শনিবার, ১৭ আগস্ট, ২০১৯

জলদুর্ভোগের জন্য শহরবাসীর কাছে ক্ষমা চাইলেন মেয়র ফিরহাদ



চিন্ময় ভট্টাচার্য 

নাগাড়ে বৃষ্টিতে শহরের নানা প্রান্তে জল জমে বিপর্যস্ত কলকাতার জনজীবন। খুব বেশিদিন তিনি এই শহরের মেয়রের দায়িত্ব পাননি। কিন্তু, তার পরও প্রকৃত নেতা এবং মহানাগরিকের মতোই জলসমস্যায় নাকাল হওয়ায় শহরবাসীর কাছে করজোড়ে ক্ষমা চেয়ে নিলেন ফিরহাদ হাকিম। প্রতিশ্রুতি দিলেন, কিছু নিচু এলাকা ছাড়া, শহরের বেশিরভাগ জায়গা থেকেই যাতে আজ বিকেলের মধ্যে জল বেরিয়ে যায়, তিনি এবং তাঁর পুরপারিষদ থেকে কর্মীরা, সেই চেষ্টা করবেন। ফিরহাদ বলেন, 'প্রতিশ্রুতি দিচ্ছি যে কলকাতাকে মুম্বই হতে দেব না। খিদিরপুর এবং বেহালা-সহ একাধিক জায়গা নিচু এলাকা। সেখানে পাম্পিং স্টেশনের দরকার রয়েছে। কিন্তু, এই মুহূর্তে সেখানে পাম্পিং স্টেশন করার মতো অর্থ আমার হাতে নেই। তার পরও আস্তে আস্তে টাকা বাঁচিয়ে, পাম্পিং স্টেশনগুলো যাতে  করে দেওয়া যায়, সেই চেষ্টা করছি।'

এর আগে নবান্ন থেকে গতকালই তিনি জানান, অতিবৃষ্টির কারণে শহরের বিভিন্ন এলাকায় জল জমেছে। যদি ফের ভারী বৃষ্টি না-হয়, তবে কাল সকালের মধ্যে শহরের বিভিন্ন এলাকা থেকে জল বের করে দেওয়া সম্ভব হবে। যদিও, শেষ পর্যন্ত তিনি সেই প্রতিশ্রুতি রক্ষা করতে পারেননি। কারণ, রাতভর বৃষ্টি হয়েছে। আজ প্রায় দুপুর পর্যন্ত ভারী বর্ষণে বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে, কলকাতার উত্তর থেকে দক্ষিণ, শহরের বিস্তীর্ণ এলাকার জনজীবন।


এই পরিস্থিতিতে মেয়র পারিষদ তারক সিংকে পুরসভার কন্ট্রোল রুমের দায়িত্ব দিয়ে, নিজেই পাম্পিং স্টেশনগুলোর তদারকি করতে বের হন ফিরহাদ হাকিম। পামারবাজার, মোমিনপুর, বালিগঞ্জ, ধাপা এবং বেহালা পাম্পিং স্টেশন তিনি পরিদর্শন করেন। কারণ, এই পাম্পিং স্টেশনগুলোই শহর থেকে জল নিকাশির ক্ষেত্রে বড় ভূমিকা গ্রহণ করে থাকে। এই সব পাম্পিং স্টেশন পরিদর্শন করে তিনি সেখানকার কর্মীদের দ্রুততার সঙ্গে কাজ করতে উৎসাহিত করেন।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only