মঙ্গলবার, ২৭ আগস্ট, ২০১৯

কোনও মতেই হিজাব ছাড়ব না: ইলহান

ওয়াশিংটন, ২৭ আগস্ট: আমেরিকার প্রথম এবং একমাত্র হিজাব পরিহিতা সাংসদ ইলহান ওমর সাফ ঘোষণা করলেন, কোনও মতেই হিজাব ছাড়ব না। সোমালীয় বংশোদ্ভুত এই সাংসদকে নিয়ে শুরু থেকেই পেরেশান ট্রাম্প প্রশাসন। কারণ প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের কট্টর বিরোধী ইলহান। একই সঙ্গে ট্রাম্পের সবথেকে ঘনিষ্ঠ মিত্র দেশ ইসরাইলেরও ঘোর বিরোধী। তাই চলতি বছর জানুয়ারিতে মার্কিন কংগ্রেসে প্রবেশ করার পর থেকেই প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প এবং ইসরাইলি প্রধানমন্ত্রী বেঞ্জামিন নেতানিয়াহুর রোষে পড়েছেন ইলহান। যার জেরে অতি সম্প্রতি ইলহানের জেরুসালেম সফর আটকে দেয় ইসরাইল সরকার। সবচেয়ে বড় ঘটনাটি হল, আমেরিকায় প্রথম হিজাব পরে সাংসদ নির্বাচিত হওয়ায় দেশটির ১৮২ বছর সংবিধান সংশোধন করে হিজাবের ওপর থেকে নিষেধাজ্ঞা তুলে নিতে হয় মার্কিন কংগ্রেসকে। এই নৈতিক জয় এবং ইতিহাস রচনার দাবি করে ৩৭ বছর বয়সি ইলহান চলতি বছর ৩ জানুয়ারি পবিত্র কুরআন স্পর্শ করে সাংসদ রূপে শপথ নেন।

সম্প্রতি তাঁর হিজাব পরা নিয়ে নতুন করে প্রশ্ন উঠলে, রবিবার সাংবাদিকদের তিনি বলেন, হিজাব হল ইসলামি পোশাকবিধি। প্রত্যেক মুসলিম সাবালিকার জন্য এই শালীন পোষাক পরিধান করা আবশ্যিক ও বাধ্যতামূলক। তিনি এও বলেন, সারাদিন হিজাব পরে থাকাটা খুব একটা সহজ নয়। ধর্মের প্রতি আন্তরিকতা ও প্রকূত নিষ্ঠা থাকলে তবেই এটা সম্ভব। হিজাব শুধু মুসলিম নারীদের সম্মান-মর্যাদাই রক্ষা করে না, হিজাব হল আত্মরক্ষার ঢাল। তাই কখনও হিজাব ছাড়া সম্ভব নয়। পাশাপাশি  তাঁর প্রশ্ন, আমেরিকা-ইউরোপে অধিকাংশ নারীই খোলামেলা পোশাক বা বিকিনি পরে ঘুরলেও কেউ আপত্তি বা প্রতিবাদ করে না। অথচ শরীর ঢাকা শালীন পোশাক পরলেই যত আপত্তি। আসলে স্বাধীনতা, অধিকার ও ক্ষমতায়নের নাম করে পশ্চিমবিশ্ব নারী সমাজকে নগ্ন করে ভোগের সামগ্রীতে পরিণত করেছে।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only