বৃহস্পতিবার, ৩১ অক্টোবর, ২০১৯

বাহালনগরে কিছুক্ষণ পরেই কাশ্মীরে নিহত শ্রমিকদের জানাযা



মুহাম্মদ মুস্তাক আলি ও সামিম আক্তার, বাহালনগর: আর কিছুক্ষণের মধ্যেই শুরু হবে জানাযা ও কবরস্থ করার কাজ। গত মঙ্গলবার কাশ্মীরে নিহত পাঁচ শ্রমিকের মরদেহ এখনও শায়িত রয়েছে বাহালনগরে তাদের নিজ নিজ বাড়িতে। আজ বৃহস্পতিবার সকাল ৫:৩০ মিনিট নাগাদ মন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম মরদেহগুলো পৌঁছে দেন পরিবার গুলির হাতে। সঙ্গে তুলে দেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের শোকবার্তা। দুপুর ১২:৩০ নাগাদ পৌঁছে যাওয়ার কথা রয়েছে পরিবহণ মন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারীর। তিনি মুখ্যমন্ত্রীর পাঠানো নিহতদের প্রত্যেক পরিবারকে পাঁচ লক্ষ টাকার চেক তুলে দেবেন বলে সূত্রের খবর। ইতিমধ্যেই বাহালনগরে পৌঁছে গেছেন মুর্শিদাবাদ জেলা পরিষদের মেন্টর মোহাম্মদ সোহরাব, জঙ্গিপুর লোকসভার সাংসদ খলিলুর রহমান প্রমুখ। খলিলুর রহমান নিহত শ্রমিকদের  বাড়ি বাড়ি ঘুরে প্রত্যেক পরিবারকে ৫০ হাজার টাকা করে চেক তুলে দেন।সমবেদনা জানিয়ে এসেছেন  মন্ত্রী জাকির হোসেন ও সাংসদ মহুয়া মৈত্র।

 ঘটনাকে কেন্দ্র করে মুর্শিদাবাদের মানুষ আজ যেন ভেঙে পড়েছে বাহালনগরে। শোকার্ত মানুষরা দুঃখ প্রকাশের ভাষাও হারিয়ে ফেলেছেন। গোটা গ্রাম যেন ক্ষোভে ফাটছে বিজেপি নিয়ন্ত্রিত কেন্দ্র সরকারের বিরুদ্ধে। অনেকেরই অভিযোগ, মুর্শিদাবাদের এই শ্রমিকদের পরিকল্পিত ভাবে খুন করা হয়েছে।
অন্যদিকে এই জেলা থেকেই যাওয়া বহু শ্রমিক এখন কাশ্মীর থেকে মুর্শিদাবাদে ফেরা পথে। অনেকের অভিযোগ, কাশ্মীরের পুলিশ নাকি পরিযায়ী শ্রমিকদের নিজ নিজ বাড়ি ফিরে যাওয়ার জন্য ক্রমশ চাপ দিয়ে চলেছে। তবে মমতার তৃণমূল সরকার যেভাবে পাশে এসে দাঁড়িয়েছে, তার তারিফ করছেন মুর্শিদাবাদবাসী৷   

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only