মঙ্গলবার, ১৫ অক্টোবর, ২০১৯

কন্যাশ্রী এবং উৎকর্ষ বাংলার পর এবার বিশ্বদরবারে প্রশংসিত রাজ্যের 'সবুজশ্রী'



চিন্ময় ভট্টাচার্য

মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের 'কন্যাশ্রী' প্রকল্পের বিশ্বজয় আজ ইতিহাস। তাঁর নেতৃত্বাধীন রাজ্য সরকারের 'উৎকর্ষ বাংলা' প্রকল্পও কুড়িয়েছে আন্তর্জাতিক কুর্নিস। এবার সেই পথেই হাঁটল রাজ্য সরকারের 'সবুজশ্রী' প্রকল্প। ডেনমার্কের কোপেনহেগেন শহরে মহানাগরিকদের বিশ্ব সম্মেলনে ভূয়সী প্রশংসা পেয়েছে বাংলার এই প্রকল্প। সম্মেলনে, "২০১৯ সি-ফর্টি সিটিজ ব্লুমবার্গ ফিলানথ্রপিস পিস অ্যাওয়ার্ড' অনুষ্ঠান আয়োজিত হয়। যে প্রকলগুলো পরিবেশ রক্ষায় বিশেষ জোর দিয়েছে, এবছর অনুষ্ঠানে সেই সব প্রকল্পকে পুরস্কৃত করা হয়েছে। পুরস্কার গ্রহণ করেছেন,  কলকাতার মহানাগরিক তথা রাজ্যের পুর ও নগরোন্নয়নমন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম।

'সবুজশ্রী' মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের মস্তিষ্কপ্রসূত একটি প্রকল্প। এই প্রকল্প শুরু হয় ২০১৬ সালে। এই প্রকল্প অনুযায়ী, সরকারি হাসপাতালে জন্ম নেওয়া প্রতিটি শিশুকে গাছের চারা দেওয়া হয়। বেশিরভাগ ক্ষেত্রে এই চারা হয় মেহগিনি বা শাল গাছের। প্রসূতিদের বলা হয়, নিজের শিশুর পাশাপাশি এই চারাগাছটিকেও যত্নসহকারে বড় করে তুলতে। যাতে, যখন শিশু প্রাপ্তবয়স্ক হবে, তখন অভিভাবকরা ওই গাছ বিক্রি করে উচ্চশিক্ষার জন্য আর্থিক প্রয়োজন মেটাতে পারেন।

এর আগে শহরের দূষণহীন পরিবহণ ব্যবস্থা ও সেই ব্যবস্থার আধুনিকীকরণের জন্যও সি-৪০ পুরস্কার পেয়েছে কলকাতা। মহানাগরিক ফিরহাদ হাকিম ১০ অক্টোবর ওই পুরস্কার গ্রহণ করেন। 'গ্রিন মবিলিটি' বিভাগে কলকাতা, 'লো কার্বন কমিউট ট্রাঞ্জিশন প্রকল্প'-র জন্য ওই পুরস্কার পেয়েছে। যা গোটা ভারতে নজিরবিহীন।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only