বৃহস্পতিবার, ১২ সেপ্টেম্বর, ২০১৯

অবশেষে ছাড়পত্র পেল দেওচা পাচামি কোল ব্লক


কৌশিক সালুই, বীরভূম ১২ সেপ্টেম্বর:- দীর্ঘ কয়েক বছর টালবাহানার পর দেওচা পাচামি কোল ব্লক এর ছাড়পত্র দিয়েছে কেন্দ্র সরকার। মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় গত বুধবার নবান্ন থেকে সেই কথা ঘোষণা করতেই এলাকায় খুশির হাওয়া। এলাকার উন্নয়ন থেকে কর্মসংস্থান সব কিছুই হবে আশাতীত। এমনই আশায় বুক বাধছেন জেলার মানুষ। স্থানীয়দের স্বার্থ রক্ষা করে এই শিল্প হবে বলে আশাবাদী সব মহলের মানুষ।

দেওচা পাচামি কয়লা খনির প্রস্তাবিত এলাকায় বর্তমানে জেলার এক মাত্র শিল্প এলাকায় কালো পাথরের ১৫০টি খানান ও প্রায় ৪৫০টি পাথর ভাঙ্গার মেশিন আছে। এই পাথর শিল্পাঞ্চলে প্রায় ৩০ হাজার মানুষ কর্ম করেন। সেখানে মুখ্যমন্ত্রীর ঘোষণা মত কয়লা খাদান হলে লক্ষাধিক মানুষের কর্মসংস্থান হবে। এর সঙ্গে নতুন রাস্তা, সেতু, হাসপাতাল, স্কুল, কলেজ, বাজার তৈরী হবে। তাতেও হবে প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষ কাজ। মুখ্যমন্ত্রীর ছাড়পত্র পাওয়ার  ঘোষণার পর এলাকা জুড়ে খুশির হাওয়া আধিবাসী ও সংখ্যালঘু অধ্যুসিত এই এলাকায়।
জেলা প্রশাসন সূত্রে জানা গিয়ছে, বেঙ্গল বীরভূম কোলফিল্ড  লিমিটেদের এই কয়লা প্রকল্পের ভৌগলিক অবস্থান বীরভুমের মহম্মদ বাজার ব্লকের রামপুরহাট ও সাইথিয়া বিধানসভা কেন্দ্রের অন্তর্গত দেওচা-পাচামী, দেওয়ায়গঞ্জ ও হরিনসিঙ্গা কয়লা খনি প্রকল্প এরিয়াটি। দেওচা, হিংলো, ভারকাটা, সেকেড্ডা ও পুরাতনগ্রাম গ্রাম পঞ্চায়েতের  হাটগাছা, চান্দা, বাহাদুরগঞ্জ, সালুকা, মকদুমনগর, কবিলনগর, নিশ্চিন্তপুর, দেওয়ানঞ্জ, আলিনগর এবং হরিনসিঙ্গা এই মৌজা এলাকার জমিতে এই কয়লা উত্তোলন  হবে। দেওচা- পাচামী এলাকায় ৯.৭ বর্গ কিমি এবং দেওয়ানগঞ্জ-হরিনসিঙ্গা এলাকার ২.৬ বর্গ কিমি এরিয়াতে এই কয়লা মজুদ রয়েছে। উপরের স্তরে কালো পাথর তোলার সঙ্গে সঙ্গে কয়লা উত্তোলন করা হবে। এই প্রকল্পের উৎপাদিত কয়লা মলত তাপ বিদ্যুত প্রকল্পে ব্যবহৃত হবে। পশ্চিমবঙ্গের সঙ্গে বিহার, পাঞ্জাব, উত্তরপ্রদেশ, কর্ণাটক ও তামিলনাড়ুর সঙ্গে যৌথ  অংশীদারিত্বে এই প্রকল্পের কাজ শুরু হওয়ার কথা থাকলেও পরে ওই সমস্ত রাজ্যগুলির পিছিয়ে যায় এবং পুরোপুরি দায়িত্ব বর্তমানে আমাদের রাজ্যের হাতে। দেশের সর্ববৃহৎ এই কয়লা খনিতে সরাসরি ১ লক্ষ বেকারের কর্মসংস্থান হবে বলে দাবি মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের। এছাড়া এই শিল্পের সঙ্গে যুক্ত মানুষের দৈনন্দিন চাহিদা মেটানো জন্য বিভিন্ন ভাবে কয়েক লক্ষ মানুষের পরোক্ষ ভাবে কর্মসংস্থান হবে।  এর ফলে জেলার পরিকাঠামোর উন্নয়ন হবে ব্যাপক ভাবে। এই প্রকল্পে আগামী পাঁচ বছরের মধ্যে কয়লা উত্তোলনের কাজ শুরু হয়ে যাবে বলে জানিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী। পাচামি মাইনস ওনার্স অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি নাজির হোসেন মল্লিক বলেন, "রাজ্য সরকারের এই উদ্যোগকে আমরা সাধুবাদ জানায়। এরফলে আমাদের জেলা দেশের শিল্প মানচিত্রে উল্লেখ যোগ্য স্থান করে নেবে। তবে কিভাবে প্রথমে পাথর তুলে তারপরে কয়লা উত্তোলন করা হবে সে বিষয়টি পরিষ্কার এখনো হয়নি। ওই প্রক্রিয়াটি খুব জটিল। সব পক্ষেরই স্বার্থ রক্ষা করেই প্রকল্প হোক"। মহম্মদ বাজার ব্লক বিজেপি সভাপতি দীনবন্ধু কর্মকার বলেন," বহুদিন থেকেই মুখ্যমন্ত্রী কয়লা শিল্পের কথা বলে আসছেন কিন্তু এখনও বাস্তবায়ন কিছু হয়নি। শিল্পকে অবশ্যই স্বাগত জানাই। প্রস্তাবিত এলাকায় সমস্ত মানুষের স্বার্থ সুরক্ষা করতে হবে"। বীরভূম জেলা আদিবাসী উন্নয়ন গাওতার নেতা সুনীল সোরেন বলেন, "দেওচা পাচামি কোল ব্লকের প্রস্তাবিত এলাকাতে বহু আদিবাসী মানুষের বসবাস। কোনভাবেই তাদেরকে বঞ্চিত করে কোন কাজ করা যাবে না। তাছাড়া এলাকাতেও প্রচুর জঙ্গল আছে। সে বিষয়গুলো মাথায় রাখতে হবে। তবে শিল্প উদ্যোগকে স্বাগত জানাই"।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only