বুধবার, ৯ অক্টোবর, ২০১৯

অনুপ্রবেশ রুখতে কড়া নিরাপত্তায় ইছামতিতে প্রতিমা বিসর্জন, পরিদর্শনে সাংসদ নুসরত

                                              ইছামতীতে প্রতিমা  বিসর্জনে সাংসদ নুসরত জাহান

ইনামুল হক

বসিরহাট মহকুমার হাসনাবাদের টাকিতে দুই বাংলার প্রতিমা বিসর্জনে একসময় সীমান্তের  দুই পাড়ের মানুষের মেলবন্ধন ঘটতো।  স্মৃতি উস্কে  দেখা যায় সেসময়  ইছামতি নদীতে  প্রতিমা বিসর্জন দেখতে রাজ্য ছাড়িয়ে ভিন রাজ্য এমনকি বিদেশ থেকে পর্যটকরা ভিড় করত টাকির ইছামতির পাড়ে। এপার ওপার বাংলা মিলেমিশে একাকার। সেই সুযোগে এদেশে ঢুকে যেত বহু বাংলাদেশী। 

অনুপ্রবেশ রুখতে ২০১১ সাল থেকে বন্ধ বিসর্জনের অজুহাতে  সেই অবাধ প্রবেশের সুযোগ। তাই ইছামতীতে প্রতিমা বিসর্জনের সেই মিলন মেলা আজ অতীত। এখন সীমান্তের বিএসএফ ও ওপারের বিজিবি অতন্দ্র প্রহরার মধ্য দিয়ে ইছামতি নদীতে বিসর্জন হয়। নদীর মাঝ বরাবর দু'দেশের সীমান্তরক্ষীরা যাতে এপার ওপার প্রতিমা বিসর্জন কাজে লাগিয়ে নদী পেরিয়ে ওপার বাংলার মানুষ এদেশে যাতে না ঢুকতে পারে। এদেশের মানুষ ওপার বাংলায় না যেতে পারে তার জন্য প্রশাসনের কড়া নির্দেশ।

ইতিমধ্যে বিএসএফ ও বিজেপি একাধিকবার বৈঠক হয়েছে। সিদ্ধান্ত হয় নদীর মাঝ বরাবর সীমারেখা হিসেবে দড়ি দেওয়া থাকবে। চলবে দু'দেশের উপকূল রক্ষী বাহিনীর জওয়ানদের পেট্রোলিং।পাশাপাশি কড়া নিরাপত্তাও থাকবে রাজ্য ও জেলা পুলিশের। নিয়ম-নীতি মেনে দশমীর সকাল থেকে টাকির পূবেরবাড়ী ঘোষবাড়ি রায়চৌধুরী বাড়ি ব্রাহ্মণ পাড়া জমিদার বাড়িগুলি প্রতিমা নদীর ঘাটে বিসর্জন দেওয়া শেষ করেছে। সকালবেলা যাত্রামঙ্গল করে ছয় বেহারার কাঁধে চড়ে দালানকোঠা থেকে বের করে প্রতিমা নিয়ে যাওয়া হয় ইছামতির তীরে।

এদিন সন্ধ্যের আগে আগে ইচ্ছামতি নদীর ঘাট থেকে প্রতিমা নিরঞ্জন শেষ করেছে পুজো কমিটিগুলি। দিনভর এই দেখার জন্য রীতিমতো উপচে পড়ে সীমান্তের মানুষ। তারপরেই শুরু হয় বারোয়ারি পুজোর প্রতিমা বিসর্জন। 
টাকির ইছামতি নদীতে এপার বাংলা ওপার বাংলা মাঝ বরাবর সীমারেখা নিরাপত্তায় মুড়ে ফেলে প্রশাসন।

আর এই ইছামতি নদীতে বিসর্জন খতিয়ে দেখলেন বসিরহাটের সাংসদ তথা অভিনেত্রী নুসরাত জাহানটাকি পুরসভার ভাইস চেয়ারম্যান আজিজুল গাজী ,ও উত্তর ২৪ পরগনা জেলা পরিষদের কর্মাধ্যক্ষ নারায়ণ গোস্বামীসহ একাধিক নেতা নেতৃবৃন্দ। ইছামতি নদীর মাঝখানে গভীর রাতে বাজি প্রদর্শনী হয়।

টাকি পুরসভার উপ পুরপ্রধান আজিজুল গাজীর উদ্যোগে সাংসদ নুসরাত জাহান ও জেলা পরিষদের পুর্ত কর্মাধ্যক্ষ নারায়ণ গোস্বামীর উপস্থিতিতে এই বাজি প্রদর্শনী চলে।বুধবার ভোররাত পর্যন্ত চলে এই বাজি প্রদর্শনী

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only