শুক্রবার, ১ নভেম্বর, ২০১৯

কাশ্মীরে বাঙালি খুনে কেন্দ্রকে দায়ী করলেন মমতা

কাশ্মীরে জঙ্গি হানায় ৫ বাঙালি শ্রমিকের হত্যা নিয়ে কেন্দ্রকে কাঠগড়ায় তুললেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। বৃহস্পতিবার সংবাদ মাধ্যমকে প্রতিক্রিয়ায় মমতা বলেন– ‘এটা পরিকল্পিত হামলা।’ ইউরোপীয় প্রতিনিধি দল যখন কাশ্মীরে– তখন এমন হামলা হল কিভাবে? মঙ্গলবার হামলার খবর জানার পরই টু্যইট করেছিলেন মুখ্যমন্ত্রী। ঘটনার নিন্দার সঙ্গে সঙ্গে কাশ্মীরের নিরাপত্তা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছিলেন তিনি। কেন্দ্রকে দায়িত্ব মনে করিয়ে দিয়ে মুখ্যমন্ত্রী বলেন– ‘কাশ্মীরের আইনশৃঙ্খলার দায়িত্ব কেন্দ্রের।’
বৃহস্পতিবার মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সাংবাদিকদের সামনে বলেন– ‘গোটা প্রশাসনই তো কেন্দ্রের হাতে। ইউরোপীয় ইউনিয়নের প্রতিনিধিদের জন্য এত নিরাপত্তা ও সতর্কতার পর কীভাবে শ্রমিকরা খুন হয়ে গেলেন? কেন্দ্রীয় সরকারের উচিত সরকারের এই বিষয়টি তদন্ত করে দেখা। মনে রাখতে হবে কাশ্মীরে কিন্তু কোনও রাজনৈতিক কর্মসূচী নেই।’ মমতা আরও বলেন– ‘এটা পূর্ব পরিকল্পিত হত্যা। নৃশংসভাবে এই শ্রমিকদের খুন করা হয়েছে। ওখানে এই মুহুর্তে কোনও রাজনৈতিক দল নেই। সেখানে সবকিছুই কেন্দ্রের হাতে। এই ঘটনা লজ্জাজনক।’ তিনি প্রশ্ন তোলেন– ‘এই অবস্থায় কীভাবে শ্রমিকদের অপহরণ করতে এল জঙ্গিরা? যেভাবে জঙ্গিরা অপহরণ করেএই হত্যা করেছে তাতে স্পষ্ট যে এটা পূর্বপরিকল্পিত হত্যা। এই ঘটনার পুঙ্খানুপুঙ্খ তদন্ত হওয়া উচিত। বিদেশি অতিথিদের সামনে কাশ্মীরে এমন ঘটনায় দেশের বদনাম হয়।’ 
বৃহস্পতিবার ভোরে মুর্শিদাবাদের সাগরদিঘির বাহালনগরে ফেরে ৫ শ্রমিকের কফিনবন্দি দেহ। মুখ্যমন্ত্রীর নির্দেশে নিহতদের কফিনবন্দি দেহ নিয়ে মুর্শিদাবাদে গিয়েছেন মন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম সহ তৃণমূলের প্রতিনিধিরা। নিহতদের পরিবারের সঙ্গে দেখা করেন সাংসদ মুহুয়া মৈত্র এবং রাজ্যের মন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারী। নিহতদের পরিবার পিছু ৫ লক্ষ টাকা করে ক্ষতিপুরণের নির্দেশ দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।
মন্ত্রী ফিরহাদ হামিক এদিন প্রশ্ন তোলেন কাশ্মীরের ৩৭০ ধারা তুলে দিয়ে তাহলে কি লাভ হল। ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের প্রতিনিধিদের নিরাপত্তা রয়েছে– অথচ সাধারণ মানুষের জীবনের কোনও নিরাপত্তা নেই। এই অবস্থা নিয়ে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রীকে খোঁচা দেন ফিরহাদ। মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সুরে মন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারীও বাহালনগরের মাটিতে দাঁড়িয়ে এই খুনের নিরপেক্ষ পুর্নাঙ্গ তদন্ত দাবি করেন। শাসক দলের প্রতিনিধিরা এদিন নিহতদের পরিবার পরিজনদের সঙ্গে কথা বলেন। পরিবার পিছু৫ লক্ষ টাকার চেকও এদিন তুলে দেওয়া হয় তাঁদের হাতে। মুর্শিদাবাদ জেলা তৃণমূলের জনপ্রতিনিধিরা তাঁদের একমাসের বেতন নিহতদের পরিবারের হাতে তুলে দেবেন। এমনটাই জানান শুভেন্দু।
এদিন আহত জহিরুদ্দিনের বাড়িতেও যান তৃণমূল প্রতিনিধিরা। আহত জহিরউদ্দিনের স্ত্রীর চুক্তিভিত্তিক কাজের আশ্বাস দেন পরিবহণমন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারি। জহরুদ্দিনের শরীর থেকে ৪ টি গুলি বের করা হয়েছে। তাঁর চিকিৎসার সব ব্যয়ভার রাজ্যসরকার বহনের আশ্বাসও দেওয়া হয়। আহত বসিরুলকে ভর্তি করা হয়েছে এসএসকেএমের ট্রমা সেন্টারে। চিকিৎসকরা জানিয়েছে এখন আতঙ্কের মধ্যে রয়েছেন বসিরুল।
মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের মন্তব্যে প্রতিক্রিয়া দেন বিজেপি নেতা দিলীপ ঘোষ। তিনি বলেন– আমরা যখন পাকিস্তানে হামলা করি– মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় তখন কেন্দ্রকে নিশানা করেন। কাজের জন্য গরীব শ্রমিকদের তো ভিন রাজ্যে পাড়ি দিতে হচ্ছে। তার জন্য মুখ্যমন্ত্রীর লজ্জা পাওয়া উচিত। এই হত্যাকাণ্ডের নিন্দা করেন রাজ্যপাল ধনকর।
নিহতদের কফিনবন্দী দেহ গ্রামে পৌঁছানোর পরই েগাটা গ্রাম জুড়েই নেমে আসে শোকের ছায়া। প্রথমে গ্রামের একটি রাখা হয় দেহগুলি। এদিন শোকে মুহ্যমান হয়ে পড়ে গোটা গ্রাম। হঠাৎ শোকে প্রায় সকলে ভুলে যান নাওয়া খাওয়া। বেশিরভাগের বাড়িতে হাঁড়ি চড়েনি। মসজিদ কমটির উদ্যোগে সকলের খাওয়া-দাওয়ার বন্দ্যোবস্ত হয়।

