রবিবার, ১ সেপ্টেম্বর, ২০১৯

বাদ গেলেন অসমের বিরোধী দলনেতা অনন্ত কুমার মালো

সব জল্পনা শেষ করে শনিবার প্রকাশিত হয়েছে অসমের জাতীয় নাগরিকপঞ্জি। নাগরিকপঞ্জির যে চূড়ান্ত তালিকা প্রকাশিত হয়েছে– তাতে বাদ গিয়েছে ১৯ লক্ষ মানুষের নাম। এই বাদ যাওয়া নাগরিকের তালিকায় যেমন কারগিল যুদ্ধে অংশ নেওয়া মুহাম্মদ সানাউল্লাহ কিংবা প্রয়াত রাষ্ট্রপতি ফখরুদ্দিন আলি আহমেদের পরিবারের সদস্যরা রয়েছেন– তেমনি রয়েছেন অসমের বিরোধী দলনেতা এআইইউডিএফের বিধায়ক অনন্তকুমার মালো। 
এ দিন সকালে এনআরসি ওয়েবসাইটে নিজের নাম দেখতে যান অসমের দাপুটে বিরোধী দলনেতা অনন্ত কুমার মালো। তখন তিনি দেখেন এরআরসি তালিকায় তাঁর নাম ওঠেনি। জাতীয় নাগরিকপঞ্জি থেকে যে ১৯ লক্ষ মানুষের নাম বাদ গিয়েছে– সেই তালিকায় যুক্ত হয়েছেন তিনিও। এদেরকে অবৈধ বাসিন্দা বলে অভিহিত করা হয়েছে। ফলে তাঁদেরকে নিজেদের নাগরিকত্ব প্রমাণ করতে হবে। যদিও জাতীয় নাগরিকপঞ্জির চূড়ান্ত তালিকায় রয়েছেন ৩.১১ কোটি মানুষ। তবে এ বিষযে কেন্দ্র জানিয়েছে সমস্ত আইনি প্রক্রিয়া না হওয়া পর্যন্ত নাগরিকপঞ্জি তালিকার বাইরে থাকা ব্যক্তিদের বিদেশি বলে গণ্য করা হবে না। যাঁরা নাগরিকপঞ্জি তালিকার বাইরে রয়েছেন– তাঁরা নাগরিকত্বের জন্য ফরেনার্স ট্রাইব্যুনালে আবেদন করতে পারবেন। বাদ পড়া মানুষরা যাতে আবেদনের সুযোগ পান– তাই আবেদনের সময়সীমা ৬০ দিন থেকে বাড়িয়ে ১২০ দিন করা হয়েছে।
স্বরাষ্টÉমন্ত্রক এ ব্যাপারে বলেছে– শুনানির জন্য মোট ১–০০০ ট্রাইব্যুনাল তৈরি করা হবে। ইতিমধ্যেই ১০০টি ট্রাইব্যুনাল খোলা হয়েছে। আরও ২০০টি ট্রাইব্যুনাল সেপ্টেম্বরের প্রথম সপ্তাহের মধ্যে খোলা হবে। যদি কোনও আবেদনকারী ট্রাইব্যুনালে মামলায় হেরে যান– তারপর তিনি হাইকোর্ট এবং পরবর্তীতে সুপ্রিম কোর্টের দ্বারস্থ হতে পারবেন ওই রায়ের বিরুদ্ধে। মানুষের আতঙ্ক কাটাতে অসম সরকার অভয়বাণী দিয়েছে– সমস্ত আইনি প্রক্রিয়া শেষ না হওয়া পর্যন্ত কাউকে আটক করা হবে না।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only