রবিবার, ২২ সেপ্টেম্বর, ২০১৯

এনআরসি হলে যোগীকে ইউপি ছাড়তে হবে


সম্প্রতি এক সভায় উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ মন্তব্য করেছিলেন, প্রয়োজন পড়লে উত্তরপ্রদেশেও এনআরসি করা হবে। তার জবাব দিলেন রাজ্যের সমাজবাদী পার্টি নেতা অখিলেশ যাদব। তাঁর পাল্টা কটাক্ষ, এনআরসি হলে যোগীকেই আগে উত্তরপ্রদেশ ছাড়তে হবে। অখিলেশ আরও বলেন, এনআরসি’র নাম করে দেশবাসীকে ভয় দেখানো হচ্ছে। গেরুয়া শিবির এনআরসিকে মানুষের মনে ভীতি তৈরির হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহার করছে। অখিলেশ বলেন, ‘যদি উত্তরপ্রদেশে এনআরসি বাস্তবায়িত করা হয় তাহলে যোগীকে আগে ফিরে যেতে হবে। উনি (যোগী) আদপে উত্তরাখণ্ডের আদি বাসিন্দা। জনতার মনে ভীতি তৈরির জন্য এনআরসিকে একটি মাধ্যম হিসেবে রাজনীতিতে জড়ানো হচ্ছে । আগে যে ফর্মূলা ছিল বিভেদ তৈরি করে শাসন (ডিভাইড অ্যান্ড রুল)– এখন তা হয়ে দাঁড়িয়েছে আতংকের রাজনীতি।’ অখিলেশ আরও বলেন– ‘আমরা বিচ্ছিন্নতাবাদী শক্তিকে দূর করে দিয়েছিলাম। এখন জনতাকে আমাদের বোঝাতে হবে যারা এভাবে ভয়ের পরিবেশ তৈরি করছে তাদের সরকার থেকে হটাতে হবে।’ বিজেপি পাকিস্তানের নাম করে ভোট চাইছে বলে দাবি করে অখিলেশ বলেন, সীমান্তে পাকিস্তানের থেকে চিন অনেক বেশি ভয়ংকর। তাই সীমান্তকে নিরাপদ রাখা সবথেকে বেশি জরুরী। কাশ্মীর প্রসঙ্গে তাঁর প্রশ্ন– সরকার দাবি করছে কাশ্মীরের পরিস্থিতি নাকি এখন স্বাভাবিক– তাহলে এখনও বিধিনিষেধ জারি রয়েছে কেন? দলের সিনিয়র নেতা আজম খানের বিরুদ্ধে যেভাবে কেস করা হয়েছে তাকে ‘অনৈতিক’ বলে দাবি করেছেন অখিলেশ। অখিলেশের প্রশ্ন, যে লোকদের অভিযোগের ভিত্তিতে আজম খানের বিরুদ্ধে কেস হয়েছে তারা ৯ বছর চুপ ছিল কেন? হঠাৎ কারা তাদের উপর প্রবল চাপ সৃষ্টি করে অভিযোগ জানাতে বাধ্য করেছে?     

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only