কাশ্মীরে শান্তি ফিরছে। প্রায় তিন মাস ধরেই দাবি করে আসছে কেন্দ্র। ইউরোপিয়ান ইউনিয়মনের বাছাই করা ২৩ জন প্রার্থীকেও কাশ্মীরে যাওয়ার অনুমোদন দেওয়া হল। যদিও সেখানে যাওয়ার জন্য দেশের সাংসদদের সুপ্রিম কোর্টের দ্বারস্থ হতে হয়েছে। একাধিক নেতাকে শ্রীনগর বিমানবন্দর থেকে ফেরত পাঠানো হয়েছে। নির্বাচনী প্রচারই হোক কিংবা অন্য কোনও অনুষ্ঠান ৩৭০ বাতিলের কৃতিত্ব দাবি করছেন মোদি-শাহরা। সেখানে শান্তি ফিরেছে বলেও দাবি করেছেন দু’জনে। সবের জন্য দায়ী ৩৭০ ধারা। এই মর্যাদার কারণেই কাশ্মীরে যত অনউন্নয়ন। এই বিশেষ মর্যাদা তুলে দিলে সব ঠিক হয়ে যাবে। হালে পানি পাবে না জঙ্গিরা। তবে কুলগামের কাতরাসুর ঘটনা শাহের এই দাবিকে সম্পূর্ণভাবে সমর্থন করল না। অতি সাধারণ মানুষও প্রশ্ন তুলছেন এমন কড়া প্রহরায় কোথা থেকে জঙ্গি ঢুকছে। তারা ঘুরে বেড়াচ্ছে কিভাবে। নিজেদের পরিচয় সামনেই বা আনছে না কেন তারা। সাধারণত জঙ্গিরা এমন অপারেশনে নিজেদের পরিচয় তুলে ধরে। সম্প্রতি কাশ্মীরে যে হামলাগুলি চলছে তাতে কোন জঙ্গি সংঠন যুক্ত তা স্পষ্ট হচ্ছে না। এসব দেখেশুনেই মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় নিরপেক্ষ তদন্ত দাবি করছেন।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ভিন্ন স্বাদের খবর

...
আপনার ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন

Whatsapp Button works on Mobile Device only