সোমবার, ২ সেপ্টেম্বর, ২০১৯

সপ্তম পে কমিশনের বকেয়া না পাওয়ায় অনির্দিষ্ট কালের জন্য কর্মবিরতির ডাক কর্মীদের

দেবশ্রী মজুমদার, শান্তিনিকেতন, ০২ সেপ্টেম্বরঃ সপ্তম পে কমিশনের বকেয়া টাকা না পেয়ে বিশ্বভারতীতে অনির্দিষ্টকালের জন্য কর্মবিরতি শুরু করল বিশ্বভারতীর কর্মীরা। এদিন বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে এই দাবিতে অবস্থান বিক্ষোভ শুরু করে কর্মীসভা। আন্দোলনের জেরে শিকেয় উঠেছে বিশ্বভারতীর সমস্ত কাজকর্ম। যদিও এব্যাপারে, কর্মীসভার দাবি, তাঁরা শান্তিপূর্ণ অবস্থানে নেমেছেন। বিশ্বভারতী কর্তৃপক্ষ বার বার প্রতিশ্রুতি ভঙ্গ করার জন্যই তাঁরা সিদ্ধান্ত নিতে বাধ্য হয়েছেন। ইউজিসি প্রদেয় বকেয়া প্রাপ্য পেলেই তাঁরা আন্দোলন থেকে সরে আসবেন। অন্যদিকে, বিশ্বভারতীর অধ্যাপক সভা ও পাশাপাশি ভিবিইউফা যৌথভাবে উপাচার্যের সাথে বৈঠক করে বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষার   স্বাভাবিক পরিবেশ বজায় রাখার অনুরোধ করে এক প্রেস বিজ্ঞপ্তি জারি করে।  

সপ্তম পে কমিশন চালু হওয়ার পর থেকেই বিশ্বভারতীর কর্মীদের বকেয়া পাওনা থেকে গিয়েছে। জানা গেছে,  বিশ্বভারতীতে প্রতি মাসে সমস্ত কর্মী, অধ্যাপক, আধিকারিকদের বেতন দিতে প্রায় ১৭ কোটি টাকা ব্যয় হয়। আগস্ট মাসে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন সম্পূর্ণ টাকা না পাঠানোর ফলে অন্য খাতের টাকা থেকে বেতন দিতে হয়েছে বিশ্বভারতী কর্তৃপক্ষকে। সেই নিয়েও এক প্রস্থ অভিযোগ ওঠে।

কর্মীদের অভিযোগ, ২০১৬ সাল থেকে লাগু হওয়া সপ্তম পে কমিশনের বকেয়া টাকা নিয়ে  একাধিকবার আবেদন নিবেদন করে কোন লাভ হয়নি। যদিও, বিশ্বভারতী কর্তৃপক্ষ সূত্রে জানা গেছে, এব্যাপারে একটি কমিটি গঠন করা হয়েছে। সেই কমিটি বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন ও মানবসম্পদ উন্নয়ন মন্ত্রকের সঙ্গে কথা বলে সুনির্দিষ্ট দাবি গুলি জানাবে ও সমস্যার দ্রুত নিষ্পত্তি হবে।

কর্মিসভার সম্পাদক বিদ্যুৎ সরকার বলেন, সপ্তম পে কমিশনের বকেয়া অন্যান্য কেন্দ্রীয় বিশ্ববিদ্যালয়ে দেওয়া হলেও, বিশ্বভারতীর ক্ষেত্রে তা হয় নি। ২০১৬ সালের ১লা জানুয়ারী থেকে চালু হলেও, আমাদের বিশ্ববিদ্যালয়ে তা প্রদান করা হয়নি। এর আগে জুন মাসে দিয়ে দেওয়া হবে বলা হয়। পরে অগাস্ট মাসে দেওয়া হবে বলা হয়, সেটাও হয়নি। তাই বাধ্য হয়ে অনির্দিষ্ট কালের জন্য শান্তিপূর্ণভাবে অবস্থানের ডাক দিয়েছি। প্রতিদিন সকাল সাড়ে নটা থেকে সন্ধ্যে ছয়টা পর্যন্ত পেন ডাউন থাকবে।  এটি মূল দাবি হলেও, এছাড়াও, কর্মীদের সঙ্গে দুর্ব্যবহার করা হচ্ছে, হেনস্থা করা হচ্ছে। সে ব্যাপারেও আমরা প্রতিবাদ জানাচ্ছি। তবে এদিন ভিবিইউফা ( বিশ্বভারতী ফ্যাকাল্টি এ্যসোসিয়েশন), অধ্যাপক সভা, তফশিলী জাতি উপজাতি ওয়েলফেয়ার এ্যসোসিয়েশন  বিশ্বভারতীর উপাচার্যের সাথে বৈঠক করেন। এব্যাপারে তাঁরা  এক  যৌথ প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে শিক্ষা অঙ্গনের  স্বাভবিক পরিবেশ বজায় রাখার আবেদন জানান সবাইকে।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only