বুধবার, ১৬ অক্টোবর, ২০১৯

প্রাক্তন জাতীয় ক্রিকেট অধিনায়ক আজহারউদ্দিনের প্রশংসায় পঞ্চমুখ সাংসদ আহমদ হাসান ইমরান


মুহাম্মদ মুস্তাক আলি ও সামিম আক্তার, জঙ্গিপুরঃ ‘মুহাম্মদ আজহারউদ্দিন সাহেব, আপনি অনেক কষ্ট স্বীকার করে এই মুর্শিদাবাদে আজ পৌঁছেছেন। আপনাকে বাংলায় স্বাগতম। এই রাজ্যের মানুষ আপনাকে খুব মিস করে। আমার বিশ্বাস, আপনিও বাংলাকে একইভাবে মিস করেন। মুহাম্মদ আজহারউদ্দিন, কলকাতার ইডেন গার্ডেনে আপনার অনবদ্য প্রথম টেস্ট শতরানটি সমগ্র দেশকে গর্বিত করেছিল। ক্রিকেট খেলায় একটা ইতিহাস গড়েছিলেন।’ অনেকটা এইভাবেই ভারতের জাতীয় ক্রিকেট দলের প্রাক্তন অধিনায়ক মুহাম্মদ আজহারউদ্দিনকে মঞ্চে বসিয়ে তাঁরই প্রশংসায় পঞ্চমুখ হয়ে বক্তব্য রাখলেন রাজ্যসভার সাংসদ তথা পুবের কলম পত্রিকার সম্পাদক আহমদ হাসান ইমরান। মঙ্গলবার তিনি মুর্শিদাবাদের অরঙ্গাবাদ এলাকার মধুপুরে অবস্থিত বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এআরটিএম-এর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন। আহমদ হাসান আরও বলেন, নবাবী আমলে এই মুর্শিদাবাদ জেলা ছিল বাংলা– বিহার– ওড়িশার রাজধানী। সে সময় শিক্ষা– ব্যবসা-বাণিজ্য এবং সংস্কূতিতে যথেষ্ট অগ্রগতির স্বাক্ষর রেূেছিল এই জেলা। তিনি বলেন– এই জেলার ৭৫ শতাংশ মানুষ দেশের সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের, মুসলিম ধর্মাবলম্বী। প্রত্যন্ত এলাকায় এআরটিএম-এর মতো উচ্চশিক্ষা প্রতিষ্ঠান গড়ার জন্য ইমরান সাহেব সংস্থার কর্ণধার জহিরুল ইসলামের ভূয়সী প্রশংসা করেন। শিক্ষার অগ্রগতির লক্ষ্যে পিছিয়েপড়া এই জেলায় একের পর এক বেসরকারি প্রতিষ্ঠান গড়ে ওঠায় রাজ্যসভার সাংসদ সন্তোষ প্রকাশ করে বক্তব্য রাূেন।
উল্লেখ্য– এ দিন এআরটিএম-এর শুভ উদ্বোধন করেন মুহাম্মদ আজহারউদ্দিন। ব্যাপক জনসমাগমের এই অনুষ্ঠানে বিশিষ্টদের মধ্যে আজহারউদ্দিন ছাড়াও উপস্থিত ছিলেন রাজ্যসভার সাংসদ আহমদ হাসান ইমরান– জঙ্গিপুর লোকসভার সাংসদ খলিলুর রহমান– ক্রিকেটার আজহারউদ্দিনের ভগ্নীপতি খলিলুর রহমান– মুর্শিদাবাদ জেলা পরিষদের মেন্টর মুহাম্মদ সোহরাব– বিধায়ক হুমায়ুন রেজা– আমিরুল ইসলাম– সংস্থার কর্ণধার জহিরুল ইসলাম– মুর্শিদাবাদ জেলা পরিষদের খাদ্য-কর্মাধ্যক্ষ মইদুল ইসলাম– জেলা পরিষদ সদস্য রুবিয়া সুলতানা প্রমুখ। সমগ্র অনুষ্ঠানটি সুচারুরূপে সঞ্চালনা করেন অধ্যাপক মেহেদি হাসান।
