শুক্রবার, ৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৯

প্রেসিডেন্ট জিনপিং ভারতে আসছেন, ভারত চিন এখন কাছাকাছিঃ বক্তব্য শান্তিনিকেতনে আন্তর্জাতিক আলোচনা চক্রে

দেবশ্রী মজুমদার, শান্তিনিকেতন, ০৬ সেপ্টেম্বরঃ প্রেসিডেন্ট জিনপিং ভারতে আসছেন, ভারত চিন এখন কাছাকাছি। শান্তিনিকেতনের ভারত চিন আন্তর্জাতিক আলোচনা চক্রে উঠে এল সেই কথায়। শুক্রবারের আলোচনায় রাষ্ট্রদূত তথা জেনারেল ডাইরেক্টর অফ ইণ্ডিয়ান কাউন্সিল অফ ওয়ার্ল্ড এফ্যায়ার্সের টি সি এ রাঘবনকে উদ্ধৃত করে কোলকাতাস্থিত চিনা কনসুল জেনারেল জা লি ইউ একটাই বার্তা দিলেন। তিনি বলেন, “ মিঃ এম্ব্যাসাডার বললেন, প্রেসিডেন্ট জিনপিং ভারতে আসছেন। এই দেশের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সাথে আলোচনা হবে।  ভারত ও চিন একসাথে এগিয়ে যেতে হবে। অর্থনীতির দিক থেকে দুই দেশই শক্তিশালী”।  শান্তিনিকেতনের লিপিকা গৃহে দুদিনের ভারত চিন দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কিত আন্তর্জাতিক আলোচনা চক্রে তিনি বলেন, আগে আমি আমেরিকায় ওয়াশিংটন ডিসিতে ছিলাম। সেখানে আমি শুনেছি আমেরিকা ‘ভেরি স্পেশাল’। সেটা ঠিক। কিন্তু চিন ও ভারত যদি তার দেখি বেশি না হয়, কম অন্ততঃ নয়।  এদিনের সভায় উপস্থিত ছিলেন রাষ্ট্রদূত টি সি এ রাঘবন। তিনি ইণ্ডিয়ান কাউন্সিল অফ ওয়ার্ল্ড এফ্যায়ার্সের জেনারেল ডাইরেক্টর। বিশ্বভারতীর উপাচার্য বিদ্যুত চক্রবর্তী সহ  চিনা অধ্যাপক সান ইক্সু এবং  ভারত ও চিনের ৪০ জন অধ্যাপক এদিনের আলোচনা চক্রে উপস্থিত ছিলেন।

৭৩ বছরের ভারত এবং ৭০ বছরের চিন একই সাথে সাংস্কৃতিক আদান প্রদান সহ বিভিন্ন দ্বিপাক্ষিক বিষয়ে আলোচনার মধ্যে এগিয়ে যাবে। এক্ষেত্রে যোগসূত্র সেই রবীন্দ্রনাথ। ১৯২৪ সালে রবীন্দ্রনাথ যাত্রার মধ্যে দিয়ে এই মেল বন্ধনের যাত্রার সূচনা হয়। মাঝে ১৯৬২ সালের যুদ্ধের  পর এই সম্পর্ক বৈরিতাতে পৌঁছালেও, ১৯৮৮ সালে রাজীব গান্ধীর চিন সফরের মধ্য দিয়ে বরফ গলে। ১৯৪৯ থেকে ১৯৭৮ এই ব্যাড প্যাচের সময়কে ছাড়িয়ে অর্থনীতি, বিশ্ব রাজনীতি সহ সমস্ত বিষয়ে চিন ভারতের সাথে একসাথে কাজ করতে আগ্রহী। এক্ষেত্রে দুই দেশের শিক্ষবিদদের ভূমিকা অনস্বীকার্য। এব্যাপারে সংস্কৃতি, ফিল্ম, ট্যুরিজম, স্পোর্টস, টিভি, যোগা, শিক্ষা, ওষুধ, প্রযুক্তি ইত্যাদি ক্ষেত্রে অগ্রগতি ঘটতে পারে। এব্যাপারে চিনা রাষ্ট্রপতি জিন পিংয়ের এক বক্তব্যকে উদ্ধৃতি দিয়ে প্রেস রিলিজে বলা হয়,ভারত ও চিন একসাথে কথা বললে গোটা বিশ্ব তা শুনবে। একই সাথে  ভারতের প্রধানমন্ত্রী মোদিকে উদ্ধৃত করে বলা হয়, আমাদের এক চিন্তা এক লক্ষ্য। আপনাদের নতুন চিনের মত নয়া ভারত। এক্ষেত্রে দুই দেশ সঠিক দিশায় চলছে। এক্ষেত্রে তারা “সফট পাওয়ার ডিপ্লোম্যাসি” ব্যবহার করছে।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only