মঙ্গলবার, ১৭ সেপ্টেম্বর, ২০১৯

ডায়াবেটিসের অতিরিক্ত চিকিৎসা কিন্তু ডেকে আনতে পারে বিপদ

পুবের কলম, ১৭ সেপ্টেম্বর:- চিকিৎসা প্রয়োজন। কিন্তু, মাত্রাতিরিক্ত ওষুধ খাওয়া ভালো নয়। প্রায় প্রত্যেক বাড়ির বড়রাই ছোটদেরকে পইপই করে এই ব্যাপারে সতর্ক করেন। কিন্তু, যাঁদের ডায়াবেটিস, থাইরয়েড, প্রেশারের মতো রোগ রয়েছে– তাঁরা কী করবেন? কারণ, তাঁদের তো প্রতিদিন ওষুধ খেতেই হয়, বাধ্যতামূলকভাবে। আধুনিক চিকিৎসা গবেষণা কিন্তু বলছে, তাঁদের শরীরের ওপরও প্রচণ্ড প্রভাব ফেলে ধারাবাহিক চিকিৎসা।
ডায়াবেটিস রোগীদের ক্ষেত্রেই ধরা যাক। যাঁদের সদ্য ডায়াবেটিস ধরা পড়েছে, তাঁদের বলা হয় ‘টাইপ-১’ ডায়াবেটিক রোগী বা সুগারের পেশেন্ট। গবেষণা থেকে জানা গিয়েছে, তাঁরা যদি বেশিমাত্রায় সুগার কমানোর ওষুধ খান, তবে সেই ওষুধের প্রভাবে সুগারের মাত্রা অত্যন্ত কমে যেতে পারে। অর্থাৎ বাড়তে পারে (লো ব্লাড সুগার) বা হাইপোগ্লিসেমিয়া।
আবার ‘টাইপ-২’ ডায়াবেটিস রোগী, মানে যাঁদের সুগারের সমস্যা বেশ কিছুদিন ধরেই চলছে, সমীক্ষায় দেখা গিয়েছে, তাঁরা বারবার নিজেদের সুগার লেভেল পরীক্ষা করান। বোঝার চেষ্টা করেন, তাঁদের সুগারের পরিস্থিতি কেমন রয়েছে। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের রচেস্টারের মেয়ো ক্লিনিকের করা সমীক্ষা বলছে, এর ফলে আসলে সিরিঞ্জ-সহ বিভিন্ন বর্জ্য পদার্থের সংখ্যাই বাড়ে। কিন্তু, তাতে রোগীর খুব একটা বিশেষ লাভ হয় না।  
মেয়ো ক্লিনিকের অন্যতম গবেষক ডা. রোজালিনা ম্যাককয় জানিয়েছেন, সুগারের মাত্রা কমে গেলে রোগীর তৎক্ষণাৎক্ষতি তো হয়ই। পাশাপাশি, এর ফলে রোগীকে দীর্ঘদিন ধরেও ভুগতে হয়।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only