শুক্রবার, ১৮ অক্টোবর, ২০১৯

৪৪ সন্তানের মাকে ফের গর্ভধারণের অনুমতি দেবে না উগান্ডা


বয়স মাত্র ৩৯ বছর। কিন্তু তবুও তিনি ৪৪ সন্তানের জননী। উগাণ্ডার নাগরিক মারিয়াম নাবাতানজি এখন বিস্ময়কর জননী হয়ে উঠেছেন।সম্প্রতি, তাঁর অস্বাভাবিক প্রজনন ক্ষমতার জন্য উগান্ডার স্বাস্থ্য দফতর জানিয়েছে, ওই মহিলাকে আর গর্ভধারণের অনুমতি দেওয়া হবে না। তাই, মারিয়ামকে জরায়ু বাদ দেওয়ার জন্য পরামর্শ দিয়েছেন সেখানকার চিকিৎসকরা।  

জানা গিয়েছে, মাত্র ১২ বছর বয়সেই মারিয়ামের বিয়ে হয়ে গিয়ে ছিল।একবছরের মধ্যে তিনি যমজ সন্তানের মা হন। বছর ঘোরার সঙ্গে সঙ্গে একসঙ্গে আরও পাঁচ সন্তানের জন্ম দেন। তার পর আরও চারবার একসঙ্গে তিনজন করে এবং পাঁচবার একসঙ্গে চারজন করে সন্তানের জন্ম দেন। এভাবে একসঙ্গে একাধিক সন্তান প্রজননের ক্ষমতা রয়েছে ওই মহিলার। 

চিকিৎসকরা জানিয়েছেন, জরায়ু অস্বাভাবিকতাই তাকে এমন ক্ষমতার অধিকারি করে তুলেছে। তবে, অবশ্য এটি ওই মহিলার স্বাস্থ্যের জন্যও খুবই ঝুঁকিপূর্ণ। কন্ট্রাসেপ্টিক বা গর্ভনিরোধকেও তাঁর স্বাস্থের জন্য ঠিক নয়। তাই, এই অস্বাভাবিকত্ব ঘোচাতে অস্ত্রপচার করে জরায়ু বাদ দেওয়াই একমাত্র পথ হয়ে দাঁড়িয়েছে। 

গত তিন বছর আগে সন্তানদের ও মারিয়ামকে পরিত্যাক্ত অবস্থা রেখে চলে যান তাঁর স্বামী। ৩৮জন সন্তানকে নিয়ে এখন জীবনযুদ্ধ চালাচ্ছে মারিয়াম। উগান্ডার রাজধানী কাম্পালা থেকে ৫০ কিলোমিটার ভিতর অবস্থিত গ্রামের একটি কফি খেতের পাশে চারটি জরাজীর্ণ কুঁড়ে ঘরে জীবন কাটাচ্ছেন এই বিস্ময় জননী। আর্শিবাদই যে অভিশাপ বয়ে আনবে এ হয়ত স্বপ্নেও ভাবেননি মারিয়াম। এতগুলো সন্তানের মুখে অন্ন যোগাতে নাভিশ্বাস উঠে যায় তাঁর।সারা দিন পথে পথে জরিবুটি ওষুধ, প্রসাদ্ধনী ফেরি করে চলে তাঁর রোজগার। শত প্রচেষ্টা সত্ত্বে দারিদ্রা সীমার নিচে বাস করা মারিয়ামের পক্ষে তার ৪৪ সন্তানের মধ্যে ৬জন সন্তানকে বাঁচানো সম্ভব হয়নি। 

পরিণত বয়সের মহিলা এখন বোঝেন, যে তাঁর এই প্রজনন ক্ষমতা ভাবি সন্তানদেরও পৃথিবীর আলো দেখার আগেই তাঁর কোল থেকে  কেড়ে নেবে। তাই চিকিৎসকদের পরামর্শ মেনেই তিনি জরায়ু বাদ দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only