মঙ্গলবার, ২২ অক্টোবর, ২০১৯

রাজসঙ্গীর পদ ও মর্যাদা কেড়ে নিলেন থাইরাজা





রাজপরিবারের প্রতি অশ্রদ্ধাশীল হওয়ার অভিযোগে নিজের রাজসঙ্গীর পদবি ও মর্যাদা কেড়ে নিলেন থাইরাজা ভাজিরালংকর্ণ। গত সোমবার তাঁর পদবি প্রত্যাহার করার ঘোষণা করেন রাজা।

সেই ঘোষণায় বলা হয়েছে, থাই-রাজতন্ত্রে সমস্যাগুলি সমাধানের জন্য তাকে এই বিশেষ পদ দেওয়া হয়ে ছিল। কিন্তু তিনি এখন রাজা ও রানির বিরুদ্ধে প্রতিপক্ষ হয়ে দাঁড়িয়েছেন এবং রাজার পক্ষ থেকে নির্দেশ ও আদেশ দিয়ে ক্ষমতার অপব্যবহার করেছেন।

জানা গিয়েছে, চতুর্থ স্ত্রী রানি সুথিদাকে বিয়ে করার পর গত জুলাইয়ে রাজসঙ্গীর পদমর্যাদা দেওয়া হয় সিনিনাত ওংভাজিরাপাকদিকে। এর পর থেকে  রাজতন্ত্রের প্রতি আনুগত্যহীনতা ও অসদাচরণের অভিযোগ ওঠে তাঁর বিরুদ্ধে।

এক রাজ আদেশে বলা হয়, সিনিনাত ওংভাজিরাপাকদি 'উচ্চাভিলাষী' এবং নিজেকে 'রানির সমকক্ষ ভাবতে শুরু করে ছিলেন'। রাজসঙ্গীর এমন আচরণ রাজপরিবারের প্রতি অশ্রদ্ধার।

অপসারিত রাজসঙ্গী সিনিনাত একজন মেজর জেনারেল ও পেশাদার পাইলট। তিনি দেহরক্ষীর পাশাপাশি নার্সের পদেও আসিন ছিলেন। গত থাই-রাজতন্ত্রের একশো বছরে তিনি একমাত্র মহিলা, যিনি থাই রাজসঙ্গীর খেতাব রয়েল নোবেল কনসার্ট পেয়ে ছিলেন। 

এদিকে, রাজার চতুর্থ রানি ৪১ বছরের সুথিদা ছিলেন ফ্লাইট এটেনডেন্ট এবং তিনি দেহরক্ষী ইউনিটের প্রধান। রাজা ভাজিরালংকংর্ণের দীর্ঘদিনের সহযোগী হিসাবে দায়িত্ব সামলানোয় তাঁকে অনেক সময় রাজার সঙ্গে প্রকাশ্যে দেখা গিয়েছে।


একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only