শুক্রবার, ২৫ অক্টোবর, ২০১৯

দীপাবলির আগেই গারুলিয়া পুনর্দখল, তৃণমূলের পরের লক্ষ্য ভাটপাড়া পুরসভা


চিন্ময় ভট্টাচার্য 

আগেই নৈহাটি, কাঁচরাপাড়া এবং হালিশহর পুরসভা পুনর্দখল করেছিল ঘাসফুল শিবির।  শুক্রবার গারুলিয়া পুরসভাও পুনর্দখল করল তৃণমূল কংগ্রেস। ১৩-০ ব্যবধানে জয়ী হয়ে ঘাসফুল শিবির চেয়ারম্যান করল সঞ্জয় সিং-কে। পরাজয় নিশ্চিত বুঝে বিজেপির কাউন্সিলররা এদিন ভোট দিতে আসেননি। ছিলেন না ফরওয়ার্ড ব্লকের একমাত্র কাউন্সিলরও। লোকসভা ভোটের পরই তৃণমূল কংগ্রেস ছেড়ে চেয়ারম্যান সুনীল সিংয়ের নেতৃত্বে বিজেপিতে যোগ দিয়েছিলেন ১২ জন কাউন্সিলর। তার ফলে, তৃণমূল কংগ্রেসের দখলে থাকা গারুলিয়া পুরসভা চলে যায় বিজেপির দখলে। 

পরে, বিজেপি থেকে তৃণমূলে ফিরে আসেন চার জন কাউন্সিলর। গারুলিয়া পুরসভার মোট ২১ আসনের মধ্যে বর্তমানে তৃণমূলের দখলে রয়েছে ১৩টি ওয়ার্ড। বিজেপির দখলে রয়েছে সাতটি। চার কাউন্সিলর দলে ফেরার পরই, ১৬ সেপ্টেম্বর, চেয়ারম্যান সুনীল সিংয়ের বিরুদ্ধে অনাস্থা প্রস্তাব আনে তৃণমূল কংগ্রেস। এদিন অনাস্থায় জয়ের পর, চেয়ারম্যান হিসেবে সঞ্জয় সিংয়ের নাম উঠে এলে, উপস্থিত কাউন্সিলররা সেই নাম সমর্থন করেন। 

গারুলিয়া পুরসভা পুনর্দখলের পর এদিনই তৃণমূলের উত্তর ২৪ পরগনার জেলা সভাপতি জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক বলেন, 'এবার আমাদের লক্ষ্য ভাটপাড়া। নিশ্চিত করে বলছি, দীপাবলি মিটলেই আমরা ভাটপাড়া পুরসভা পুনর্দখল করব। অধিকাংশ কাউন্সিলরই যোগাযোগ করেছেন।' পালটা, ব্যারাকপুরের তৃণমূল সাংসদ অর্জুন সিং বলেন, 'মানুষ সব দেখছে। পরের নির্বাচনে ভোটবাক্সে জবাব মিলবে।' বিদায়ী চেয়ারম্যান সুনীল সিং বলেন, 'ছ'মাস পরই গারুলিয়া পুরসভার পুরবোর্ডের মেয়াদ শেষ হবে। কেউ আমার চেয়ে  গারুলিয়ার মানুষকে বেশি পরিষেবা দিতে পারলে, আমি তাঁকেই সমর্থন করব।'

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only