বুধবার, ১৪ আগস্ট, ২০১৯

উইঘুর নারীদের জোর করে বন্ধ্যা করছে চিন !



আটক কেন্দ্রগুলিতে উইঘুর ও অন্যান্য মুসলিম বন্দিদের ওপর ক্রমশ বাড়ছে চিনা নির্যাতন। সম্প্রতি জানা গিয়েছে, যে আটক কেন্দ্রগুলিতে উইঘুর মহিলাদের জোর করে নিষিদ্ধ ইঞ্জেকশন প্রয়োগ করে বন্ধ্যা করে দিচ্ছে চিন। সম্প্রতি এই অভিজ্ঞতার মধ্যে দিয়ে যাওয়া কয়েকজন মহিলা একথা দাবি করেছেন। চিন বন্দি শিবির থেকে মুক্তি পাওয়া মহিলা গুলবাহার জলিলভা অভিযোগ করেছেন, এক বছরের বেশি সময় ধরে তাঁকে বন্দিশিবিরে রেখে ছিল চিনা প্রশাসন। সেখানে তাঁকে জোর-জবরদস্তি কিছু ইঞ্জেকশন দেওয়া হত। এর পর,বুঝতে পারেন, এই নিষিদ্ধ ইঞ্জেকশনের প্রভাবে তিনি বন্ধ্যা হয়ে গিয়েছেন।   

৫৪ বছর বয়সী এই মহিলা আরও বলেছেন, 'ওই আটককেন্দ্রে ইঞ্জেকশন দেওয়া সময়, শিবিরের কর্মকর্তা দরজার ছোট একটু অংশ খুলে দিয়ে আমাদের হাত সেখানে আটকে দিত। দিনের পর দিন এই ভাবেই তারা ইঞ্জেকশন দিতে থাকত। বেশি কিছুদিন যাওয়ার পর বুঝতে পারি যে আমাদের মাসিক আর হবে না।'তিনি আরও বলেন, ছোট একটি সেলে ৫০ জনের বেশি মহিলাকে গাদা-গাদি করে রাখা হয় সেখানে। এমন নির্যাতনের জন্য মনে হয়, তারা শুধু মাংসপিণ্ড ছাড়া, আর কিছুই নন।

আরও এক নির্যাতিতা ৩০ বছরের মেহরিগুল তুরসুন জানিয়েছেন, তাঁকে প্রায় এক বছরের বেশি সময় ধরে বন্দিশিবিরে আটকে রাখা হয়ে ছিল। তিনি সদ্য মুক্তি পেয়ে, এখন আমেরিকায় নির্বাসিতের জীবন কাটাচ্ছেন। তিনি বলেছেন, বন্দিশিবিরে তাঁকেও বিভিন্ন ধরণের মাদক ইঞ্জেকশন দেওয়া হয়েছে। এই ইঞ্কেশনের প্রভাবে তিনি প্রায় এক সপ্তাহের বেশি সময় ধরে ক্লান্তবোধ করতেন। স্মৃতিশক্তি হারিয়ে ফেলে ছিলেন ।একই সঙ্গে হতাশাগ্রস্ত বোধ করতেন। সেই সময়, তাঁর বন্ধ্যাকরণ করে দেওয়া হয়ে ছিল। মানসিকভাবে অসুস্থ হয়ে পড়ায় তাকে তড়িঘড়ি মুক্তি দিয়ে দেওয়া হয়। এরপর তিনি আমেরিকায় পালিয়ে আসেন। চিকিৎসকরা জানান, তাকে কোনও একসময় বন্ধ্যা করে দেওয়া হয়েছে।

বিশ্লেষকদের মতে, চিনের সংখ্যালঘু উইঘুর মুসলিম সম্প্রদায়ের প্রায় ২০ লক্ষের বেশি মানুষকে এক সঙ্গে বন্দিশিবিরে আটকে রেখেছে চিন। কয়েক বছর ধরে দেশটিতে মুসলিমদের ওপর নানা অত্যাচার করা হচ্ছে বলে আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংস্থা ও গণমাধ্যমগুলি দাবি করেছে। কিন্তু চিন সে দাবি মানতে নারাজ। তাদের দাবি, শিবিরগুলিতে তারা উইঘুরদের রাষ্ট্রের প্রতি অনুগত রাখার প্রশিক্ষণ দেয়।


একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only