচিব, অতিরিক্ত স্বাস্থ্য সচিব,স্বাস্থ্য দপ্তরের পদস্থ আধিকারিক, ডেপুটি মেয়র অতীন ঘোষ সহ পুরসভার চিহ্নিত করা ডেঙ্গুপ্রবন ওয়ার্ডগুলির কাউন্সিলর ,সংস্লিষ্ট বোরো চেয়ারম্যান ও পুরসভার শীর্ষ আধিকারিকরা উপস্থিত ছিলেন। বৈঠকের পর ডেপুটি মেয়র অতীন ঘোষ সাংবাদিকদের বলেন,জঞ্জাল সাফাইয়ের জন্য  পুরসভার পরিবেশ ও জঞ্জাল অপসারণ বিভাগকে বিশেষ দল গঠন করতে বলা হয়েছে। প্রয়োজনে বেসরকারি কোন সংস্থাকে নিযুক্ত করেও সাফাই কাজ করা হবে। পুরসভার নতুন আইন ৪৯৬ এ কে কঠোরভাবে প্রয়োগ করা হবে। অতীনবাবু বলেন, স্পেশাল কমিশনার তাপস চৌধুরীকে মাথায় রেখে একটি কমিটি গঠন করা হয়েছে। ডেঙ্গু নিয়ন্ত্রণে কাউন্সিলররা কোনরকম সমস্যার সম্মুখীন হলে ওই কমিটি পুরসভার স্বাস্থ্যবিভাগের সঙ্গে আলোচনা করে সমস্যার সমাধান করবে। এর পাশাপাশি তাদের এলাকায় সাধারণ মানুষকে সচেতন করতে কাউন্সিলরদের আরো সক্রিয় হওয়ার জন্য মেয়র নির্দেশ দিয়েছেন বলে ডেপুটি মেয়র জানান। অতীনবাবু বলেন, ডেঙ্গু মোকাবিলায় রাজ্যের স্বাস্থ্য দপ্তরের তরফে পুরসভাকে প্রয়োজনীয় আর্থিক সাহায্যের আশ্বাস দেওয়া হয়েছে । স্বাস্থ্য দপ্তরের তরফে শহরের কয়েকটি হাসপাতাল চিহ্নিত করে ডেঙ্গু আক্রান্ত রোগীদের জন্য শয্যা সংরক্ষণ করে রাখা হয়েছে। এছাড়া বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার নির্দেশিকা অনুযায়ী ডেঙ্গুর চিকিৎসা হচ্ছে কিনা তা খতিয়ে দেখতে স্বাস্থ্যদপ্তর বিশেষজ্ঞদের নিয়ে ১০টি দল  গঠন করেছে। এরা শহরের সরকারি ও বেসরকারি হাসপাতালগুলি নিয়মিত পরিদর্শন করবেন। শহরে এই বছরে এখনো পর্যন্ত ১৩২ জন ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়েছেন বলে অতীনবাবু জানান। যা গতবারের তুলনায় অনেকটাই কম বলে তিনি দাবি করেন।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only