মঙ্গলবার, ৬ আগস্ট, ২০১৯

সিসিটিভি ক্যামেরার রহস্য উদঘাটন সিউড়ির যুবক খুনের ঘটনায়

কৌশিক সালুই, ৬ আগস্ট, বীরভূম:- বীরভূমের সিউড়ির যুবক খুনের ঘটনায় সিসিটিভি ক্যামেরাতে ধরা পড়লেন খুনিরা। খুন করার পর দেহ লোপাটের ভিডিও দেখা গেল। পুলিশ ওই ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে আগেই তিনজনকে গ্রেপ্তার করে ।

গত শনিবার সকালে সিউড়ি শহরের ৫ নম্বর ওয়ার্ডে সোনাতর পাড়া এলাকায় শামীম শাহ নামে ২২ বছর বয়সী এক যুবকের রক্তাক্ত মৃতদেহ উদ্ধার হয়। তার বাড়ি শহরের তিন নম্বর ওয়ার্ড এলাকা। গত সোমবার ওই এলাকার বাসিন্দা মনসুর আলম নামে এক ব্যক্তির বাড়ির সিসিটিভি ক্যামেরা থেকে মৃতদেহ লোপাটের ভিডিও উদ্ধার হয়। ওই ভিডিওতে দেখা যায় ঘটনার রাত্রে ০১.৪২ নাগাদ একটি ট্রলি ভ্যানে করে শামীম এর মৃতদেহ নিয়ে যাওয়া হচ্ছে। ওই টলি ভ্যানটি চালাচ্ছিলেন লালন সেখ ও পিছন থেকে  ঠেলা দিচ্ছিলেন দিদি বেবী খাতুন ও মা তসলিমা বিবি।  
খুনের ঘটনার পরদিন অর্থাৎ শনিবার শামীমের পরিবারের অভিযোগের ভিত্তিতে সিউড়ি থানার পুলিশ আগেই ওই তিনজনকে গ্রেপ্তার করে। গ্রেফতারের পর ওই এলাকার জনপ্রতিনিধি কাজী ফরজউদ্দিন নিজ উদ্যোগ নিয়ে বিষয়টি তদন্ত শুরু করে। তারপরই মনসুর আলমের বাড়ির সিসিটিভি ক্যামেরা থেকে শামীমের দেহ লোপাটের ভিডিও উদ্ধার হয়। তথ্য প্রমাণের জন্য সেই ভিডিও সিউড়ি থানা পুলিশের হাতে তুলে দেন তারা।

মৃত শেখ শামীম পেশায় রাজমিস্ত্রি। তার পরিবারের দাবি সম্প্রতি সোনাতর পাড়ার বাসিন্দা ঝুমা খাতুনের সঙ্গে বিয়ে ঠিক হয়েছিল।কিন্তু ওই মেয়েটি অন্য যুবকের সঙ্গে পালিয়ে যায়। তারপরেই তার বিধবা দিদি বেবী খাতুন সঙ্গে সম্পর্কে জড়িয়ে পড়ে শামীম। সেই থেকেই ওদের দুজনের মধ্যে বাড়ি যাওয়ার আসা ছিল। তবে বেশিরভাগ সময়ই বেবীদের বাড়িতেই থাকতো। তারপরে কোন বিষয়ে গন্ডগোল হওয়াতেই শামীমকে খুন করে  প্রেমিকা ও তার পরিবার।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only