শনিবার, ২৬ অক্টোবর, ২০১৯

এবারের গঙ্গাসাগর মেলাকে ঘিরে একগুচ্ছ পরিকল্পনা জেলা প্রশাসনের


পুবের কলম ওয়েব ডেস্ক, জয়নগর: গঙ্গাসাগর মেলা শুরু হতে এখনো দুমাসের বেশি বাকি। তবে এখন থেকেই শুরু হয়ে গেছে তাঁরই প্রস্তুতি। এবারে মেলা শুরু হবে ২০২০ সালের ৮ জানুয়ারি থেকে। শেষ হবে ১৮ জানুয়ারি।

১৫ জানুয়ারি মকর স্নানের সময় দুপুর ১.৪৩ - ৩.০৭ মিনিট পর্যন্ত। মোক্ষ স্নান শুরু হবে ওই দিন রাত ৮.৫৭ থেকে রাত ১০.৩২ মিনিট পর্যন্ত। দক্ষিণ ২৪ পরগনার জেলাশাসক পি উলগানাথন গঙ্গাসাগর নিয়ে আলিপুরে একটি বিশেষ বৈঠকে জানান, এবারে কুম্ভ মেলা না থাকায় ৩০ লক্ষ পূর্ণাথীর সমাগম হতে পারে গঙ্গাসাগরে। সর্ব ভারতীয় এই মেলার দিকে তাকিয়ে দেশের বড়, মাঝারি রেল স্টেশন, বিমান বন্দর, বাস ডিপোর আসা যাওয়ার পথে হোডিং দেওয়া হবে।

কুম্ভ মেলার মত এবার সারা ভারত জুড়ে প্রচার করার পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে। ভিড় বেশি হবে ধরে নিয়ে একটা বিশেষ ধরনের সফটওয়্যার তৈরি করা হচ্ছে। যাতে সেই প্রযুক্তির মাধ্যমে কোথায় কত ভিড় হচ্ছে তা আগাম জানা যাবে।

এবারের মেলার মূল ভাবনাকে সামনে রেখে একটি লোগো তৈরি করা হচ্ছে। অন্যবারের মত এবারেও মেলা অফিসে আধুনিক কন্টোল রুম খোলা হবে। সাগরে স্নানের জায়গা জুড়ে ব্যারিকেড করা হবে। নজরদারির জন্য অন্যবারের মত এবারেও ড্রোনের ব্যবস্থা থাকছে।

তীর্থ যাত্রীদের শেড গুলি উন্নত ও আধুনিক করা হচ্ছে। মহিলাদের জন্য চেঞ্জিং রুম বাড়ানো হবে। মহিলাদের জন্য এবারে মেলায় স্যানিটারি ন্যাপকিন ও ভেন্ডিং মেশিন চালু করা হবে। বাড়ানো হবে ওয়াচ টাওয়ার। নিখোঁজের সংখ্যা কমাতে হাতে রিস্ট ব্যান্ড লাগিয়ে দেওয়া হবে। সেখানে নাম, ঠিকানা ও ফোন নং থাকবে। ওয়াই ফাই জোন করা হবে মেলা চত্বর।

সুন্দরিনী প্রকল্পের মাধ্যমে মাল্টি ফুড কোর্ট করা হবে। ভ্রাম্যমান টাওয়ার ও টেলিফোন বুথ করা হবে। এছাড়া ওয়েবসাইট, ইনস্টাগাম ও ফেসবুকের মাধ্যমে ও প্রচার করা হবে। পরিবেশ বান্ধব হিসেবে চটের ব্যাগ দেওয়া হবে। মেলা চত্বর সহ বিভিন্ন পয়েন্টে সিসিক্যামেরা লাগানো হবে। স্বাস্থ্য পরিষেবাকে ঢেলে সাজানো হবে।  পূর্ণাথীদের জন্য সব রকমের সুবিধা রাখার উদ্যোগ নেওয়া হচ্ছে।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only