শুক্রবার, ৪ অক্টোবর, ২০১৯

উত্তরপ্রদেশের পর এবার কর্নাটক! উদ্বাস্তুদের তথ্য জোগাড় করছে ইয়েদুরাপ্পা সরকার


এবার কি তাহলে কর্নাটকেও এনআরসি হতে চলেছে? রাজ্যের ইয়েদুরাপ্পা সরকারের এক পদক্ষেপকে কেন্দ্র করে সেই জল্পনা জোরালো হয়েছে। কারণ, কর্নাটক সরকার ইতিমধ্যেই রাজ্যের উদ্বাস্তুদের সম্পর্কে তথ্য সংগ্রহ করার কাজ শুরু করে দিয়েছে। আর তা থেকেই শুরু হয়েছে উদ্বেগ। রাজ্যের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বাসবরাজ বোম্মাই বৃহস্পতিবার সাংবাদিকদের কাছে বিষয়টি স্বীকার করে নিয়েছেন। তিনি সাফ জানিয়েছেন, কর্নাটকে এনআরসি করতে তাঁরা আগ্রহী। কেন্দ্রের সঙ্গে কথা বলার পরই বিষয়টি নিয়ে এগনো হবে। উল্লেখ্য– গোটা দেশে এনআরসি করার কথা ঘোষণা করেছিলেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ। তারপরই ত্রিপুরা, হরিয়ানা ও উত্তরপ্রদেশ সরকার জানিয়ে দেয় তারা এনআরসি করতে আগ্রহী। এদিকে– বুধবারই উত্তরপ্রদেশ সরকারের পক্ষ থেকে পুলিশকে নির্দেশ দেওয়া হয়– বহিরাগতদের খুঁজে বের করে রাজ্য থেকে বিতাড়ন করার জন্য। সরকারিভাবে এনআরসি ঘোষণা না হলেও ‘অলিখিত এনআরসি’ চালু করে দিয়েছে যোগী সরকার। এবার সে পথেই হাঁটা শুরু করেছে কর্নাটকও।
কর্নাটক সরকার কার্যত স্পষ্ট করে দিয়েছে রাজ্যে তারা এনআরসি করতে আগ্রহী। রাজ্যের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বাসবরাজ বোম্মাইয়ের কথায়– ‘সারা দেশে এনআরসি করা নিয়ে একটা কথাবার্তা চলছে। আমরা সেইসব রাজ্যগুলির মধ্যে একটি যেখানে সীমান্ত পেরিয়ে বহু মানুষ এসে ঘাঁটি গেড়ে বসেছে। আমরা তাদের তথ্য সংগ্রহ করছি এবং বিষয়টি নিয়ে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্টÉমন্ত্রকের সঙ্গে আলোচনা করব এবং এগিয়ে যাব।’ মন্ত্রী আরও বলেন– ‘বিশেষকরে বেঙ্গালুরু সহ বেশ কিছু শহরে অন্যান্য রাজ্যের পাশাপাশি বাইরের দেশ থেকেও বহু লোক এসেছে। তাদের মধ্যে কেউ কেউ অপরাধমূলক কাজের সঙ্গেও যুক্ত রয়েছে বলে আমাদের নজরে এসেছে। খুব শীঘ্রই আমরা এই বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেব। এই সপ্তাহের মধ্যেই হয়তো সিদ্ধান্ত নেব।’
বুধবারই স্বরাষ্ট্র মন্ত্রীর তরফে জানানো হয়েছিল– রাজ্যে এনআরসি কার্যকর করা নিয়ে কর্নাটক সরকার ইতিমধ্যে দু’টি বৈঠক করে ফেলেছে। স্বাভাবিকভাবেই বিষয়টি নিয়ে শুরু হয়েছে জল্পনা। রাজনৈতিক বিশ্লেষকদের বক্তব্য– বিশেষ একটি সম্প্রদায়কে নিশানা করতেই এনআরসি করার কথা বলা হচ্ছে।   
  





একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only