মঙ্গলবার, ১৫ অক্টোবর, ২০১৯

শারদ কার্নিভাল নিয়ে বিস্ফোরক মন্তব্য করে ফের বির্তকে রাজ্যপাল ধনকর

­
রাজ্যের সঙ্গে ফের সংঘাতে রাজ্যপাল জগদীপ ধনকর। গত ১১ অক্টোবর রেড রোডে কার্নিভালের পর নিজেই মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের প্রশংশায় পঞ্চমুখ ছিলেন। গোটা ব্যাপারটি সামলান কীভাবে জানতেও চেয়েছিলেন মুখ্যমন্ত্রীর কাছে। কিন্তু হঠাৎই ভোল বদল হল মঙ্গলবার। ঘটনার ঠিক চারদিন পর ১৮০ ডিগ্রি ঘুরে গিয়ে রাজ্যপালের মন্তব্য– কার্নিভালে তাঁকে ডেকে নিয়ে গিয়ে অপমান করা হয়েছে। এই ঘটনায় তিনি গভীরভাবে মর্মাহত ও ব্যথিত বলেই মন্তব্য করেছেন রাজ্যপাল জগদীপ ধনকর। 
অন্যদিকে– ঘটনার চারদিন পরেই বা কেন এমন মন্তব্য? প্রশ্ন তুলেছেন তৃণমূল কংগ্রেসের পরিষদীয় মন্ত্রী তাপস রায়। তৃণমূলের ওই মন্ত্রীর কথায়– রাজ্যপাল কেন এমন মন্তব্য করেছেন বুঝতেই পারছি না। তাঁর মতো মানুষের এমন মন্তব্য শোভা পায় না। অন্যদিকে রাজ্যপালের এদিনের বক্তব্য সম্পর্কে তৃণমূল কংগ্রেসের মহাসচিব পার্থ চট্টোপাধ্যায় বলেন– রাজ্যপালের কথায় গুরুত্ব দেওয়ার দরকার নেই। শুধু এবারেই নয়– আগেও একাধিক ইস্যুতে মুখ খুলতে দেখা গেছে রাজ্যপালকে। জড়িয়েছেন বির্তকেও।
এদিন ভাষা ভবনে সাংবাদিকদের কাছে রাজ্য সরকার আয়োজিত পুজা কার্নিভাল নিয়ে রাজ্যপাল জগদীপ ধনকর বলেন– সেদিনের ঘটনায় তিনি গভীরভাবে মর্মাহত ও ব্যথিত হয়েছেন। ওই ঘটনা তাঁকে লজ্জায় ফেলেছে। বাংলার সংস্টৃñতিকেও অপমান করা হয়েছে বলে মন্তব্য তাঁর। রাজ্যপাল জগদীপ ধনকরের অভিযোগ– চার ঘণ্টা ধরে আমাকে আলাদা করে রাখা হয়েছিল। কেন এমন ব্যবহার করা হল--- এই প্রশ্নও তুলেছেন রাজ্যপাল। রাজ্যপালের আরও অভিযোগ– রাজ্যপাল হিসাবে তিনি যোগ্য সম্মান পাননি। এদিন রাজ্যপাল বলেন– আমার চোখে জল এসেছিল– আমি অপমানিত হয়েছি। তবে ঘটনার চারদিন পর কেন মুখ খুললেন? এই প্রশ্নের জবাবে রাজ্যপাল বলেন– ঘটনার পর থেকেই আমার মন ভারাক্রান্ত ছিল। তবে বিষয়টি জনসমক্ষে তুলে ধরা উচিত বলেই তিনি মুখ খুলতে বাধ্য হয়েছেন বলে রাজ্যপাল জানান।
এদিন রাজ্যপালের করা নানা মন্তব্যের তীব্র সমালোচনা করেছেন রাজ্যের পরিষদীয় মন্ত্রী তাপস রায়। তিনি বলেন– রাজ্যপালের এই মন্তব্য অত্যন্ত দুর্ভাগ্যজনক। তিনি নিজেই নিজের পদের অমর্যাদা করছেন। আমি জানি না– কেন তিনি এসব বলছেন। আর এহেন মন্তব্য করে তিনি কী বোঝাতে চাইছেন বুঝতেই পারছি না। রাজ্যপালকে কটাক্ষ করে মন্ত্রী তাপস রায়ের মন্তব্য– আমার মনে হয় উনি প্রচার চাইছেন। রাজ্যপালকে আদালা করে রাখার অভিযোগ খণ্ডন করে তিনি বলেন– রাজ্যপালের সম্মানে আলাদা করে মঞ্চ তৈরি করা হয়েছিল। যে মঞ্চ তাঁকেই ‘ডেডিকেট’ করা হয়েছিল।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only