রবিবার, ২৮ জুলাই, ২০১৯

বিনা অনুমতিতে ছুটিতে যাওয়া নিয়ে নির্দেশিকা বিশ্বভারতীর

দেবশ্রী মজুমদার, শান্তি নিকেতন, ২৭ জুলাই: অধ‍্যাপক, আধিকারিক, শিক্ষকদের  বিশ্বভারতী থেকে ছুটিতে যাওয়া নিয়ে কড়াকড়ি বিশ্বভারতীর। এব‍্যাপারে বিশ্ববিদ্যালয়ের অস্থায়ী কর্মসচিব সৌগত চট্টোপাধ্যায় এক নির্দেশিকায় জানান, স্কুল শিক্ষা বিভাগ সহ সমস্ত ভবনের অধ‍্যক্ষ, আধিকারিকদের উপাচার্যের কাছ থেকে 'স্টেশন লিভে'র আগে অনুমতি নিতে হবে। একইভাবে, বিভিন্ন বিভাগের ক্ষেত্রেও একই ভাবে উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছ থেকে অনুমতি নিতে হবে।
কেন এমন নির্দেশিকা? সূত্রের খবর, বিশ্বভারতীতে এমনিতে বুধ ও বৃহস্পতিবার সাপ্তাহিক ছুটির দিন। মঙ্গল বার ক্লাস নিয়ে  দুপুরের দিকে তাড়াতাড়ি শান্তি নিকেতন এক্সপ্রেস ধরে কেউ কেউ বাড়ি চলে যাচ্ছিলেন। ফের শুক্রবার এসে ক্লাসে যোগদান করছিলেন তাঁরা। যদিও এই দু'দিন ছুটি। ক্লাস বন্ধ। কিন্তু স্কুল ছুটের মত  'আশ্রম ছুট' ব‍্যাপারটা আঁটকাতে এই নির্দেশিকা কিনা তা বিজ্ঞপ্তির কোথাও লেখা নেই। তবে বিষয়টি যে বেশ অস্বস্তিকর, তা অধ‍্যাপক সভার সম্পাদক গৌতম সাহার বক্তব্যে পরিষ্কার। তিনি বলেন, এটা সার্কুলার জারি না করে, মুখে বললেই ভালো হত। তাহলে শিক্ষকদের ছোট হতে হত না।
আরেকটি সূত্র থেকে জানা গেছে, গত বছর  ন‍্যাকের র‍্যাঙ্কে বি প্লাস পেয়েছে বিশ্বভারতী। আর সেটা মোটেই সম্মানজনক নয় বিশ্বভারতীর মত ঐতিহ্য মণ্ডিত প্রতিষ্ঠানের সুনামের পক্ষে। তাই হৃত গৌরব উদ্ধার করতে এই কড়া দাওয়ায়। এছাড়াও, অন‍্যতম কারণ হিসেবে দেখা গেছে, বিশ্ববিদ্যালয়ে বুধবার ও বৃহস্পতিবার পঠন পাঠন বন্ধ থাকে। কিন্তু ইউজিসি খোলা থাকায় ওই দুদিনের মধ্যে বিশ্ববিদ্যালয়ের যে কোন বিষয়ে চিঠি আসতে পারে। জরুরী ভিত্তিতে কাউকে প্রয়োজন হলে, সমস্যা একটা হতে পারে। সেক্ষেত্রে, লিখিত অনুমতি নিয়ে গেলে কোন জটিলতা থাকে না। পাশাপাশি, ন‍্যাকের কাছে র‍্যাঙ্ক পয়েন্ট বাড়ানোর জন্য আরও কিছু কার্যকরী পদক্ষেপের আশায় বিশ্ববিদ্যালয়। এব‍্যাপারে বিশ্ববিদ্যালয়ের জনসংযোগ আধিকারিক অনির্বাণ সেনকে বার বার ফোন করেও কোন প্রতিক্রিয়া পাওয়া যায়নি।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only