শনিবার, ৩ আগস্ট, ২০১৯

অনশনে বিশ্বভারতীর উপাচার্য!

দেবশ্রী মজুমদার, শান্তিনিকেতন, ০৩ অগাস্টঃ  ফের অনশনে বসছেন বিশ্বভারতীর উপাচার্য। যদিও, ঘটনার প্রেক্ষিত সম্পূর্ণ ভিন্ন।  বিশ্বভারতীর অলিন্দের দ্বন্দ্ব সামাল দিতে ছাতিম তলায় গীতবিতান নিয়ে অনশনে বসেছিলেন পূর্বতন উপাচার্য রজত কান্ত রায়। বর্তমান উপাচার্য বিদ্যুৎ চক্রবর্তী বসছেন বিশ্বভারতী এলাকার জবর দখল মুক্ত করে সৌন্দার্য্যায়নের লক্ষ্যে। পূর্বতন উপাচার্য রজত কান্তি রায়, সুশান্ত দত্তগুপ্ত, স্বপন কুমার দত্ত একটা বিষয়ে একমত বিশ্বভারতী হোক জবর দখল মুক্ত হোক। তাঁরা নিজের মত করে চেষ্টা করেছিলেন। কিন্তু পুরোপুরি সফল হতে পারেননি বিভিন্ন কারণে। প্রশাসনিক অসহযোগিতার কথাও ধোপে টেকে না। কারন স্বপন কুমার দত্তর সময় জেলাশাসক এই দখল মুক্ত করার ব্যপারে খুব আন্তরিক ছিলেন। কিন্তু সেটাও সফল হতে দেওয়া হয়নি। সেদিক থেকে বর্তমান উপাচার্য যে ঠিক পথেই এগোচ্ছেন তা বলার অপেক্ষা রাখেনা। আশ্রমিকদের একাংশের মত  শান্তিনিকেতন রোডের শুধু মেলার মাঠের কাছে জবর দখল নয়, শ্রীনিকেতন রোডেও একইভাবে জবর দখল আছে। যেগুলোও ওঠানো দরকার।      
সোমবার শান্তিনিকেতন রোডে কবিগুরু হস্তশিল্প মার্কেটে পাশে ১২ ঘন্টা অনশনে বসবেন উপাচার্য সহ আধিকারিক, কর্মী অধ্যাপকরাও। শান্তিনিকেতন রোডের উপর বিশ্বভারতীর আশ্রম এলাকার মধ্যে দীর্ঘ দিন ধরে জায়গা দখল করে গড়ে উঠেছে কবিগুরু হস্তশিল্প মার্কেট। বিশ্বভারতী বিশ্ববিদ্যালয় ঢোকার মুখে পৌষ মেলার মাঠ লাগোয়া রাস্তা পাশে সারি দিয়ে দীর্ঘ ২০ বছর ধরে একটি হস্তশিল্পী ব্যবসায়ী দের দোকান ও মার্কেট গড়ে উঠছে। ওই এলাকা জুড়ে আছে কম বেশী ৭০ টি  দোকান।
গত জুন মাসে বিশ্বভারতী কর্তৃপক্ষ প্রথম লিখিত নোটিশ দেয় ঐ দোকানদারদের। তাতেও কোন কাজ না হওয়ায় মাইকিং করা হয় কতৃপক্ষের তরফে। তারপরেও বিশ্বভারতী সৌন্দর্যায়ন বার্তা দিয়ে মৌন মিছিল করা হয় যাতে জবরদখলকারীরা তাদের জায়গা ছেড়ে দেয়। কিন্ত উপাচার্য একবারের জন্য দখলদার দের বল প্রয়োগ করে উচ্ছেদ এর কথা ভাবেননি।  কর্তৃপক্ষের তরফে এই মার্কেটের ব্যবসায়ীদের অন্যত্র পুনর্বাসন দেওয়ার প্রস্তাবও দেওয়া হয়েছে তাতেও সায় মেলেনি ব্যবসায়ীদের। তাই বাধ্য হয়ে অহিংস আন্দোলনের পথে বিশ্বভারতী।
সোমবার সকাল ৮টা থেকে সন্ধ্যা ৮টা পর্যন্ত  ১২ ঘন্টা অনশনে বসার সিদ্ধান্ত নিলেন বিশ্বভারতীর উপাচার্য সহ বিশ্বভারতী পরিবার।  অনশনে বসার আগে নিয়ম মেনে ইতিমধ্যেই কতৃপক্ষ শান্তিনিকতেন থানা এবং বিশ্বভারতী পিয়ারসর্ন স্বাস্থ্য কেন্দ্র লিখিত ভাবে বিষয়টি জানিয়ে দিয়েছে। এদিকে শান্তিনিকেতন রোডের পাশে মেলার গেটের ঠিক সামনে মঞ্চ বাঁধার কাজ ও শুরু হয়ে গেছে।

বিশ্বভারতীর জনসংযোগ আধিকারিক অনির্বাণ সরকার বলেন, "সোমবার ১২ ঘন্টা অনশনে বসবেন উপাচার্য সহ সমগ্র বিশ্বভারতী পরিবার। কার আমরা চাই বিশ্বভারতীর ক্যাম্পাসের সৌন্দর্যায়ন। এই অনশন মঞ্চে আসার জন্য আহ্বান জানানো হচ্ছে, যারা এই ঐতিহ্যময় প্রতিষ্ঠানকে ভালোবাসেন।"

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only