শুক্রবার, ১৮ অক্টোবর, ২০১৯

বিভ্রান্তি সৃষ্টির জন্যই বাবরি মামলা নিয়ে চলছে অপপ্রচার: জিলানি


লন্ডনের ব্রিটিশ লাইব্রেরিতে সংরক্ষিত বাবরি মসজিদের একটি পুরনো চিত্র।

পুবের কলম, নয়াদিল্লি: বাবরি মসজিদ-জন্মভূমি নিয়ে সুপ্রিম কোর্টে শুনানির শেষদিনে দু-একটি সন্দেহজনক সংবাদে এই মামলা সম্পর্কে ব্যাপক বিভ্রান্তির সৃষ্টি হয়। বিভিন্ন সংবাদসংস্থার খবরে বলা হয়, মামলার অন্যতম এক পক্ষ সুন্নি ওয়াকফ বোর্ড-এর চেয়ারম্যান নাকি এক হলফনামা দিয়ে বলেছেন, বাবরি মসজিদের জমির মালিকানা স্বত্ব নিয়ে যে মামলা চলছিল সুন্নি ওয়াকফ বোর্ড তা প্রত্যাহার করে নিচ্ছেন। আর ওই জমি রামজন্মভূমির মন্দির নির্মাণের জন্য সুপ্রিম কোর্ট বা সরকার হিন্দুদের দিয়ে দিলে তাদের কোনও আপত্তি নেই।
বিভিন্ন সংবাদমাধ্যম ও খ্যাতনামা বেশ কিছু পোর্টালে এই খবর ছড়িয়ে পড়ায় ব্যাপক বিভ্রান্তি দেখা দেয়। তবে মুসলিম পক্ষের উকিল রাজীব ধাওয়ান স্পষ্ট করে বলেন, এই ধরনের কোনও খবর তাঁর জানা নেই। শুনানির শেষ দিন বিচারপতি (অব.) খালিপউল্লাহ এবং শ্রী শ্রী রবিশঙ্কর ও অ্যাডভোকেট শ্রীরাম পাঞ্চুর সমন্নয়ে  সুপ্রিম কোর্ট যে সমঝোতা প্যানেল তৈরি করেছিল, তারাও একটি রিপোর্ট শীর্ষ আদালতে জমা দেয়। এর আগে অবশ্য এই প্যানেল বলেছিল, তারা কোনও সমঝোতা সূত্র বের করতে পারেনি। কিন্তু শুনানির শেষ দিনে কয়েকটি মহল জানায় যে, প্যানেলের রিপোর্টে নাকি বলা হয়েছে, সুন্নি ওয়াকফ বোর্ড মামলাধীন জমির মালিকানা ছেড়ে দিতে রাজি হয়েছে। আর এই জমি রাম মন্দির নির্মাণের জন্য হিন্দুপক্ষকে দিয়ে দিলে, তাদের কোনও আপত্তি নেই। তবে পরিবর্তে নাকি তারা কিছু মসজিদ মেরামতির আর্জি জানিয়েছে। 
স্বভাবতই এই খবরে, দেশজুড়ে ব্যাপক চাঞ্চল্য সৃষ্টি হয়। আমাদের দিল্লির প্রতিনিধি আবদুল বারি মাসুদ বাবরি মসজিদ মামলায় মুসলিম পক্ষের অন্যতম বর্ষীয়ান আইনজীবী জাফরইয়াব জিলানির সঙ্গে কথা বলেন। আমাদের প্রতিনিধিকে তিনি জানান, সুন্নি মুসলিম বোর্ড বাবরির স্বত্ব ছেড়ে দিয়ে কোনও হলফনামা জমা দিয়েছে বলে তাঁর জানা নেই। 
সুন্নি ওয়াকফ বোর্ডের অন্যান্য সদস্যও এই সম্পর্কে কিছুই জানেন না। মূলত বিভ্রান্তি ছড়ানোর জন্যই হয়তো এই ধরনের বার্তা মিডিয়ায় প্রচার করা হচ্ছে। 
সুন্নি বোর্ডের চেয়ারম্যান জাফর আহমদ ফারুকিকে অবশ্য যোগী সরকার প্রবল চাপের মধ্যে রেখেছে। তিনি ওয়াকফ বোর্ডের সম্পত্তির অবৈধ লেনদেন করেছেন বলে তাঁর বিরুদ্ধে তিন তিনটি এফআইআর দায়ের করা হয় এবং সিবিআই তদন্তের ব্যবস্থা করা হচ্ছে বলেও হুমকি দেওয়া হয়। বোর্ডের আইনজীবী জাফরইয়াব জিলানি পুবের কলমকে বলেন, চেয়ারম্যান জাফর আহমদ ফারুকি প্যানেলের সঙ্গে আলোচনা চলাকালীন এই ধরনের কোনও প্রস্তাবে মৌখিক সম্মতি দিয়েছেন কি না, তা অবশ্য তাঁর জানা নেই। 
জাফরইয়াব জিলানি ও অন্য আইনজীবীরা বলছেন, সুন্নি ওয়াকফ বোর্ড যদি এই ধরনের কোনও হলফনামা দিয়েও থাকে শুনানি শেষ হয়ে যাওয়ার পর তার কোনও গুরুত্ব রইল না। কাজেই বাবরি মসজিদ জমি ছেড়ে দেওয়া হল এই ধরনের বক্তব্যের কোনও দাম নেই। এ ছাড়া মুসলিমদের একটি পক্ষ দাবি প্রত্যাহার করে নিলেও এই মামলায় তাদের আরও ৮টিরও বেশি পক্ষ রয়েছে। কাজেই মাত্র এক পক্ষ দাবি ছেড়ে দিলেও তা  মামলাটিতে কোনও প্রভাব ফেলবে না। এক্ষেত্রে মুসলিম পার্সোনাল ল’বোর্ডের মুখপাত্র জনাব সৈয়দ রাসুল ইলিয়াস বলেছেন, বিভ্রান্তি ছড়িয়ে পরিবেশ কলুষিত করার জন্য এই ধরনের বিদ্বেষমূলক প্রচারণা চালানো হচ্ছে। মামলায় এর কোনও গুরুত্বই নেই।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only