শুক্রবার, ১৮ অক্টোবর, ২০১৯

আর্থিক অসুখ চিহ্নিত না করে বিরোধীদের দুষতেই ব্যস্ত মোদি সরকার, নির্মলাকে জবাব মনমোহনের


ধুঁকছে দেশের অর্থনীতি। একের পর এক আর্থিক সূচক প্রমাণ করছে দেশের আর্থিক স্বাস্থ্য ভাল নেই। বিজেপির শীর্ষ নেতৃত্ব তা যে বুঝছেন না– তেমন নয়। কিন্তু কেউ তা মেনে নিচ্ছে না। একের পর এক অজুহাত বের করছেন েকন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারামন। দেশের আর্থিক এই অবস্থার জন্য তিনি দায়ী করেছেন মনমোহন সিং এবং রঘুরাম রাজনকে। মঙ্গলবার নিউইয়র্কে তিনি বলেন– মনমোহন সিং এবং রঘুরাম রাজনের সময়েই দেশের সরকারি ব্যাঙ্কিং ব্যবস্থা সবথেকে খারাপ হয়েছিল।
মহারাষ্ট্রে নির্বাচন। তাই মনমোহনের সততা এবং আর্থিক বিচক্ষণতা কাজে লাগিয়ে ময়দানে নামিয়েছে কংগ্রেস। বৃহস্পতিবার মুম্বইয়ে সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে দেশের প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিং বলেন– বিরোধীদের ঘাড়ে সব দায় চাপানোকে বিজেপি তাদের একমাত্র দায়িত্ব বলে মনে করছে। এই আর্থিক সমস্যার সমাধান কীভাবে হবে তা খুঁজছে না কেউ। পঞ্জাব অ্যান্ড মহারাষ্ট্র কো-অপারেটিভ ব্যাঙ্ক( পিএমকে) এর এই বেহাল অবস্থার উল্লেখ করে মনমোহন সিং বলেন– আসলে কেন্দ্রের বিজেপি সরকার এবং মহারাষ্ট্র সরকার জনগণ বান্ধব েকানও নীতি গ্রহণ করতে চায়ছে না।
মঙ্গলবার মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে নির্মলা বলেন, মনমোহন সিং এবং রঘুরাম রাজনের েযৗথভাবে দেশের এই অবস্থার জন্য দায়ী। তাঁদের সময়েই সরকারি ব্যাঙ্কগুলি ‘সবথেক খারাপ অবস্থায়’ েপৗঁছেছে। নিউইয়র্কে কলম্বিয়া ইউনিভার্সিটির স্কুল অব ইন্টারন্যাশনাল অ্যান্ড পাবলিক অ্যাফেয়ার্স-এ ভাষণ রাখেন নির্মলা। সেখানে তিনি ব্যাঙ্কিং সেক্টরের সব দায় রাজন এবং মনমোহন সিংয়ের ওপর চাপিয়ে দায় এড়ানোর চেষ্টা করেন। তিনি বলেন, ‘আমার ধারণা ড.রাজন আমার সঙ্গে এ বিষয়ে একমত হবেন যে– ড. সিংয়ের দেশ সম্পর্কে আরও বেশি স্পষ্ট দৃষ্টিভঙ্গি রাখা উচিত ছিল।
খ্যাতনামা অর্থনীতিবিদ মনমোহন আরও বলেন, ‘অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারামণ কি বলেছেন– তা আমি সবে দেখলাম। আমি চাই না ওঁর মন্তব্যে পরিপ্রেক্ষিতে েকানও মন্তব্য করতে। কিন্তু কেউ যদি অর্থনীতির অবস্থা ঠিক করতে চান– তাহলে তাঁকে প্রথম বের করতে হবে অসুখ কোথায়। কি কারণে এই অসুখ। তারপর চিকিৎসা। কিন্তু সরকার বিরোধীদের ঘাড়ে দোষ দেওয়াটাকের তাদের কাজ মনে করেছে। সে কারণে তারা দেশের আর্থিক অবস্থাকে চাঙ্গা করার কোনও উপায় খুঁজে পাচ্ছে না।’ 
মহারাষ্ট্রে ভাষণ দিয়ে বাজার মাত না করে দেশের আর্থিক সংকট নিয়ে নিজস্ব ভঙ্গিতে কেন্দ্রকে দুষলেন মনমোহন সিং। সাংবাদিকদের সামনে তিনি বলেন, ‘আমি যখন দায়িত্বে ছিলাম তখন যা ঘটার ঘটেছিল। কিছু দুর্বলতা তখন তৈরি হয়েছিল একথা ঠিক। কিন্তু যা কিছু সমস্যা তার সব দায় ইউপিএ সরকারের একথা আপনারা বলতে পারেন না। আপনারা ক্ষমতায় রয়েছেন ৫ বছর। এখন আর সবকিছু ইউপিএর ঘাড়ে চাপালে চলবে না।’
দ্য হিন্দু পত্রিকায় একটি নিবন্ধে নির্মলার স্বামী প্রভাকর সম্প্রতি েলখেন– দেশের আর্থিক অবস্থা খারাপ। এই অবস্থায় কেন্দ্রের উচির রাও-মনমোহন সিং মডেল অনুসরণ করা। স্বামীর এই নিবন্ধ নির্মলার অস্বস্তি বাড়িয়েছে বলে রাজনৈতিক অভিমত। অনেকের ধারণা সে কারণেই তিনি মনমোহন সিংয়ের ঘাড়ে আরও বেশি করে দায় চাপানোর চেষ্টা করছেন।
বৃহস্পতিবার মনমোহন সিং মহারাষ্ট্রের আর্থিক বেহাল দশা নিয়েও মুখ খোলেন। কথা তোলেন ৩৭০ নিয়েও। তিনি বলেন, তাঁর দল ৩৭০ ধারা বাতিলের পক্ষে। কারণ এটি স্থায়ী ব্যবস্থা ছিল না। কিন্তু যে পদ্ধতিতে এটা করা হয়েছে কংগ্রেস তার সম্পুর্ণ বিরোধী। মহারাষ্ট্রের আর্থিক অবস্থা নিয়ে মনমোহন বলেন– মহারাষ্ট্রে ধুঁকছে উৎপাদনক্ষেত্রগুলি। তরুণদের চাকরি নেই। চাকরির কারণে মহারাষ্ট্রের মানুষ ভিন রাজ্যে পালাচ্ছেন। একসময় বিনিয়োগে মহরাষ্ট্রে দেশের মধ্যে ১ নম্বর ছিল। এখন কৃষক আত্মহত্যায় মহারাষ্ট্রে দেশে প্রথম। সরকারের নিস্পৃহার কারণেই এই অবস্থা। মহারাষ্ট্রে ব্যবসার পরিবেশ নেই। বহু সেক্টর বন্ধ হয়ে গিয়েছে। 



একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only