মঙ্গলবার, ৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৯

আমাদের কথা চিন্তা না করা হলে অ্যাসিড খেয়ে আত্মহত্যা করব: বউবাজারের স্বর্ণশিল্পীরা


সাহাজান পুরকাইত: বউবাজারের ক্ষতিগ্রস্ত এবং আতঙ্কগ্রস্ত বাসিন্দাদের নিয়ে প্রশাসনের চিন্তা থাকলেও স্বর্ণ শিল্পীদের কথা কেউ ভাবছে না। এমনটাই অভিযোগ এখানকার স্বর্ণ শিল্পীদের বড় অংশের। বি বি গাঙ্গুলি স্ট্রিট থেকে ঢুকে যাওয়া দুর্গা পিতুরি লেন, স্যাকরাপাড়া লেন, গৌরী দে লেনের তিনশোর উপর বাসিন্দার পাশাপাশি এই সুড়ঙ্গ বিপর্যয়ে ক্ষতিগ্রস্ত হতে চলেছেন স্বর্ণ শিল্পীরা। তাঁদের ক্ষোভ, পুরসভা বা রাজ্য সরকার থেকে শুরু করে মেট্রো নির্মাণকারী কেএমআরসিএল-এর কর্তারা কেউই আমাদের কথাকে পাত্তা দিচ্ছেন না। বাসিন্দাদের জন্য ইতিমধ্যেই আশপাশের হোটেলে অস্থায়ীভাবে থাকার বিকল্প ব্যবস্থা করা হয়েছে। কিন্তু এই তিনটি লেন ও বিপজ্জনক হয়ে উঠতে পারে ভেবে যাতায়াত বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। তারই মধ্যে কয়েকটি পকেটে দুশো’র উপর ছোট, মাঝারি সোনার দোকান রয়েছে। সেই দোকান গুলিতে আড়াই হাজারের বেশি রাজ্যের বিভিন্ন জেলা থেকে আগত স্বর্ণশিল্পীরা কাজ করেন। এখন তারা কিভাবে সংসার চালাবেন বুঝে উঠতে পারছেন না।ক্ষতিগ্রস্থ প্রত্যেকটি দোকানেই  কমপক্ষে দু’-তিনজন কোনটাতে দশ জনের বেশি কারিগর রয়েছেন। যাঁরা আপাতত জীবিকা হারানোর আশঙ্কায় ভুগছেন। ভবিষ্যৎ কী হবে, তা নিয়ে সংশয়ের মধ্যে রয়েছেন বহু মানুষ, যাঁদের জীবন জীবিকার প্রশ্ন জড়িয়ে রয়েছে এই ঘটনার সঙ্গে। 


রবিবার, সোমবারের মতো মঙ্গলবার সকাল থেকেই বউবাজারে বি বি গাঙ্গুলি স্ট্রিটের উপর গোয়েঙ্কা কলেজ সংলগ্ন অঞ্চলে মানুষের জটলা লেগেই ছিল। পুলিস ব্যারিকেড করে বিস্তীর্ণ এলাকায় কোনও সাধারণ মানুষকে ঢুকতে দিচ্ছে না। দিশাহারা বাসিন্দাদের পাশাপাশি বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে এই এলাকার আপাতত কাজহীন ব্যবসায়ী ও কারিগররা উদ্বিগ্ন মুখে বিক্ষোভ শুরু করেন। এমনই একজন হলেন পূর্ব মেদিনীপুর কোলাঘাটের বাসিন্দা পার্থ সামন্ত। তাঁর অভিযোগ গত বারো বছর ধরে এখানে কাজ করছি। কিন্তু গত তিন দিন ধরে রাস্তায়  আছি। এটিএম কার্ড, মোবাইল সব কিছু ভেঙে দোকানের ভিতরে আছে। গনেশ পুজোয় বাড়িতে টাকা পাঠাতে পারিনি। প্যান্টের পকেটে যা ছিল খরচ হয়ে গেছে। এখন কি ভাবে খাবো সেটাই বুঝতে পারছি না। একই রকম  অভিযোগ  হাওড়ার অরুপ ঘোষ, মধ্যমগ্রামের পরিতোষ কর, বেহালার সঞ্জয় পালেরা।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only