শনিবার, ২৮ সেপ্টেম্বর, ২০১৯

৩৭০ রদ নিয়ে সুপ্রিম শুনানি শুরু ১ অক্টোবর থেকে

জম্মু-কাশ্মীরকে বিশেষ মর্যাদা দেওয়া ৩৭০ ধারা রদ করে কেন্দ্রের মোদি সরকার। কেন্দ্রের এই সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে একাধিক আবেদন জমা পড়েছিল সুপ্রিম কোর্টে। সেখানে মোদি সরকারের এই সিদ্ধান্তের সাংবিধানিক বৈধতা নিয়ে প্রশ্ন তোলা হয়েছে। শুধু তাই নয়, জম্মু-কাশ্মীরকে যেভাবে দু’টি কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলে বিভক্ত করেছে কেন্দ্র, তার বৈধতাকে চ্যালেঞ্জ করেও একাধিক পিটিশন জমা পড়ে শীর্ষ আদালতে। আগামী ১ অক্টোবর মঙ্গলবার থেকে এইসব মামলার শুনানি শুরু হবে সুপ্রিম কোর্টে। সুপ্রিম কোর্টের ৫ বিচারপতির সাংবিধানিক বেঞ্চে এই মামলার শুনানি হবে। সংশ্লিষ্ট বেঞ্চের নেতৃত্বে থাকবেন বিচারপতি এন ভি রামানা। উল্লেখ্য– সুপ্রিম কোর্টের প্রধান বিচারপতি রঞ্জন গগৈ গত ২৮ আগস্ট কাশ্মীর সংক্রান্ত এই মামলাগুলিকে ৫ সদস্যের সাংবিধানিক বেঞ্চে পাঠান শুনানির জন্য। সেইসময় এই মামলাগুলি সুপ্রিম কোর্ট যাতে গ্রহণ না করে সেজন্য আর্জি জানানো হয়েছিল কেন্দ্রের তরফে। একইসঙ্গে তাদের যাতে এই নিয়ে কোনও নোটিশ না দেওয়া হয় তারজন্যও সর্বোচ্চ আদালতে আবেদন করেছিল কেন্দ্র। কেন্দ্রের বক্তব্য ছিল– সুপ্রিম কোর্ট এই মামলা গ্রহণ করলে এবং সেইমতো তাদেরকে নোটিশ দিলে তাতে সীমান্তের ওপারে প্রতিক্রিয়া হতে পারে। যদিও শীর্ষ আদালত কেন্দ্রের এই যুক্তি খারিজ করে দিয়ে মামলা গ্রহণ করে এবং ২৮ আগস্ট নোটিশ পাঠায় কেন্দ্রকে। 
চলতি বছরের ৫ আগস্ট কেন্দ্রের নরেন্দ্র মোদি সরকার জম্মু-কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা কেড়ে নিয়ে ৩৭০ ধারা বিলোপ করে। কেন্দ্রের এই পদক্ষেপের সাংবিধানিক বৈধতাকে চ্যালেঞ্জ করে সুপ্রিম কোর্টে মামলা করেন কাশ্মীরের ন্যাশনাল কs³ারেন্স (এনসি) দলের দুই সাংসদ মুহাম্মদ আকবর লোন ও হাসনেন মাসুদি। লোন বারামুল্লা কেন্দ্রের ও মাসুদি অনন্তনাগ কেন্দ্রের সাংসদ। এঁরা ছাড়াও কেন্দ্রের বিরুদ্ধে মামলা করেন জম্মু-কাশ্মীরে আলোচনা চালানোর দায়িত্বে থাকা কেন্দ্রীয় স্বরাষ্টÉ মন্ত্রকের টিমের প্রাক্তন সদস্য রাধা কুমার– জম্মু-কাশ্মীরের প্রাক্তন মুখ্য সচিব হিন্দল হায়দার তৈয়েবজি– অবসরপ্রাপ্ত বায়ুসেনা মার্সাল কপিল কক– অবসরপ্রাপ্ত মেজর জেনারেল অশোক কুমার মেহতা– ভারত সরকারের আন্তঃ রাজ্য কাউন্সিলের প্রাক্তন সচিব অমিতাভ পাণ্ডে– প্রাক্তন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্টÉ সচিব জি কে পিল্লাই প্রমুখ। এঁদের মধ্যে মেজর জেনারেল মেহতা আবার উরি সেক্টরে পোস্টিং ছিলেন। ১৯৬৫ ও ১৯৭১ সালে ভারত-পাকিস্তান যুদ্ধে অংশগ্রহণ করেছিলেন। উল্লেখ্য– এর আগে এক রায়ে সুপ্রিম কোর্ট ঘোষণা করেছিল– ৩৭০ কোনও অস্থায় ধারা নয়। দীর্ঘসময় ধরে এই ধারা কার্যকরী থাকায় তা স্থায়ী মর্যাদা পেয়েছে। 



একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only