বৃহস্পতিবার, ১১ জুলাই, ২০১৯

ফেরিঘাট ভেঙে পশ্চিম বর্ধমানের সাথে বিচ্ছিন্ন বীরভূম



দেবশ্রী মজুমদার, ইলামবাজার, ১১জুলাই:  বর্ষণে নদীতে জল বাড়ায় ভাঙল জয়দেবের অস্থায়ী ফেরিঘাট। আর তার জেরে বিচ্ছিন্ন দুই জেলার বেশ কয়েকটি গ্রাম। সূত্রের খবর, হিংলো  ড্যাম্প থেকে অধিক জল ছাড়ায় জলের তোড়েই ডুবেছে ইলামবাজারের জয়দেবের ফেরিঘাট। অজয় নদ পশ্চিম বর্ধমান ও বীরভূমের বুক চিরে বয়ে চলেছে। জয়দেব কেন্দুলীর কোল ঘেঁষে বয়ে যাওয়া এই নদীর উপর ছিল একটি সেতু। দীর্ঘ দিনের জরাজীর্ণ এই সেতুটির কাজ চলছে মুখ‍্যমন্ত্রীর নির্দেশে। সেই কাজ এখন পঞ্চাশ শতাংশ সম্পূর্ণ। প্রতিবছর নদীর বুকে পাথর দিয়ে বানানো রাস্তার উপর দিয়ে বাস, লরি যাতায়াত করে। এই অস্থায়ী রাস্তা দিয়ে যোগাযোগ ব‍্যবস্থা নির্ভর। কিন্তু বর্ষাকালে এই রাস্তা জলের তোড়ে ভেসে যায়। তখন দুই জেলার সীমান্তবর্তী গ্রামগুলো বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়। তখন চলে ঝুঁকির পারাপার। তবে, জয়দেব কেন্দুলি পঞ্চায়েতের তরফে নদী পারাপারের জন্য একটি নৌকার ব‍্যবস্থা করা হয়। সকালের দিকে সম্ভব না হলেও, বিকেলের দিকে এই ফেরি নৌকা চলাচল করছে বলে জানা গেছে। এলাকাবাসী রেখা বাগদি ও প্রভাত নায়েকরা জানান, প্রতিবছর এই ফেরিঘাট ভেঙে যাওয়ার জেলার দুই প্রান্তের মানুষের সমস্যা বাড়ে। নৌকায় চলে ঝুঁকির পারাপার। বর্ধমান ও বীরভূম প্রায় ৫০টা গ্রামের মানুষের এই ফেরিঘাটই মূল রাস্তা। সেই রাস্তার মধ্যে একাধিক জায়গাতে নেমেছে ধস। তাই প্রাণের ঝুঁকি নিয়েই চলে যাতায়াত বীরভূম এবং বর্ধমানের মানুষজনের। তার জেরে বিপাকে পড়ুয়া থেকে রোগী, সাধারণ যাত্রীরা। এলাকার একাংশের অভিযোগ, দীর্ঘদিন ধরে প্রশাসনের কাছে জানিয়েও কোনো লাভ হয়নি প্রতিবছর বর্ষার সময় তাদের এই দুর্ভোগ পোহাতে হয়। তবে ইলাম বাজার ব্লকের বিডিও দেবদুলাল বিশ্বাস জানান, দুই জেলার সংযোগ রক্ষাকারী একটি সেতুর নির্মাণকাজ চলছে। এই অস্থায়ী ফেরিঘাট বর্ষায় ভেঙে গেছে। পারাপারের জন্য নৌকার ব‍্যবস্থা করা হয়েছে। জল নেমে গেলে টেন্ডার ডেকে ফের ওই রাস্তা তৈরি করা হবে।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only