মঙ্গলবার, ২২ অক্টোবর, ২০১৯

দামাল গরু সামলাতে হিমশিম জার্মান পুলিশ

গরু একটি গৃহপালিত পশু। নিরীহ হিসেবেই সবাই জানে। কিন্তু খেপে গেলে কী অবস্থা হয় সেটা বোধহয় অনেকেই জানেন না। তবে ব্যাপারটি হাড়ে হাড়ে টের পেলেন জার্মানির পুলিশ। খামার থেকে পালানো এক গরু নিয়ে বিপাকে পড়েছে দেশটির পুলিশ বিভাগ৷ প্রাণীটিকে বাগে আনতে ব্যবহার করতে হয়েছে থার্মাল ইমেজিং প্রযুক্তি সম্পন্ন হেলিকপ্টারও৷ গরুটি তার মালিককে আহত করেছে, ক্ষতি করেছে গ্রিনহাউস ও পুলিশের একটি গাড়ির৷ বাভারিয়ার সান্ড আম মাইনে ঘটেছে এমন কাণ্ড৷ কয়েক ঘন্টাব্যাপী গরুটির পেছনে ছুটেছে পুলিশ৷ ব্যবহার করতে হয়েছে একাধিক গাড়ি আর থার্মাল ক্যামেরা সম্বলিত হেলিকপ্টার৷ গরুটিকে বাগে আনতে স্থানীয় স্বেচ্ছাসেবী অগ্নিনির্বাপণ কর্মীদেরও সাহায্য নিতে হয়েছে তাদের৷

শনিবার সন্ধ্যায় খামার থেকে গরুটি পালিয়ে যাওয়ার কথা পুলিশকে জানায় তার মালিক৷ এর চারঘন্টা পর ৬০০ কেজি ওজনের গরুটিকে ধরতে পুলিশ সক্ষম হয় ৷ ‘‘শুরুতে এটা হাস্যকর মনে হতে পারে৷ কিন্তু এটা বেশ বিপজ্জনক একটা কাজ ছিল,'' স্থানীয় একটি সংবাদ মাধ্যমকে জানিয়েছেন পুলিশ কমান্ডার আন্দ্রেয়া ভিঙ্কলার৷

প্রথমে দুটি গরু পালিয়ে গেলেও একটিকে নিজেই ধরতে সক্ষম হন খামার মালিক৷ স্থানীয় কর্তৃপক্ষ অন্যটিকে পরবর্তীতে নিকটবর্তী একটি সুপার মার্কেটের কাছে চিহ্নিত করে৷ এ সময় প্রাণীটি একটি গ্রিনহাউস ও প্রশিক্ষণ শিবির ক্ষতিগ্রস্ত করে৷ এক পর্যায়ে পুলিশ সেখানকার বাসিন্দাদের সরে যেতে বলে৷

গরুটি একসময় ভীত হয়ে একটি স্কুটার ও পুলিশের গাড়ির উপরও চড়াও হয়৷ শান্ত করতে গিয়ে তার রোষানলে পড়তে হয়েছে গরুর মালিককেও, যদিও জখম গুরুতর ছিল না৷

পালিয়ে যাওয়ার এক পর্যায়ে হেলিকপ্টার থেকে গরুটিকে একটি সরুপথের শেষ প্রান্তে চিহ্নিত করে পুলিশ৷ গাড়ি নিয়ে পুলিশ আর স্থানীয় স্বেচ্ছাসেবী অগ্নি নির্বাপণ কর্মীরা তাকে ঘিরে ফেলে৷ তাদের সাথে ছিল একজন প্রাণী চিকিৎসকও৷ তিনি চেতনানাশক তীর ছুঁড়ে গরুটিকে বাগে আনতে সক্ষম হন৷ 

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only