বৃহস্পতিবার, ২৪ অক্টোবর, ২০১৯

মুসলিম ডেলিভারি বয়, অর্ডার বাতিল ‘সুইগি’তে

রেস্টুরেন্টটি মুসলিম-পরিচালিত!

মাসখানেক আগের ঘটনা। খাবার ডেলিভারি অ্যাপ-প্ল্যাটফর্ম ‘জোম্যাটো’র ডেলিভারি বয় মুসলিম হওয়ায় নিজের অর্ডার বাতিল করে দিয়েছিলেন এক হিন্দু যুবক। এবার ফের সেই ঘটনার পুনরাবৃত্তি। ‘সুইগি’ অ্যাপ ব্যবহার করে স্ন্যাকস-জাতীয় খাবার (চিকেন-৬৫) কিনেছিলেন হায়দরাবাদের অজয় কুমার। অনলাইনে দামও মিটিয়ে দেন তিনি। তবে অর্ডারের সময় তার পছন্দ হিসেবে জানিয়েছিলেন যে– খাবারটি কম মশলাযুক্ত হবে। আর ডেলিভারি পার্সন যেন হিন্দু হয়। কিন্তু ‘সুইগি’ কথা রাখেনি। খাবার পাঠানো হয় মুদাসসির ওমর নামের এক মুসলিমকে দিয়ে। আর তাতেই বেজায় খাপ্পা অজয়বাবু। খাবার নিয়ে রওনা হয়ে মুদাসসির অজয়বাবুকে ফোন করেন তার প্রকৃত ঠিকানাটা জানার জন্য। অজয়বাবু জিজ্ঞাসা করেন– আপনার নাম কী? ডেলিভারি বয় উত্তর দেয়– মুদাসসির ওমর। হিন্দু ডেলিভারি বয় চেয়েও মুসলিমকেই কিনা পাঠানো হল! রেগে অগ্নিশর্মা হয়ে অজয়বাবু মুদাসসিরকে তিরস্কার করতে শুরু করেন– ‘আমি অনুরোধ করলাম হিন্দু কাউকে পাঠান। তবু আপনারা মুসলিম বয় পাঠালেন। কাস্টমারের ইচ্ছাকে সম্মান দিতে জানেন না আপনারা। আমি এই অর্ডার বাতিল করে দিচ্ছি। মুসলিমের আনা খাবার আমি চাই না।’       
এখানেই ক্ষান্ত দেননি অজয়বাবু। এরপর ফোন করেন সুইগির কাস্টমার কেয়ারে। একই প্রসঙ্গ তুলে তিনি বিতর্ক শুরু করেন এবং দাবি করেন--- অর্ডার  বাতিল করে তার প্রদেয় অর্থ ফেরত দিক কর্তৃপক্ষ। এর জবাবে তাকে জানানো হয়– বাতিল করলেও ৯৫ টাকা কেটে নেওয়া হবে এবং বাকি টাকা ৫-৭ দিনের মধ্যে তার অ্যাকাউন্টে জমা করে দেওয়া হবে। অজয়বাবু বলেন– টাকা যাচ্ছে যাক– তবু মুসলিমের  হাত থেকে খাবার নেব না।  
বিজ্ঞানে স্নাতকোত্তরের পড়ুয়া মুদাসসির বলেন– সুইগি এভাবে ধর্ম বিচার করে খাবার ডেলিভারি বয় নিয়োগ করে না। জিপিএস-এর (স্থান-নির্ণায়ক প্রযুক্তি) মাধ্যমে এটি স্বয়ংক্রিয় ভাবেই ঠিক হয়। আমি যেহেতু অজয়বাবুর কাছাকাছি ছিলাম– তাই আমাকেই এর জন্য নিযুক্ত করা হয়।  
মঙ্গলবার মুদাসসির বিষয়টি স্থানীয় রাজনৈতিক দল মজলিশ বাচাও তেহরিকের সভাপতি আমজাদুল্লাহ খানের নজরে আনেন। তিনি বলেন– ধর্ম-বিচার করে খাবারের অর্ডার বাতিল হয় কীভাবে? যে রেস্টুরেন্ট থেকে অজয়বাবু চিকেন-৬৫ অর্ডার দিয়েছিলেন– সেই গ্র্যান্ড বাওয়ারচির মালিকই তো মুসলিম। ওটি যে মুসলিম-পরিচালিত রেস্টুরেন্ট– তা বোধহয় তিনি জানতেন না।’ হিন্দু-মুসলিম পার্থক্য সৃষ্টি করছেন অজয়বাবু---এ জন্য খান সাহেব মুদাসসিরকে পুলিশে অভিযোগ দায়ের করতে বলেন। মুদাসসির শালিবান্দা থানায় অভিযোগ দায়ের করলে এই ঘটনাটি বুধবার সন্ধ্যায় সংবাদমাধ্যমের নজরে আসে। পুলিশ জানিয়েছে– তারা অভিযোগটির সত্যতা যাচাই করে দেখছে। পরে মামলা দায়ের করা হতে পারে। 
 এর আগে জুলাইয়ের জোম্যাটোর ঘটনাটিতে সংস্থাটির মালিক টুইট করে মুসলিম ডেলিভারি বয়ের পক্ষ নিয়ে জানিয়েছিলেন– খাবারের কোনও ধর্ম হয় না। সুইগির তরফ থেকে এখন পর্যন্ত কোনও প্রতিক্রিয়া অবশ্য মেলেনি।      

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only