রবিবার, ১১ আগস্ট, ২০১৯

নাবালিকা ছাত্রীর শ্লীলতাহানির অভিযোগে গ্রেফতার শিক্ষক

কৌশিক সালুই, ১১ আগস্ট, বীরভূম:- এক স্কুলছাত্রীর শ্লীলতাহানির ঘটনায় চাঞ্চল্য এলাকায়। ঘটনায় অভিযুক্ত শিক্ষককে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। ঘটনাটি ঘটেছে রবিবার বীরভূমের সিউড়ি শহরে। যদিও অভিযুক্ত শিক্ষক এবং তার পরিবার বিষয়টি অস্বীকার করে দাবি করেছেন তাদেরকে মিথ্যা ফাঁসানো হয়েছে।
     পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে অভিযুক্ত শিক্ষক হলেন জয় মিত্র। বাড়ি সিউড়ি শহরে কল্পতরু পল্লী এলাকা। তিনি মহম্মদ বাজার এলাকার একটি উচ্চ মাধ্যমিক স্কুলে শিক্ষকতা করেন। তার বিরুদ্ধে অভিযোগ নবম শ্রেণির এক ছাত্রীকে বাড়িতে পড়ানোর নাম করে ডেকে একলা পেয়ে শ্লীলতাহানি করে। ওই স্কুল ছাত্রীর মা সিউড়ি থানায় অভিযুক্ত শিক্ষকের বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করেন। অভিযোগের ভিত্তিতে পুলিশ তাকে গ্রেফতার করে। অভিযুক্ত শিক্ষক জয় মিত্র তার বাড়িতে ইংরেজি টিউশন পড়ান। অভিযোগ রবিবার সকালে টিউশনির ব্যাচ না থাকলেও ওই ছাত্রীকে একাই ডাকে অভিযুক্ত শিক্ষক। ঘর দেখানোর নাম করে দোতালায় নিয়ে গিয়ে তার শ্লীলতাহানি করে। ইতিমধ্যেই ঘটনা বিষয় ওই ছাত্রী ফোন করে তার পরিবারকে ওই শিক্ষকের বাড়িতে ডাকে এবং বিষয়টি জানায়। ওই শিক্ষকের স্ত্রী পূর্ণিমা মিত্র বলেন," সম্পূর্ণ মিথ্যা অভিযোগ। দোতলায়  যে  রুমে শ্লীলতাহানি করা হয়েছে বলে দাবি করা হচ্ছে সেখানে আমার বোন ঘুমাচ্ছিল। অন্যান্য পড়ুয়াদের আসার কথা থাকলেও কেউ আসেনি। ওই ছাত্রীটি একমাত্র এসেছিল। আমি তাকে বাড়ি চলে যেতে বলি। ১০ মিনিটের জন্য বাজারে গিয়েছিলাম। বাড়ি ফিরে দেখি ছাত্রীর মা আমার স্বামীকে মারধর করছে। চক্রান্ত করে ফাঁসানো হয়েছে"। স্কুল ছাত্রীর মা অভিযোগে জানিয়েছেন, ওই শিক্ষক ইচ্ছা করেই মেয়েকে একাই ফোন করে ডেকে ছিল পড়ানোর অছিলায়। দোতালায় নিয়ে গিয়ে মেয়ের শ্লীলতাহানি করে। কোন ভাবে শিক্ষকের কাছ থেকে চলে এসে  ফোন করে বিষয়টি জানায়। অভিযুক্ত শিক্ষকের বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের হয়েছে। সিউড়ি থানার আইসি দেবাশীষ পান্ডা বলেন," অভিযোগের ভিত্তিতে ওই শিক্ষক গ্রেফতার করা হয়েছে। নাবালিকা স্কুলছাত্রী মেডিকেল করা হয়েছে। সোমবার অভিযুক্তকে আদালতে হাজির করানো হবে।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only