সাংসদ খলিলুর রহমান এ দিন অত্যন্ত সংক্ষিপ্ত বক্তব্য রাখেন। তিনি বলেন– আজ ১৫ অক্টোবর দিল্লিতে আমার অন্য একটা পূর্ব নির্ধারিত কর্মসূচি ছিল। কিন্তু এই অনুষ্ঠানে ডাক পেয়ে সেটা বাতিল করে এই সভামঞ্চে উপস্থিত হয়েছি। তিনি শিক্ষক সম্প্রদায়ের কাছে আবেদন জানিয়ে বলেন– লেূাপড়ার পাশাপাশি শিক্ষার্থীদের নৈতিক মূল্যবোধ গড়ে তোলার শিক্ষা দিতে হবে। অন্যান্য বক্তারাও সময়াভাবে অত্যন্ত সংক্ষিপ্ত ও গঠনমূলক বক্তব্য রাখেন।
সর্বশেষে বক্তব্য রাূেন প্রাক্তন ক্রিকেটার আজহারউদ্দিন। তিনি বলেন– ‘এআরটিএম’ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের কর্ণধার জহিরুল ইসলামের সঙ্গে দীর্ঘদিনের বন্ধুত্বের সম্পর্ক রয়েছে আমার। সুতরাং তাঁর অনুরোধ ফেলতে না পেরে সুদূর হায়দরাবাদ থেকে এই মুর্শিদাবাদে ছুটে এসেছি। মুহাম্মদ আজহারউদ্দিন বলেন– প্রকৃতপক্ষে শিক্ষা এবং ক্রীড়া দু’টোই অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। জীবনে সফল হতে হলে উপযুক্ত শিক্ষার কোনও বিকল্প নেই। শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ্যে সফল এই ক্রিকেটারের পরামর্শ– মনযোগ সহকারে লেূাপড়ার পাশাপাশি ূেলাধুলোও করতে হবে। তবে একইসঙ্গে আজহার বলেন– খেলাধুলো করলেও শিক্ষাকে অবহেলা করা চলবে না। তিনি আরও বলেন– যে কাজই করুন না কেন সেটা অত্যন্ত মনোযোগ সহকারে করতে হবে। জীবনে পরিশ্রম করে এগিয়ে যেতে হবে। আজহারউদ্দিনের মতে– পরিশ্রম করলেই আল্লাহ্ পাকের সাহায্য পাওয়া যাবে। ক্রিকেটে আবির্ভাব লগ্নের স্মৃতি চারণা হাতড়িয়ে আজহারউদ্দিন ইডেন গার্ডেনে তাঁর জীবনের টেস্ট শতরান এবং সেরা ইনিংসের বিষয়টি শ্রোতাদের সামনে তুলে ধরেন। আজহারউদ্দিন তাঁর ক্রিকেট জীবনের কথা বলতে গিয়ে বলেন– বাংলা আমাকে সমগ্র ক্রিকেট বিশ্বে সবচেয়ে বেশি পরিচিত হওয়ার সুযোগ করে দিয়েছিল। সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায় বিসিসিআই সভাপতি নির্বাচিত হওয়ার প্রসঙ্গ তুলে আজহার মন্তব্য করেন– বাংলা থেকে একজন যোগ্যতাসম্পন্ন ব্যক্তি এই পদের সুযোগ পেয়েছেন। 
জনপ্লাবন দেূে আপ্লুত আজহার মুর্শিদাবাদের মানুষকে ধন্যবাদও জানান। এআরটিএম শিক্ষা প্রতিষ্ঠান সম্পর্কে বলতে গিয়ে আজহারউদ্দিন বলেন– আশা রাখি এই শিক্ষাকেন্দ্র একদিন দেশকে বহু মেধাবী শিক্ষার্থী উপহার দেবে। 
সংস্থার কর্ণধার জহিরুল ইসলাম বক্তব্য রাখতে গিয়ে বলেন– মুর্শিদাবাদে শিক্ষা বিস্তারের লক্ষ্য নিয়ে এআরটিএম গড়ে তোলা হয়েছে। অধ্যাপক মেহেদি হাসানও এই শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সাফল্য কামনা করে সংক্ষিপ্ত বক্তব্য পেশ করেন। 

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only